Last update
Loading...

সাধারণ পরিষদে বিপুল গরিষ্ঠতায় প্রস্তাব পাস


বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের দেশে ফিরিয়ে নিয়ে তাদের পূর্ণ নাগরিক অধিকার দেয়ার আহ্বান জানিয়ে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতায় একটি প্রস্তাব পাস করেছে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ। প্রস্তাবে রাখাইনে রোহিঙ্গা নিধন বন্ধ এবং সেখানে ত্রাণকর্মীদের প্রবেশাধিকার দেয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। খবর দ্য গার্ডিয়ানের। ইসলামী সম্মেলন সংস্থা (ওআইসি) উত্থাপিত প্রস্তাবটির পক্ষে রোববার ভোট পড়ে ১২২টি আর বিপক্ষে ১০টি। ২৪টি দেশ ভোটদানে বিরত ছিল। এর আগে গত ১৬ নভেম্বর সাধারণ পরিষদের মানবাধিকার বিষয়ক থার্ড কমিটিতে একই আহ্বান জানিয়ে একটি প্রস্তাবও বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতায় পাস হয়। তবে সাধারণ পরিষদে পাস হওয়া কোনো প্রস্তাব মেনে চলার কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। ওআইসির এবারের প্রস্তাবের বিপক্ষে ভোট দিয়েছে চীন, রাশিয়া, ফিলিপাইন, ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া, লাওস, বেলারুশ, জিম্বাবুয়ে এবং মুসলিম প্রধান সিরিয়া। প্রস্তাবে মিয়ানমারে জাতিসংঘ মহাসচিবকে একজন বিশেষ দূত নিয়োগের আহ্বান জানানো হয়। রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে সাধারণ পরিষদে দেড় মাসের কম সময়ের মধ্যে দু'বার প্রস্তাব হলেও জাতিসংঘের সর্বময় ক্ষমতাধর সংস্থা নিরাপত্তা পরিষদে এখন পর্যন্ত মিয়ানমারের বিরুদ্ধে কোনো প্রস্তাব পাস হয়নি। এর কারণ চীন ও রাশিয়ার বিরোধিতা।
এ সংস্থায় চীন ও রাশিয়ার ভেটো ক্ষমতা রয়েছে। নিরাপত্তা পরিষদ মিয়ানমারের জাতিগত নিধন বন্ধে কার্যকর কোনো পদক্ষেপ না নেয়ায় মানবাধিকার সংগঠনগুলোর সমালোচনার মুখে পড়েছে। গত ২৫ আগস্ট রাখাইনের কয়েকটি নিরাপত্তা চেৌকিতে হামলার অভিযোগ তুলে রোহিঙ্গাদের ওপর জাতিগত নিধন শুরু করে মিয়ানমার। এরপর চার মাসে হত্যা-ধর্ষণসহ বিভিন্ন ধারার সহিংসতা ও নিপীড়ন থেকে বাঁচতে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয় সাড়ে ছয় লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা। বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন এ ঘটনায় খুঁজে পেয়েছে মানবতাবিরোধী অপরাধের আলামত। জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশন এ ঘটনাকে জাতিগত নিধনযজ্ঞের 'পাঠ্যপুস্তকীয় উদাহরণ' আখ্যা দিয়েছে। রাখাইন সহিংসতাকে জাতিগত নিধন আখ্যা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশ। মিয়ানমারে জাতিসংঘের বিশেষ দূতের নতুন নিয়োগের জন্য তহবিল প্রদানের ব্যাপারে বাজেট কমিটির কাছ থেকে সবুজ সংকেত পাওয়ার পরই সাধারণ পরিষদ প্রস্তাবটি অনুমোদন করেছে। এদিকে মিয়ানমার সরকারের আপত্তিতে দেশটিতে জাতিসংঘের বিশেষ দূত ইয়াংঘি লির আসন্ন সফর অনিশ্চিত হয়ে আছে। রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা নিপীড়নসহ মিয়ানমারজুড়ে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগগুলো তদন্ত করতে জানুয়ারিতে দেশটি সফর করার কথা ছিল তার। কিন্তু ২০ ডিসেম্বর মিয়ানমার সরকারের পক্ষ থেকে জানিয়ে দেয়া হয়, জাতিসংঘের এ তদন্তকারীকে আর কোনো সহযোগিতা দেয়া হবে না। সম্প্রতি এক বিবৃতিতে লি জানিয়েছেন, মিয়ানমার সরকার তাকে সফরের অনুমতি দেয়নি। তার সন্দেহ, রাখাইনে এমন ভয়াবহ কিছু ঘটছে যা আড়াল করতে তাকে সফরে বাধা দেয়া হয়েছে।

0 comments:

Post a Comment