Last update
Loading...

গুয়ান্তানামোর এক বন্দিকে কোটি ডলার ক্ষতিপূরণ

কুখ্যাত গুয়ান্তানামো বে’ কারাগারের সাবেক এক বন্দিকে ১ কোটি ডলার ক্ষতিপূরণ দিতে যাচ্ছে কানাডা সরকার। তার কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমাও চাওয়া হবে। আফগানিস্তানে এক আমেরিকান সেনাকে হত্যার অভিযোগে তাকে বন্দি করা হয়েছিল। তখন তার বয়স ছিল মাত্র ১৫ বছর। কানাডার সুপ্রিমকোর্ট পরবর্তী সময় মন্তব্য করেন, ওই ব্যক্তিকে কর্মকর্তারা ‘অত্যাচারমূলক পরিস্থিতিতে’ জিজ্ঞাসাবাদ করে। খবর দ্য গার্ডিয়ানের। মঙ্গলবার এই মামলা সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, ওমর খাদর নামের ওই বন্দি কানাডা সরকারের কাছ থেকে ১ কোটি ৫ লাখ ডলার ক্ষতিপূরণ পাবেন। জনসমক্ষে এ বিষয়ে বিস্তারিত বলার অনুমতি নেই সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের। এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসার আগে তা নিয়ে তথ্য প্রকাশ করার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। গত মাসে কানাডা সরকার ও ওমরের আইনজীবীরা মধ্যস্থতা করে।
২০০৩ সালে কানাডা বংশোদ্ভূত ওমরকে ১৫ বছর বয়সে আফগানিস্তানে আল কায়দার এক এলাকা থেকে মার্কিন সেনারা আটক করে। আমেরিকান স্পেশাল ফোর্সেস মেডিক সার্জেন্ট ক্রিস্টোফার স্পিরের মৃত্যুর দায় চাপানো হয় তার ওপর। অভিযোগে বলা হয়, ওমরের ছোড়া গ্রেনেডে ক্রিস্টোফার নিহত হন। পরে ওমরকে গুয়ান্তানামোতে নিয়ে এক মিলিটারি কমিশনে তার বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ তোলা হয়। ২০১০ সালে খুনের দায় পড়ে তার ঘাড়ে এবং ৮ বছরের সাজা দেয়া হয়। এরই মধ্যে তিনি সাজা কাটিয়েছেন। দুই বছরের সাজা বাকি থাকতে ২০১৩ সালে তাকে কানাডায় আনা হয়। ২০১৫ সালের মে মাসে তাকে মুক্তি দেয়া হয় এবং সাজার বিরুদ্ধে তিনি আপিল করেন। গুয়ান্তানামো কারাগারে সব মিলিয়ে ১০ বছর ছিলেন ওমর। তার মামলাটি আন্তর্জাতিক মহলের দৃষ্টি কাড়ে। যদিও অনেকের চোখে তিনি আফগানিস্তানে যুদ্ধচলাকালীন এক শিশু সেনা বিবেচিত হয়েছেন। ২০১০ সালে কানাডিয়ান আদালতের এক রুলের ভিত্তিতে দেশটির ইন্টেলিজেন্স বিভাগ ওমরের বিষয়ে প্রমাণপত্র সংগ্রহ করেন। তারা জানান, ২০০৩ সাল থেকে ওমরকে অত্যাচারপূর্ণ পরিস্থিতিতে রাখা হয় এবং জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

0 comments:

Post a Comment