Last update
Loading...

রাখাইনে আছে মাত্র ৭৯ হাজার রোহিঙ্গা -ইরাবতির প্রতিবেদন

ফাইল ছবি
মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে গত বছরের আগস্টে অভিযান শুরুর পর থেকেই প্রাণ বাঁচাতে প্রতিদিনই রোহিঙ্গারা বাংলাদেশ পালিয়ে এসে আশ্রয় নিচ্ছে। দুই দেশের মধ্যে প্রত্যাবাসন চুক্তির পরও তাদের আসা বন্ধ হয়নি। গতকাল শনিবার মিয়ানমারের সংবাদমাধ্যম ইরাবতি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, রাখাইনে বসবাসরত তিনটি শহরের রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর অন্তত ৯০ শতাংশকে দেশত্যাগে বাধ্য করেছে সেনাবাহিনী। ২৫ আগস্টের পর ওই অঞ্চলে মিয়ানমার সেনাবাহিনী অভিযান জোরদার করলে ৬ লাখ ৮৮ হাজার রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। এখন রাখাইনের তিনটি শহরে অবস্থানরত রোহিঙ্গার সংখ্যা মাত্র ৭৯ হাজার ৩৮ জন। সরকারি ও আন্তর্জাতিক এনজিও সংস্থাগুলোর পরিসংখ্যান পর্যালোচনা করে এ তথ্য প্রকাশ করেছে সংবাদমাধ্যমটি।
ইরাবতি উদ্বাস্তু হওয়া রোহিঙ্গাদের সংখ্যা বের করতে রাখাইনের তিনটি শহরের সরকারি প্রতিবেদন সংগ্রহ করে করেছে। ওই প্রতিবেদন তৈরি করেছে রাখাইনের জেনারেল অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ ডিপার্টমেন্ট (জিএডি)।
এটি মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নিয়ন্ত্রণাধীন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন একটি প্রতিষ্ঠান। জিএডির প্রতিবেদন ২০১৭ সালের অক্টোবরে প্রকাশিত হয়েছে। সংবাদমাধ্যমটি জিএডির প্রতিবেদন থেকে প্রাপ্ত পরিসংখ্যান বাংলাদেশের রোহিঙ্গা শিবিরের জাতিসংঘের মানবিক সহযোগিতাবিষয়ক সংস্থা ওসিএএইচএর তথ্যের সঙ্গে মিলিয়ে পর্যালোচনা করেছে। ওসিএইচএর তথ্যমতে, ২৫ আগস্ট থেকে ২৭ জানুয়ারি পর্যন্ত ৬ লাখ ৮৮ হাজার পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশে নিবন্ধিত করা হয়েছে।
জিএডির প্রতিবেদন অনুযায়ী, সেনাবাহিনীর নিপীড়ন শুরুর আগে মংডু, বুথিডং ও রাথিডংয়ে ৭ লাখ ৬৭ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা বাস করত। মংডুর একজন সরকারি কর্মকর্তা নিশ্চিত করেন, এই পরিসংখ্যান ২০১৬ সালে সংগ্রহ করা। এ তথ্যের সঙ্গে ওসিএইচএর আশ্রয়শিবিরে নিবন্ধনের তথ্য পর্যালোচনা করে বলা হয়, ওই সব এলাকা থেকে প্রায় ৯০ শতাংশ রোহিঙ্গাকেই দেশত্যাগে বাধ্য করা হয়েছে। মাত্র ১০ শতাংশ এখনও সেখানে রয়েছে। তবে এই ৯০ শতাংশের মধ্যে যারা মারা গেছেন, নিখোঁজ হয়েছেন বা গ্রেফতার হয়েছে তাদের ধরা হয়নি।
পরিসংখ্যান পর্যালোচনায় উঠে এসেছে, আক্রান্ত এলাকাগুলো থেকে যে ১০ শতাংশ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে  আসেননি, তাদের সংখ্যা ৭৯ হাজারের মতো। ফলে বাকি প্রায় ৭ লাখ ৬৭ হাজারকেই জোর করে তাড়িয়ে দেওয়া হয়। জিএডির প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, রাথিডংয়ের ৬ শতাংশ, বুথিডংয়ের ৮৪ শতাংশ ও মংডুর ৯৩ শতাংশ জনসংখ্যাই ছিল রোহিঙ্গা। প্রতিবেদনে অবশ্য তাদের 'রোহিঙ্গা' বলে উলেল্গখ করা হয়নি। ওই প্রতিবেদনে তাদের 'বাংলাদেশি' লেখা হয়েছে।
