Last update
Loading...

চুমুতে মেসি-রোকুজ্জোর বন্ধন

পরিচয় ৫ বছর বয়স থেকে। বেড়ে ওঠা আর্জেন্টিনার উপকুলীয় শহর রোজারিওতে। সেখানেই লিওনেল মেসি ও আন্তোনেলা রোকুজ্জোর প্রেম। ১৩ বছর বয়স পর্যন্ত আর্জেন্টিনায় ছিলেন দু’জন। কিন্তু এরপর দু’জনের মধ্যে ছেদ। মাত্র ১৩ বছর বয়সে স্পেনের ক্লাব বার্সেলোনায় একাডেমিতে ভর্তি হন মেসি। এরপর তো ইতিহাস। একাডেমি পেরিয়ে সিনিয়র দলে। বার্সেলোনায় তারকাখ্যাতি অর্জন করেন মেসি। কিন্তু বাল্যকালের বান্ধবী রোকুজ্জোকে ভোলেননি মেসি। ফের শুরু হয় চুটিয়ে প্রেম। একজন স্পেনে আর অন্যজন আর্জেন্টিনায়। এত দূরে থেকে প্রেম উপভোগ করছিলেন না তারা। এক সময় রোকুজ্জোকে স্পেনে নিয়ে যান মেসি। একই ছাদের নিচে থাকা শুরু করেন। ছিলেন বান্ধবী হিসেবে। এই অবস্থায় মেসি-রোকুজ্জো জুটি দুই সন্তানের বাবা-মা হয়ে গেছেন। কিন্তু বিয়ের কাজটি সারতে দেরি হচ্ছিল তাদের। তবে অবশেষে বন্ধনটি সেরে ফেললেন তারা। শুক্রবার রোজারিও’র এক বিলাবহুল হোটেল জমকালো আয়োজনের মাধ্যমে সম্পন্ন হলো মেসি-রোকুজ্জোর বিয়ে। এটাকে বলা হচ্ছে ‘শতকের সেরা বিয়ের অনুষ্ঠান’। মেসির বিয়ে অনুষ্ঠানে ছিলেন বিশ্বের নামিদামী সব খেলোয়াড়। ২৬০ অতিথির মধ্যে বার্সেলোনার সাবেক ও বর্তমান খেলোয়াড়দের উপস্থিতি ছিল সবচেয়ে বেশি। বার্সেলোনার চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদের খেলেছেন- দাওয়াতের তালিকায় এমন খেলোয়াড় ছিলেন মাত্র একজন। তিনি অ্যাঙ্গেল ডি মারিয়া। একসময় রিয়ালের খেললেও এখন খেলেন ফরাসি ক্লাব প্যারিস সেইন্ট জার্মেইতে (পিএসজি)। মেসির স্বদেশি খেলোয়াড় বলেই দাওয়াত পেয়েছেন তিনি। অনুষ্ঠানের আগে শোনা যাচ্ছিল, ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে বিয়ের অনুষ্ঠানে দাওয়াত দেবেন মেসি। কিন্তু সেটা বাস্তবে হয়নি। বিয়ের অনুষ্ঠানে উপস্থিত অতিথিরা রেড কার্পেট পেরিয়ে মূল মঞ্চে প্রবেশ করেন। বার্সেলোনার সাবেক খেলোয়াড় স্যামুয়েল ইতো প্রথম ব্যক্তি হিসেবে রেড কার্পেটে পা রাখেন। অনুষ্ঠান যাদের কেন্দ্র করে সেই মেসি ও রোকুজ্জো অনুষ্ঠানে আসেন ব্যক্তিগত জেটে। মেসির পরনে ছিল কালো রঙয়ের ব্লেজার। আর রোকুজ্জো পরেন মার্মেড স্টাইলের সাদা রঙয়ের গাউন। তাদের পোশাকের ডিজাইন করেন বিখ্যাত ডিজাইনার রোজা ক্লারা। বর-কনের বাবা-মা ও ভাই-বোনদের পোশাকের ডিজাইনও তিনি করেন। পুরো হোটেল ঘিরে ছিল ৪০০ নিরাপত্তারক্ষাকারী পুলিশ। অনুষ্ঠানে সবচেয়ে দৃষ্টি কাড়ে মেসি-রোকুজ্জোর চুমু। উপস্থিত আড়াই শ’ অতিথির সামনে মঞ্চে রোকুজ্জোর ঠোঁটে ঠোঁট রাখেন মেসি। তখন তাদের সামনে উপস্থির তাদের দুই সন্তান থিয়াগো ও মাতেও। নিজ বাবা-মায়ের বিয়ের সাক্ষী হয়ে থাকেন তারা। অনুষ্ঠানে বাহারি পদের খাবার শেষে প্রত্যেকের জন্য ছিল বিশেষ উপহার।

0 comments:

Post a Comment