Last update
Loading...

জোরদার হচ্ছে ইরানের পরমাণু কর্মসূচি : মস্কো গেলেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী

আমেরিকা যদি পরমাণু সমঝোতা লঙ্ঘন করে তাহলে ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরান পরমাণু কর্মসূচি বিশেষ করে ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করার কাজ ভালোভাবেই জোরদার করতে পারবে। একথা বলেছেন, ইরানের আণবিক শক্তি সংস্থার মুখপাত্র বেহরুজ কামালভান্দি। ইরানের এ কর্মকর্তা বুধবার জানান, ইরানের আণবিক শক্তি সংস্থার পক্ষ থেকে দেশের সর্বোচ্চ কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে যে, পরমাণু সমঝোতা সই হওয়ার আগের চেয়ে কয়েকগুণ গতিতে পরমাণু কর্মসূচি শুরু করা সম্ভব। কামালভান্দি আরো বলেন, যদি ইরানের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার মেয়াদ বাড়ানো না হয় তাহলে ইরানও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বার বার বলছেন, ইরানের সঙ্গে যে সমঝোতা সই হয়েছে তা আমেরিকার জন্য কল্যাণ বয়ে আনে নি। তিনি এ সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যেতে চান। আগামী শুক্রবারের মধ্যে ট্রাম্পকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে- তিনি এ সমঝোতা মেনে চলবেন কিনা। যদি তিনি সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যান তাহলে মার্কিন আইন অনুযায়ী, স্বয়ংক্রিয়ভাবে ইরান-বিরোধী নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল হবে।
ধারণা করা হচ্ছে- মার্কিন পদক্ষেপে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে মারাত্মক সংকট দেখা দেবে। পরমাণু ইস্যুতে পরামর্শ করার জন্য ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ একটি প্রতিনিধিদল নিয়ে রাশিয়া সফরে গেছেন। ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বাহরাম কাসেমি জানিয়েছেন, বুধবার সকালে জারিফ মস্কোর উদ্দেশ্যে তেহরান ছাড়েন। বাহরাম কাসেমি জানান, পরমাণু সমঝোতা ইস্যুতে জাওয়াদ জারিফ নিয়মিতভাবেই রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভের সঙ্গে পরামর্শ করে থাকেন এবং তারই অংশ হিসেবে জারিফ মস্কো গেছেন। ইরান ও ছয় জাতিগোষ্ঠীর মধ্যে সই হওয়া পরমাণু সমঝোতা যখন ঝুঁকির মুখে তখন তিনি এ সফরে গেলেন। আগামী শুক্রবারের মধ্যে আমেরিকা সিদ্ধান্ত ঘোষণা করবে- তারা এ সমঝোতা মেনে চলবে কিনা। যদি সমঝোতা বাাতিল করে তাহলে মারাত্মক সংকট দেখা দেবে বলে আশংকা করা হচ্ছে। এদিকে, জাওয়াদ জারিফ মস্কো থেকে বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেলসে যাবেন। সেখানে তিনি ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক প্রধান ফেডেরিকা মোগেরিনি এবং ফ্রান্স, ব্রিটেন ও জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে একই ইস্যুতে বৈঠক করবেন।

0 comments:

Post a Comment