Last update
Loading...

সৌদি প্রিন্স তালালের মুক্তিপণ ৬০০ কোটি ডলার!

সৌদি প্রিন্স আল-ওয়ালিদ বিন তালালের মুক্তির বিনিময় ৬০০ কোটি ডলার দাবি করেছে সৌদি কর্তৃপক্ষ। বর্তমানে দেশটির কারাগারে বন্দি রয়েছেন বিশ্বের শীর্ষ ধনীদের অন্যতম ওয়ালিদ। সম্প্রতি সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান যে দুর্নীতিবিরোধী অভিযান শুরু করেন, এতে ওয়ালিদসহ বেশ কয়েকজন প্রিন্স, মন্ত্রী, সাবেক মন্ত্রী ও অন্যান্য শীর্ষ কর্মকর্তাকে আটক করা হয়। ওয়ালিদের মুক্তির জন্য সৌদি কর্তৃপক্ষ ৬০০ কোটি ডলার দাবি করেছে এবং তা নিয়ে দেনদরবার চলছে। বিষয়টি সম্পর্কে অবহিত এমন সূত্রের বরাত দিয়ে মার্কিন গণমাধ্যম ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল এ খবর দিয়েছে। হাফিংটন পোস্ট জানায়, যাদের আটক করা হয়েছে তাদের মধ্যে ওয়ালিদের কাছ থেকেই সবচেয়ে বেশি অর্থ দাবি করা হচ্ছে।  তবে বিলাসবহুল রিজ কার্লটন হোটেলে দুই মাস ধরে বন্দি আল ওয়ালিদ অর্থের বিনিময়ে মুক্তি নিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন বলে জানা গেছে। বিপরীতে রিয়াদের শেয়ার মার্কেটের তালিকায় থাকা কিংডোম হোল্ডিংসের একটি গুরুত্বপূর্ণ শেয়ার কর্তৃপক্ষকে দেয়ার প্রস্তাব করেছেন। আল ওয়ালিদ বিশ্বের ৫৭তম শীর্ষ ধনী। মার্কিন অপর গণমাধ্যম ব্লমবার্গ যে কোটিপতির তালিকা করেছে, সেই তালিকা অনুযায়ী ওয়ালিদের সম্পদের পরিমাণ ১ হাজার ৮০০ কোটি ডলার।
সিটিগ্রুপ, অ্যাপল ও টুইটারসহ আন্তর্জাতিক অনেক প্রতিষ্ঠানে তার বিনিয়োগ রয়েছে।  তবে তার আটকের পর গত দুই মাসে কিংডোম হোল্ডিংসের ৮০৭ কোটি ডলারের বাজার মূল্যের ১৪ শতাংশ কমে গেছে। গত মাসের শুরুতে যখন দেশটিতে দুর্নীতিবিরোধী অভিযান শুরু হয় তখন ৬২ বছর বয়সী আল ওয়ালিদ আটক হন। এ সময় রাজপরিবারের অনেক সদস্য, মন্ত্রী ও শীর্ষ ব্যবসায়ীদের আটক করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির নানা অভিযোগ রয়েছে বলে দাবি করে কর্তৃপক্ষ। সৌদি সরকার বলেছে,  আটককৃতদের কাছ থেকে ১০ হাজার কোটি ডলার উদ্ধারের আশা করছেন তারা। কিন্তু বিশ্লেষকদের দাবি, বর্তমান যুবরাজ নিজের ক্ষমতা পাকাপোক্ত করতে ও সম্পদের মজুদ বাড়াতেই দুর্নীতির নামে তার সম্ভাব্য সব প্রতিদ্বন্দ্বীকে আটক করেছেন।   সৌদি অ্যাটর্নি জেনারেল আল মুজিব সম্প্রতি জানিয়েছেন, আটককৃতদের অনেকেই মুক্তিপণ দিয়ে মুক্তি পেতে রাজি হয়েছেন। এর আগে সাবেক সৌদি বাদশাহ আবদুল্লাহর পুত্র মিতেব বিন আবদুল্লাহ ১০০ কোটি ডলারের বিনিময়ে মুক্তি পেয়েছেন।

0 comments:

Post a Comment