Last update
Loading...

পাক-ভারত সীমান্তে ১৫ বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি গোলাবর্ষণ

চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত-পাকিস্তানের নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর ২০০৩ সালের পর গত এক সপ্তাহ ধরে তীব্র আন্তঃসীমান্ত গোলবর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। শনিবার ভারতনিয়ন্ত্রিত উরি গ্রামের বাসিন্দাদের নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যেতে বলেছে পাকিস্তান। এর পর সীমান্তে নতুন করে উত্তেজনা ও আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। খবর ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস। তবে বৃহস্পতিবার থেকেই লোকজনকে গ্রাম থেকে সরিয়ে নেয়ার কাজ শুরু করেছে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। শনিবার সন্ধ্যায় এক হাজার গ্রামবাসীকে শহরে অপসারণ করা হয়েছে। উরিতে পরিচালিত দুটি বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রকল্পের জন্য সতর্কবার্তা জারি করা হয়েছে। কর্মকর্তারা বলছেন, তারা সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিয়েছেন। ভারতীয় সেনারা পাকিস্তানি গোলাবর্ষণের পাল্টা জবাব দিয়ে যাচ্ছেন। গত সোমবার থেকে দুই পক্ষ থেকে প্রতিদিনই গোলাবিনিময়ের ঘটনা ঘটছে। শনিবার বেলা ১১টার দিকে পাকিস্তানের দিক থেকে গোলবর্ষণ শুরু হয়। সীমান্তবর্তী তিনটি গ্রাম চুরান্দা, সিলিকোট ও তিলাওয়ারিতে গোলা আঘাত হানলে বেশ কিছু বাড়িঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। সিলিকোট গ্রামের এক অধিবাসী বলেন, এর পর লাউডস্পিকার দিয়ে পাকিস্তানি সেনারা তাদের গ্রাম ছেড়ে চলে যেতে বলেছেন। তারা আমাদের দুপুর সাড়ে ১২টার মধ্যে গ্রাম ছাড়তে বলেছেন।
এতে সবাই আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে চলে যাচ্ছেন। বরমুল্যা শহরের ডেপুটি কমিশনার নাসির নাশাখ বলেন, পাকিস্তানের দিক থেকে গ্রামবাসীকে চলে যেতে বলার ঘোষণা তিনি শুনেছেন। এটি হতে পারে সামরিক কৌশল। আতঙ্ক ছড়াতে তারা এমন ঘোষণা দিতে পারেন। ভারতীয় কর্মকর্তারা বলেন, নিয়ন্ত্রণরেখায় পাকিস্তান তাদের অস্ত্রবিরতি লঙ্ঘনের আওতা বাড়াতে চাইছে। যেটি পীর পাঞ্চল পর্বতমালা পর্যন্ত সীমিত ছিল। তবে পর্বতমালার দক্ষিণ দিকে ভারতীয় সেনাবাহিনীও প্ররোচনামূলক ভূমিকা নিয়েছে। তারা পাকিস্তানি সেনাদের চাপে রাখতে চাচ্ছে। এ অঞ্চলে পাকিস্তান উরির মতোই পদক্ষেপ নিচ্ছে। শনিবার উরি সেক্টর থেকে গ্রামবাসীকে সরাতে ভারত সরকার অ্যাম্বুলেন্স ও প্রাইভেটকার ব্যবহার করছে। স্বেচ্ছায় উরি শহরের একটি স্কুলে গিয়ে আশ্রয় নিচ্ছেন গ্রামবাসী। উরির উপবিভাগীয় ম্যাজিস্ট্রেট ড. সাগর ডি বলেন, পরিস্থিতি খুবই উত্তেজনাকর। ৭-৮ হাজার লোক আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। আমরা হাজারখানেক লোককে শহরে সরিয়ে নিয়েছি। তবে সীমান্তে পাকিস্তানি সেনাদের ঘোষণা নিয়ে ভারতীয় সেনাবাহিনী কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। তাদের অভিযোগ, পাকিস্তান অস্ত্রবিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করছে। ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র কর্নেল রাজেশ খালিয়া বলেন, বিনা উসকানিতেই উরি সেক্টরে পাকিস্তান বাহিনী গোলাবর্ষণ করে যাচ্ছে। আমরাও পাল্টা গোলাবর্ষণ করছি।

0 comments:

Post a Comment