Last update
Loading...

একই ইঞ্জিন : দামে ফারাক সাড়ে ৩ কোটি টাকা


মাত্র কয়েক মাসের ব্যবধানে তিন কোটি ৬৪ লাখ টাকা দর পার্থক্যে কোরিয়া থেকে আমদানি করা হচ্ছে রেলের লোকোমোটিভ বা ইঞ্জিন। জাইকার অর্থায়নে ২৮ কোটি ৩৫ লাখ টাকা দরে লোকোমোটিভ কেনা হয়। আর বর্তমানে ৩২ কোটি টাকা দরে কেনার জন্য চুক্তি করা হয়েছে। কোরিয়ার ঋণে শর্ত হলো সব কিছুই তাদের দেশ থেকে কিনতে হবে। কিছু দিনের ব্যবধানে বাড়তি দরে কোরিয়া থেকে লোকোমোটিভ কেনা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে খোদ পরিকল্পনা কমিশনের সংশ্লিষ্টরা। তারা এও বলছেন, এসব কেনার জন্য আটজন পরামর্শককে মাথাপ্রতি দিতে হবে এক কোটি ৫৮ লাখ ৫০ হাজার টাকা করে। সংশ্লিষ্ট বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, প্রায় দুই দশক ধরে লোকোমোটিভ, কোচ, ওয়াগন ক্রয়ের প্রকল্প নিয়েও বাংলাদেশ রেলওয়ের যাত্রীবাহী কোচ ও গাড়ির সঙ্কটের সমাধান হয়নি। মেরামতকৃত কোচের সংখ্যা বৃদ্ধি পেলেও নতুন কোচ কেনার প্রকল্পও থেমে নেই। চলমান দশ প্রকল্পের মাধ্যমে মোট এক হাজার ১৬০টি লোকোমোটিভ, কোচ এবং ওয়াগন কেনার কথা। যার জন্য মোট অর্থ বরাদ্দ রয়েছে ছয় হাজার ৩০০ কোটি টাকা। প্রকল্পগুলো ২০০৭ সালে এবং ২০১০ সালে শুরু হয়েছে। কিন্তু আজো ক্রয় প্রকল্পগুলো শেষ হচ্ছে না। ২০০৯ সাল থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত গত ছয় বছরে ৪৬টি লোকোমোটিভ, ৫১৬টি ওয়াগন সংগ্রহ করা হয়েছে। আর যাত্রীবাহী কোচ মেরামত করা হয়েছে ২৬০টি বলে রেলওয়ের ওয়েবের তথ্যে বলা হয়েছে। রেলপথ মন্ত্রণালয়ের প্রস্তাবনা অনুযায়ী, দক্ষিণ কোরিয়ার ঋণে কোরিয়া থেকে ২০টি মিটারগেজ ডিজেল ইলেকট্রিক লোকোমোটিভ এবং ১৫০টি মিটারগেজ যাত্রীবাহী ক্যারেজ কেনা হবে। আর এর জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে এক হাজার ৭৯৯ কোটি ১০ লাখ ৫৩ হাজার টাকা। যার মধ্যে কোরিয়ার ঋণ সহায়তা হলো এক হাজার ৪১৪ কোটি ৬৭ লাখ ৮৮ হাজার টাকা। বাকিটা বাংলাদেশ সরকারকে দিতে হবে। পুরনো ও মেয়াদহীন মিটারগেজ ডিজেল ইলেকট্রিক লোকোমোটিভ এবং যাত্রীবাহী ক্যারেজগুলো প্রতিস্থাপনের জন্য এই প্রকল্প। পিইসিতে পর্যালোচনায় দেখা যায়, ২০টি এমজি ডিজেল ইলেকট্রিক লোকোমোটিভ সংগ্রহের জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ৬৪০ কোটি টাকা। এখানে প্রতিটির দর দাঁড়াচ্ছে ৩২ কোটি টাকা।
কোরিয়ার সাথে গত ২০১৬ সালে করা ঋণ চুক্তির শর্তানুযায়ী লোকোমোটিভ ও কোচগুলো অবশ্যই কোরিয়া উৎপাদিত কোম্পানি থেকে সংগ্রহ করতে হবে। অন্য কোনো দেশ থেকে তা কেনা যাবে না। কোরিয়া থেকে বেশ কয়েক দফায় মিটারগেজ লোকোমোটিভ সংগ্রহ করা হয়েছে। জাইকার অর্থায়নে কেনা এসব লোকোমোটিভের দর ২৮ কোটি ৩৫ লাখ টাকা। আর এখনকার প্রকল্পের জন্য ৩২ কোটি টাকা একক দরকে যৌক্তিক বলে দাবি করছে রেলপথ মন্ত্রণালয়। অন্য দিকে ১৫০টি যাত্রীবাহী কোচ কেনা হবে। যার জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ৬৯৭ কোটি ৬০ লাখ টাকা। ফলে এখানে প্রতিটি কোচের দাম পড়ছে পাঁচ কোটি ৬৫ লাখ টাকা। যেখানে চীন থেকে কেনা প্রতিটি কোচের দাম পড়েছিল তিন কোটি ২৯ লাখ টাকা। এসব কোচ ও ইঞ্জিন কেনার জন্য আটজন পরামর্শক নেবেন ১২ কোটি ৬৮ লাখ টাকা। প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, বর্তমানে রেলওয়েতে ১৮৬টি মিটারগেজ এবং ৯৬টি ব্রডগেজসহ মোট ২৮২টি লোকোমোটিভ রয়েছে। এদের অর্থনৈতিক মেয়াদ বা বয়স ২০ বছর হয়। যার মধ্যে ১৬৮টি লোকোমোটিভের বয়স বর্তমানে ৩০ বছর অতিক্রম করেছে। এখন এসব পুরনো দিয়েই রেলের কাজ চালানো হচ্ছে। এক হাজার ১৬৫টি যাত্রীবাহী মিটারগেজ ক্যারেজ রয়েছে। এসবের মেয়াদ হয় ৩৫ বছর। কিন্তু বর্তমানে ৪৫৬টি কোচের মেয়াদ ৩৫ বছর পার হয়ে গেছে। ১৩৫টির মেয়াদ ৩১ থেকে ৩৪ বছর। কোট স্বল্পতার কারণে এসব দিয়েই কাজ চালানো হচ্ছে। পরিকল্পনা কমিশন বলছে, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) দু’টি প্রকল্পের মাধ্যমে সংগ্রহাধীন তিন শ’টি এমজি যাত্রীবাহী কোচের কার্যাদেশ প্রাপ্ত দর এবং জাইকার অর্থায়নে সংগৃহীত ১১টি এমজি লোকোমোটিভ, ইডিসিএফের অর্থায়নে সংগৃহীত ৯টি এমজি লোকোমোটিভ কার্যাদেশকৃত স্পেসিফিকেশন এবং একক গড় মূল্যের সাথে পর্যালোচনা করতে হবে। সেই পরিপ্রেক্ষিতে চলমান প্রকল্পের যাত্রীবাহী কোচ ও লোকোমোটিভের মূল্য নির্ধারণ করতে হবে।

0 comments:

Post a Comment