Last update
Loading...

বছরজুড়ে আলোচনায় গুম, অপহরণ by রোকনুজ্জামান পিয়াস

নিখোঁজ, গুম, অপহরণ। সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে ছাত্র, শিক্ষক, রাজনীতিবিদ, ব্যবসায়ী ও সাংবাদিক কেউই বাদ যাননি গুম তালিকা থেকে। ভিকটিমরা নিখোঁজ- গুম নাকি অপহরণের শিকার এ নিয়েও চলেছে বিতর্ক। তালিকায় স্থান পাওয়া কেউ ফিরে এসেছেন নীরবে, কারও ফেরা নিয়েও তৈরি হয়েছে বিতর্ক। তবে না ফেরার তালিকাটাই দীর্ঘ। এদের বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা নিয়েও সন্তুষ্ট নন গুম বা অপহরণ হওয়া ব্যক্তিদের পরিবার।
বিদায়ী বছরে কোনো মাসে একজন আবার কোন মাসে একাধিক ব্যক্তি গুম, অপহরণের শিকার হয়েছেন। এদের কাউকে তুলে নেয়া হয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য পরিচয়ে, কেউ হঠাৎ করেই যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছেন স্বজনদের কাছ থেকে। এসব নিয়ে মানবাধিকার সংগঠন, রাজনীতির বিরোধীপক্ষ মাঝেমাঝে সরব হলেও আদতে তার তেমন প্রভাব পড়েনি। একটি ঘটনা ভুলতে বসার আগেই ঘটেছে আরেকটি ঘটনা। তবে বছরের শেষের দিকে এসে এসব অপহরণ বা গুমের ঘটনা বেশি ঘটেছে। বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার (বিএমবিএস) তথ্যমতে, ২০১৭ সালের নভেম্বর পর্যন্ত অপহরণের ঘটনা ঘটেছে ২০৯টি। এর মধ্যে ১৬৭ জন পুরুষ, ৩১ জন নারী এবং ১১ জন শিশু অপহরণের শিকার হয়েছে। সংস্থাটির মতে, এই সময়ে নিখোঁজ হয়েছে ১১৬ জন নারী-পুরুষ। মানবাধিকার সংগঠনগুলোর দেয়া তথ্যমতে, গত ১০ বছরে এ ধরনের ৫৪৪ জন বিশিষ্ট ব্যক্তি নিখোঁজ হয়েছেন যার মধ্যে ৩৯৫ জনকে আর খুঁজে পাওয়া যায়নি। আর চলতি বছরের অক্টোবর পর্যন্ত নিখোঁজ হয়েছেন ৫০ জন, যাদের ৩৮ জনের খোঁজ মেলেনি। তবে নিখোঁজ কিংবা অপহরণের শিকার কারও জন্যই কোনো ধরনের মুক্তিপণ চাওয়া হয়নি। এদিকে সরকারের বিরোধী পক্ষ বিএনপির অভিযোগ বর্তমান সরকারের আমলে তাদের ৭৪৭ জন নেতাকর্মী অপহৃত হয়েছেন। দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম খান আলমগীর দাবি করেছেন, এর মধ্যে সরাসরি ‘আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে খুন’ হয়েছেন ৫২০ জন, ১৫৭ জন এখনও নিখোঁজ রয়েছেন। বিপুল সংখ্যক এই গুম-অপহরণের মধ্যে কয়েকটি ঘটনা গণমাধ্যমে ফলাও করে প্রকাশ পেয়েছে। যাদের কেউ কেউ ফিরেও এসেছেন।
চলতি বছরের ৩রা জুলাই ভোর সাড়ে ৫টায় নিজ বাড়ি থেকে বের হয়ে নিখোঁজ হন লেখক, কবি, প্রাবন্ধিক, কলামিস্ট ফরহাদ মজহার। নিখোঁজের পর তাকে অপহরণের অভিযোগ করে তার পরিবার। তবে সেদিন সন্ধ্যায় ফরহাদ মজহারকে খুলনার হানিফ পরিবহনের একটি বাস থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। উদ্ধারের পর শুরু হয় নানা বিতর্ক। দীর্ঘ ১০ দিন তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। তদন্তের একপর্যায়ে পুলিশ জানায়, ফরহাদ মজহার স্বেচ্ছায় ঘর ছেড়েছিলেন। এক সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল (আইজিপি) একেএম শহীদুল হক এ ঘটনাকে ‘নাটক’, ‘মিথ্যাচার’, ‘সাজানো গল্প’ বলে উল্লেখ করেন। আইজিপি দাবি করেন ‘ফরহাদ মজহার স্বেচ্ছায় ঘর ছেড়েছেন, সরকারকে বিব্রত করার জন্য। আর ‘মিথ্যা নাটক’ সাজানোর দায়ে সমপ্রতি ফরহাদ মজহার দম্পতির বিরুদ্ধে প্রসিকিউশন মামলার অনুমতি দিয়েছেন ঢাকা মহানগর হাকিম আদালত। আদালতের সিদ্ধান্ত দেখে রহস্যজনক অপহরণ ঘটনার পাঁচ মাস পর অবশেষে ৯ই ডিসেম্বর মুখ খোলেন ফরহাদ মজহার। নিজ বাড়িতে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘আমি নাটক করিনি, আমাকে যা বলা হয়েছে, তাই করেছি।
