Last update
Loading...

ট্রাম্প-পুতিন বৈঠকে বিতণ্ডা পরস্পরবিরোধী বক্তব্য

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়া হস্তক্ষেপ করেনি। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের এমন দাবি মেনে নিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। জার্মানির হামবুর্গে দু’নেতার বৈঠকের উদ্ধৃতি দিয়ে এমন দাবি করেছেন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ। এ বক্তব্য দেয়ার পর হোয়াইট হাউস ইঙ্গিত দিয়েছে যে, প্রেসিডেন্ট পুতিনের  কাছ থেকে এমন কোনো নিশ্চয়তা পান নি ট্রাম্প। ফলে কে সত্য বলছেন তা নিয়ে এক ধূম্রজালের সৃষ্টি হয়েছে। এ খবর দিয়ে লন্ডনের অনলাইন দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট লিখেছে,  এ সময়ের বিশ্ব রাজনীতিতে সবচেয়ে আলোচিত দু’নেতা ট্রাম্প ও পুতিনের মধ্যকার বৈঠক স্থায়ী হয় দুই ঘণ্টা ১৬ মিনিট। বৈঠক শেষে কক্ষ থেকে যখন দু’নেতা বেরিয়ে আসেন তখন এক পর্যায়ে ওই কক্ষে দ্রুততার সঙ্গে প্রবেশ করেন ফার্স্টলেডি মেলানিয়া ট্রাম্প। পরে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন বলেছেন, দু’নেতার আলোচনার শুরুতেই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে রাশিয়ার সাইবার হামলার প্রসঙ্গ তুলে ধরেন। যুক্তরাষ্ট্র তার পক্ষ থেকে বলে যে, এমন হামলা গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার ওপর হুমকি। রেক্স টিলারসন বলেন, ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপে মার্কিন জনগণের উদ্বেগের বিষয়টি তুলে ধরে আলোচনা শুরু করেন ট্রাম্প। তাদের মধ্যে এ নিয়ে সবিস্তারে আলোচনা হয়েছে। তবে সাংবাদিকদের সামনে ব্রিফিংয়ে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ল্যাভরভ বলেছেন, রাশিয়া যে যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করে নি প্রেসিডেন্ট পুতিনের এমন নিশ্চয়তা মেনে নিয়েছেন ট্রাম্প। তিনি বলেছেন, ওই নির্বাচনে সাইবার নিরাপত্তা নিয়ে ভীষণভাবে মনোযোগ আকৃষ্ট হয়েছে, যা বোধগম্য। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প রাশিয়াকে বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রে কোনো কোনো মহল বিষয়টিকে উস্কে দেয়ার চেষ্টা করছে, যদিও তাদের কাছে কোনো প্রমাণ নেই। এ নিয়ে ল্যাভরভ ও টিলারসন পরে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলবেন বলেও জানান। উল্লেখ্য, ওই আলোচনা শেষে ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। তিনি ছুটে যান হামবুর্গের এলফিলহারমোনিতে কনসার্টে। এই ভেন্যু জি-২০ নেতাদের আনুষ্ঠানিক  নৈশভোজের জন্য নির্ধারিত। এ সময় ট্রাম্পের সঙ্গে ছিলেন ফার্স্টলেডি মেলানিয়া ট্রাম্প।

0 comments:

Post a Comment