জিএডির প্রতিবেদনে স্পষ্ট করে উলেল্গখ করা হয়নি- প্রতিটি শহরে রোহিঙ্গা ও রাখাইন জাতিগোষ্ঠীর কতটি গ্রাম রয়েছে। এতে শুধু মোট গ্রামের সংখ্যা উল্লেখ করা হয়। মংডু ও বুথিডংয়ের জিএডি কর্মকর্তাদের মতে, মংডুর ৩৬৪টি গ্রামের মধ্যে ২৭২টি রোহিঙ্গাদের, যা ওই এলাকার মোট গ্রামের ৭৪ শতাংশ। সেনাবাহিনীর নির্মূল অভিযানে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা অন্তত ৭০টি গ্রাম পুড়িয়ে দিয়েছে। বুথিডংয়ের ৩৩৯টি গ্রামের মধ্যে ১৩৭টিই রোহিঙ্গাদের, যা শহরটির মোট গ্রামের ৫১ শতাংশ। শহরটির এক উচ্চপদস্থ জিএডি কর্মকর্তা জানান, এখানকার অন্তত ৩০টি গ্রাম পুড়িয়ে ছাই করে দেওয়া হয়েছে।
রাথিডংয়ে রাখাইন জাতিগোষ্ঠীর লোকেরা সংখ্যাগুরু। আগস্টের সহিংসতা শুরুর আগে সেখানে ২২টি রোহিঙ্গা গ্রাম ছিল। রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে জানা যায়, সেখানে এখন মাত্র দু-তিনটি গ্রাম টিকে আছে। বাকিগুলো পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।
এদিকে প্রত্যাবাসন নিয়ে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারে তোড়জোড়ের মধ্যেই বাংলাদেশে অবস্থানরত ডক্টরস উইদাউথ বর্ডার্সের জরুরি ব্যবস্থাপনাবিষয়ক সমন্বয়ক কেট নোলার জানান, এখনও প্রতি সপ্তাহে বাংলাদেশে শতাধিক রোহিঙ্গা আসছেন। তিনি বলেন, আগের মতো বিশাল সংখ্যায় রোহিঙ্গাদের ঢল না নামলেও এখনও প্রতি সপ্তাহেই এ জনগোষ্ঠীর সদস্যরা নাফ নদ পাড়ি দিয়ে প্রবেশ করে চলেছেন। তারা রাখাইনে নিজেদের বাড়িতে নিরাপদ বোধ করেন না। সেখানে তাদের হয়রানির শিকার হতে হয়।
রাখাইনে ৩ বোমার বিস্ম্ফোরণ : এদিকে বিবিসির খবরে বলা হয়, রাখাইন রাজ্যের রাজধানী সিত্তেতে তিনটি বোমা বিস্ম্ফোরিত হয়েছে। এতে এক পুলিশ সদস্য সামান্য আহত হন। গতকাল ভোরে সিত্তে হাইকোর্ট প্রাঙ্গণসহ আশপাশের এলাকায় এ বিস্ম্ফোরণ ঘটে। এ হামলার পেছনে কে বা কারা রয়েছে, তা জানার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ। মাত্র তিন দিন আগে উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় শহর লাশিওতে এক বিস্ম্ফোরণে নিহত হন দু'জন ব্যাংক কর্মকর্তা।।
মিয়ানমার সেনাবাহিনীর রোহিঙ্গা নিধনযজ্ঞ চালানো রাখাইন রাজ্যের রাজাধানী সিত্তে। এই রাজ্যে আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মির (আরসা) কথিত হামলার জবাবে সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে জাতিগত নিধন অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে।

0 comments:

Post a Comment