২২শে আগস্ট মঙ্গলবার বিকাল ৩টায় বনানী ওভারপাসের নিচে একটি মাইক্রোবাসে থাকা বিএনপি নেতা ও ব্যবসায়ী সৈয়দ সাদাত আহমেদ ও তার ছেলের পথরোধ করে অন্য আরেকটি মাইক্রোবাস। এরপর সেই মাইক্রোবাস থেকে কয়েকজন নেমে সাদাতকে  জোর করে নামিয়ে তাদের গাড়িতে তুলে নেয়। মাইক্রোবাসের একজন এসে সাদাতের গাড়ির চালকের আসনে বসেন। দু’টি গাড়ি কুড়িল বিশ্বরোডের তিন শ’ ফুট রাস্তা দিয়ে পূর্বাচলে গিয়ে থামে। সাদাতের গাড়িতে ওই সময়ও তার ছেলে মেহেদি ও কেয়ারটেকার ছিলেন। পরে পূর্বাচলে সাদাতের গাড়ি থেকে ওই ব্যক্তি নেমে যান। সাদাত ১৫ মিনিট পর ফিরে আসবেন বলে তার ছেলেকে বলে গিয়েছিলেন। তবে তখন থেকে পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ায় ক্যান্টনমেন্ট থানায় একটি অপহরণ মামলা করেন তার স্ত্রী। মামলা করা হলেও গত চার মাসে কেউ ফোন করে মুক্তিপণ দাবি করেনি। খোঁজও মেলেনি। গত ২৩শে আগস্ট থেকে পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয় আইএফআইসি ব্যাংকের কর্পোরেট কমিউনিকেশন ও ব্রান্ডিং বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট ভাইস প্রেসিডেন্ট শামীম আহমেদের। তার পরিচিতজনরা বলেছেন, শামীম আইএফআইসি ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে থেকে ‘খানাবাসমতি’ নামের একটি রেস্টুরেন্টে খাওয়ার উদ্দেশে বের হন। এরপর তিনি আর ফিরে আসেননি। এ ঘটনার পরদিন পল্টন মডেল থানায় জিডি করেন তার স্ত্রী শিল্পী আহমেদ। তবে হঠাৎ করেই সাতদিন পর ৩০শে আগস্ট অক্ষত অবস্থায় বাড়ি ফেরেন শামীম। অন্যদের মতো তিনিও নিখোঁজের বিষয়ে সাংবাদিক কিংবা পুলিশকে কিছুই বলেননি।
গত ২৬শে আগস্ট সন্ধ্যায় বন্ধুদের সঙ্গে খেতে ধানমন্ডির স্টার কাবাবে গিয়েছিলেন কানাডার ম্যাকগিল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী ইশরাক আহমেদ (২০)। খাওয়া শেষে আর বাসায় ফেরেননি। এখনও নিখোঁজই রয়েছেন তিনি। বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় ছুটি কাটাতে ঢাকায় এসেছিলেন। এ ঘটনায় তার বাবা জামালউদ্দিন আহমেদ ধানমন্ডি থানায় একটি জিডি করেন। সিসিটিভির বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, স্টার কাবাব থেকে চার বন্ধু বের হয়ে যান। এরপর দুই বন্ধু একদিকে এবং ইশরাক ও আরেক বন্ধু আরেক দিকে চলে যান। এরপর ইশরাকের সঙ্গের বন্ধু তাকে রেখে অন্যদিকে চলে যান। তখন থেকে ইশরাক নিখোঁজ।
ব্যবসায়ী ও বেলারুশের অনারারি কনসাল অনিরুদ্ধ রায়কে গত ২৭শে আগস্ট বিকালে গুলশানের ইউনিয়ন ব্যাংকের সামনে থেকে একটি মাইক্রোবাসে তুলে নেয়া হয়। এ সময় তার ব্যক্তিগত গাড়িচালক সঙ্গে ছিলেন। চালক বিষয়টি তার পরিবারের সদস্যদের অবহিত করেন। পরে গুলশান থানায় একটি জিডি করেন তার ভাগ্নে কল্লোল হাজরা। তবে আকস্মিকভাবে কোনো পুলিশি সহায়তা ছাড়া অপহরণের ৭৯ দিনের মাথায় অজ্ঞাত স্থান থেকে বাড়ি ফেরেন তিনি। সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা না বললেও একটি খোলা চিঠি পাঠান গণমাধ্যমে। এতে তিনি উল্লেখ করেন, তার অনুপস্থিতিতে তার অফিস থেকে জরুরি নথিপত্র অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হয়েছে। এ ছাড়াও অপহরণ করার পর তার সব সম্পত্তি লিখে দেয়ার জন্য নানাভাবে চাপ দেয়া হয়। তবে তিনি কোথায় ছিলেন এবং কীভাবে ফিরেছেন এ বিষয়টি এখনো রহস্যই রয়ে গেছে।
