Last update
Loading...

আমাদের বক্তব্য না শুনেই খালেদা জিয়ার জামিনাদেশ স্থগিত করেছেন আদালত: জয়নুল আবেদীন

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় খালেদা জিয়ার জামিনাদেশ বিষয়ে আপিল বিভাগের শুনানি প্রসঙ্গে তার আইনজীবী জয়নুল আবেদীন বলেছেন, ‘আমাদের বক্তব্য না শুনেই দেশের সর্বোচ্চ আদালত এই ধরনের আদেশ দিয়েছেন। এই আদেশে আমরা ব্যথিত। আদালতের এই আদেশের বিষয়ে কী ভাষায় আপনাদের কাছে বর্ণনা করবো, তা আমরা খুঁজে পাচ্ছি না।’
বুধবার (১৪ মার্চ) সকালে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনের সভাপতি কক্ষের সামনে এক প্রতিক্রিয়ায় তিনি এসব কথা বলেন।
জয়নুল আবেদীন বলেন, ‘আমরা ধারণা করেছিলাম, চিরাচরিতভাবে আপিল বিভাগ যেটা করেন, উভয়পক্ষের বক্তব্য শোনেন, তারপর আদেশ দেন। আজকের বিষয়টি হলো, আপিলটি দুদকের আইনজীবী উপস্থাপন করার সঙ্গে সঙ্গে আদালত বললেন যে আগামী রবিবার সিপি (লিভ টু আপিল বা আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) ফাইল করেন। জামিন আগামী রবিবার পর্যন্ত স্থগিত থাকবে। আমাদের কোনও বক্তব্য তিনি (প্রধান বিচারপতি) শুনলেন না। কোনও রকম আইনগতভাবে এই মামলাটি মোকাবেলা করার জন্য ন্যূনতম সুযোগ আমাদের দিলেন না। না দিয়ে স্টে অর্ডার অনুমোদন করলেন।’
জয়নুল আবেদীন বলেন, ‘আমরা এই আদেশে অত্যন্ত ব্যথিত ও মর্মাহত হয়েছি। আজ যে কাজটি হলো বিচার বিভাগে এর আগে এভাবে কখনও ছিল না। আজকের বিচার বিভাগের কাছ থেকে এটা আশা করিনি। তার কারণ আপনারা জানেন, এই ধরনের শর্ট সেন্টেন্সে (স্বল্প সাজা) দেশের সর্বোচ্চ আদালত কখনও হস্তক্ষেপ করেননি। চেম্বারে (চেম্বার আদালত) স্টে না থাকার পরেও সেই মামলায় স্টে দিলেন।’
তিনি বলেন, ‘আমি আদালতকে একটি কথা বলতে চেয়েছিলাম, আপনি যদি স্টে নাও দেন, তাহলেও খালেদা জিয়া কারাগার থেকে বের হতে পারছেন না। সরকার তাকে বের হতে দেবেন না। ইতোমধ্যে তারা বিভিন্ন মামলায় গ্রেফতারের পরিকল্পনা করে রেখেছে। এই অবস্থার মধ্যে যদি আপনারা স্টে দেন তাহলে মানুষের মনোভাবের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়বে। এরপরও আদালত আমাদের কথা শুনলেন না।’
খালেদা জিয়ার এই আইনজীবী আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, ‘আশা করি রবিবার দিন আদালত উভয়পক্ষকে শুনবেন। অতীতের নজিরগুলো লক্ষ্য রেখেই আজ যে আদেশটি দিলেন তা ভ্যাকেট (বাতিল) করবেন। বেগম জিয়া জনসম্মখে বের হয়ে আসবেন।’

0 comments:

Post a Comment