Last update
Loading...

আজ আখেরি মোনাজাত

টঙ্গীর তুরাগতীরে আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা এবং পরিবার, দেশ, জাতি, মুসলিম উম্মাহসহ সারা দুনিয়ার শান্তি ও কল্যাণ কামনার মধ্য দিয়ে আজ শেষ হচ্ছে তাবলিগ জামাতের বার্ষিক সম্মেলন বিশ্ব ইজতেমা। এটা ছিল বিশ্ব ইজতেমার ৫৩তম আসর। ১২ জানুয়ারি শুরু হওয়া তিন দিনব্যাপী বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়েছে। ১৪ জানুয়ারি আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হয় প্রথম পর্ব। এতে বাংলাদেশ ছাড়াও ৯৮টি দেশের প্রায় ২০ হাজার ধর্মপ্রাণ মুসলমান অংশ নেন। দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমা শুরু হয় ১৯ জানুয়ারি। এ উপলক্ষে নেওয়া হয়েছিল সাত স্তরের নিরাপত্তা। মুসলমানদের অন্যতম বৃহত্তম ধর্মীয় সমাবেশ তুরাগতীরের এই বিশ্ব ইজতেমা। এর প্রধান লক্ষ্য হচ্ছে, দেশ-বিদেশের ইমানদার ত্যাগী আলেম-ওলামাদের মাধ্যমে পবিত্র কোরআন ও ইসলামের শান্তির বাণী সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া। মানুষকে দ্বীনের পথে আসার জন্য উদ্বুদ্ধ করা। ইজতেমায় যাঁরা আসেন, তাঁরা ইসলামের পবিত্র শিক্ষাকে বুকে ধারণ করে জাগতিক ও পারলৌকিক মুক্তির পথ খুঁজে পেতেই আসেন। এবার ইজতেমা শুরুর আগে বিশ্ব তাবলিগ মারকাজের শীর্ষ মুরব্বি ভারতের মাওলানা সাদ কান্ধলভীর আগমনকে কেন্দ্র করে অনভিপ্রেত ঘটনা ঘটেছে। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় তাবলিগ জামাতের মুরব্বিদের মধ্যে যে ভুল-বোঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছিল, তা আলোচনার মাধ্যমে আগেই নিষ্পত্তি করা গেলে ভালো হতো।
দুর্ভাগ্যজনকভাবে এমন একটি মহতী সমাবেশের আগে অবরোধ করে রাস্তা বন্ধ করার ঘটনা ঘটেছে এবং এতে জনগণ দুর্ভোগের মুখে পড়েছিল। কোনো বিষয়ে মতভেদ দেখা দিলে তা আলাপ-আলোচনার মাধ্যমেই সুরাহা করা প্রয়োজন এবং শেষ পর্যন্ত সেটাই হয়েছে। স্বস্তির বিষয় যে সুষ্ঠুভাবে বিশ্ব ইজতেমা শেষ হচ্ছে আজকের আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে। ভবিষ্যতে যাতে এমন কোনো ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটে সে বিষয়ে সংশ্লিষ্ট সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। এ ধরনের ভুল–বোঝাবুঝি সারা বিশ্বের ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের কাছে বিশ্ব ইজতেমা ও বাংলাদেশ সম্পর্কে ভুল বার্তা দিতে পারে। এবারের বিশ্ব ইজতেমার উল্লেখযোগ্য দিক হলো, আরবির পাশাপাশি বাংলায় হেদায়েতি বয়ান ও আখেরি মোনাজাত করার উদ্যোগ। এতে আমাদের দেশের মুসল্লিরা সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। আমরা আশা করব, ভবিষ্যতে আমাদের দেশে বিশ্ব ইজতেমা সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে অনুষ্ঠিত হওয়ার মাধ্যমে বিশ্ব মুসলিমের পারস্পরিক ভ্রাতৃত্ববোধ আরও সুদৃঢ় হবে। বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় অব্যাহতভাবে ভূমিকা পালন করে যাবে।

0 comments:

Post a Comment