২০১৭ সালের ২৭শে আগস্ট ২০ দলীয় জোটের শরিক দল বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির মহাসচিব এমএম আমিনুর রহমান নিখোঁজ হন। এদিন রাজধানীর নয়াপল্টন থেকে সাভারের আমিনবাজার পল্লীবিদ্যুৎ অফিসের পাশে তার নিজ বাড়ির উদ্দেশে রওনা হওয়ার পর বাড়ি ফেরেননি তিনি। এরপর থেকে তার কোনো খোঁজ পায়নি স্বজনরা। তার মোবাইল ফোনও বন্ধ ছিলো। এ ঘটনায় পল্টন থানায় সাধারণ ডায়েরি করে তার পরিবার। চার মাস নিখোঁজ থাকার পর অবশেষে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাকে গ্রেপ্তার দেখিয়েছে। মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের ভাষ্য অনুযায়ী, গত ২২শে ডিসেম্বর গুলশান থেকে তকে গ্রেপ্তার করা হয়। নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের ওপর হামলা চেষ্টার অভিযোগে গুলশান থানায় দায়ের হওয়া নাশকতার একটি পুরোনো মামলায় ঢাকা মহানগর আমিনুর রহমানকে গ্রেপ্তার দেখায়। তবে এতদিন কোথায়, কিভাবে ছিলেন তিনি তা রহস্যই থেকে গেছে।
গত ১০ই অক্টোবর মতিঝিল এলাকা থেকে হঠাৎ নেটওয়ার্কের বাইরে চলে গিয়েছিলেন পূর্ব-পশ্চিমবিডিডটকম এর সিনিয়র রিপোর্টার উৎপল দাস। নিখোঁজের দিন দুপুরে সর্বশেষ মায়ের সঙ্গে তার মোবাইল ফোনে কথা হয়। এরপর থেকেই মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় মতিঝিল থানায় একটি জিডি করেন উৎপলের বাবা চিত্তরঞ্জন দাস। গত ১৯শে ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে ভুলতা এলাকায় তাকে পাওয়া যায়। প্রথমে তিনি বলেছিলেন, ঘুরতে গিয়েছিলেন, পরে স্বীকার করেন তাকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। তার কাছ থেকেও স্পষ্ট কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।
গত ৭ই নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ক্লাস নিয়ে রাজধানীর আইডিবি ভবনে একটি মিটিংয়ে অংশগ্রহণের জন্য রওনা হয়েছিলেন নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মোবাশ্বার হাসান সিজার। কিন্তু মিটিংয়ে আর উপস্থিত হতে পারেননি। সেই থেকে নিখোঁজ ছিলেন তিনি। কিন্তু গত ২১শে ডিসেম্বর রাত ১টার দিকে রাজধানীর দক্ষিণ বনশ্রীর জে-ব্লকের ১২/৩ সড়কের বাসা ২৫নং নিজের বাসায় ফিরে আসেন এই শিক্ষক। তার বক্তব্যও রহস্যাবৃত।
এ মাসের ৪ঠা ডিসেম্বর সন্ধ্যার দিকে কাতার ও ভিয়েতনামে নিযুক্ত সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ জামান তার বেলজিয়াম ফেরত মেয়েকে আনতে এয়ারপোর্র্টের উদ্দেশ্যে বের হন। তিনি নিজেই গাড়ি চালিয়ে যাচ্ছিলেন। কিছুক্ষণ পর মারুফ জামান বাসার ল্যান্ডফোনে জানান, তিনজন লোক তার ল্যাপটপ নিতে আসবে। কথামতো তারা বাসায় এসে নিয়ে যায়। কিন্তু তার খোঁজ আর পাওয়া যায়নি। পুলিশ জানায়, তার কাছে থাকা মোবাইল ফোন বন্ধ হয়ে যাওয়ার আগে সর্বশেষ লোকেশন ছিলো বিমানবন্দরে কাছেই কাওলা নামক স্থানে। পরদিন রাজধানীর ৩০০ ফিট এলাকা থেকে তার গাড়িটি পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ। বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক মোস্তফা সোহেল বলেন, গুম-অপহরণের ফলে জনমনে এক ধরনের আতঙ্ক তৈরি হয়। বেশির ভাগ ঘটনায় অভিযোগের তীর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দিকে যায়। অনেক সময় দুই প্রতিদ্বন্দ্বী ব্যক্তির বিরোধের জের ধরেও এমন ঘটনা ঘটে। এতে সরকারও বিপাকে পড়ে। উভয় ক্ষেত্রেই সরকারকে সচেতনভাবে দায়িত্ব নেয়া উচিত।

0 comments:

Post a Comment