Last update
Loading...

দেশে আইন অমান্যতার ঢেউ

যে কোনো সমাজেই সমাজকে সচল রাখার জন্য কিছু আইন-কানুন থাকে। যারা কোনো নির্দিষ্ট সমাজের পরিবর্তন চান তারাও এসব সাধারণ নিয়ম মেনে চলেন। সেটা না হলে সমাজে বিশৃঙ্খলা দেখা দেয় এবং তা নৈরাজ্যের শর্ত তৈরি করে। বাংলাদেশের বাস্তব অবস্থার দিকে তাকালে এদিক দিয়ে বড় বিপদ ছাড়া আর কিছুই দেখা যায় না। কারণ আইন অমান্যতা বাংলাদেশে শুধু যে সাধারণ অর্থে ক্রিমিনালরাই করছে তা নয়, সরকারি লোকজন এবং সরকারি বিভিন্ন সংস্থাও নানাভাবে আইন অমান্য করে পরিস্থিতি প্রতিদিন খারাপ থেকে আরও খারাপ করছে। প্রতিক্রিয়াশীল সরকারের এমন অনেক নিয়ম-কানুন আছে, নীতি আছে যা পরিবর্তন করা দরকার। কারণ সেগুলো গণবিরোধী। কিন্তু এমন অনেক আইন ও নিয়ম আছে যা সবারই মান্য করা দরকার সাধারণ-স্বাভাবিক জীবন সচল রাখার জন্য, পরিবেশ রক্ষার জন্য, লোকজনের মধ্যে দায়িত্বহীনতা নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য। এই দ্বিতীয় ধরনের আইন অমান্যতা এখন বাংলাদেশে বৃদ্ধি পেতে পেতে এমন অবস্থায় এসে দাঁড়িয়েছে যে, মানুষের জীবনে নানা নতুন নতুন সংকট তো তৈরি হচ্ছেই, উপরন্তু সমগ্র সমাজই বেশি করে নৈরাজ্যের দ্বারা বিপর্যস্ত হচ্ছে। বাংলাদেশে এখন এমন কোনো ক্ষেত্র নেই যেখানে সমাজের সাধারণ ও স্বাভাবিক নিয়ম-কানুনের মান্যতা আছে, অর্থাৎ এখন সব ক্ষেত্রেই অমান্যতা পরিণত হয়েছে এক স্বাভাবিক ব্যাপারে।
অর্থনীতি, রাজনীতি, মানুষের পারস্পরিক সম্পর্ক, ব্যবসা-বাণিজ্য, পরিবেশ থেকে নিয়ে প্রতিটি ক্ষেত্রেই আজ আইন অমান্যতার এমন দাপট দেখা যাচ্ছে যে, সাধারণভাবে সমাজে কারও কোনো নিরাপত্তা নেই। এই পরিস্থিতিতে মানুষের পারিবারিক জীবনেও নানা ধরনের বিশৃঙ্খলা এমনভাবে এবং এত বেশি দেখা যাচ্ছে, যা আগে কল্পনাও করা যেত না। সব জাতীয় দৈনিকেই প্রায় প্রতিদিন সচিত্র রিপোর্টে দেখা যায় আইন অমান্যতার টুকরো সংবাদ। কিছু কিছু বিষয়ে সংবাদ এভাবে প্রকাশিত হলেও সেগুলো হল এ ধরনের অরাধের সামান্য অংশ। কাজেই সংবাদপত্রে যা পাওয়া যায় সেটা ভয়ের ব্যাপার হলেও আসল পরিস্থিতি এদিক দিয়ে অনেক বেশি ভয়াবহ। শহরে চলাচল করতে হলে রাস্তার কিছু নিয়ম-কানুন মেনে চলতে হয়। কিন্তু দেখা যায় সরকারি লোকজন ও কর্তাব্যক্তির, এমনকি পুলিশের গাড়িও উল্টো দিকে চলাচল করছে। আজ এক সচিত্র রিপোর্টে দেখা গেল, মাঠের ধারে কোনো এক রাস্তায় আওয়ামী লীগের এক লোকের ইটের ভাটার ইটসহ অন্যান্য জিনিস স্তূপীকৃত করে রাখা! রাস্তার ধারে গাছ কাটার ব্যাপার তো চলছেই। রাস্তার ধারের গাছকে সরকারি লোকেরা মনে করে তাদের সম্পত্তি। কাজেই গাছ কেটে তারা শেষ করছে। সরকারি বন বিভাগের লোকদের চোখের সামনে ও তাদের সহায়তায় পার্বত্য চট্টগ্রাম, মধুপুর ও সুন্দরবনের গাছ উজাড় হচ্ছে। এই অপরাধের মাধ্যমে চোরাই কাঠ ব্যবসায়ীরা জমজমাট ব্যবসা করছে! বাংলাদেশে এখন এমন কোনো নদী নাই যা ভরাট করে দখল করা হচ্ছে না এবং এগুলো করছে সরকারের লোকজন, তাদের সঙ্গে সম্পর্কিত লোকেরা। কাজেই তাদের বাধা দেয়ার কেউ নেই।
ঢাকার চারপাশের নদীগুলো দখল ও শিল্প-কারখানার মালিকদের দ্বারা দূষিত হতে হতে এখন প্রায় মৃত অবস্থায়। এর ফলে ঢাকায় এখন পানির সংকট ব্যাপক ও তীব্র হয়েছে। তিস্তা এবং অন্য অনেক নদীর পানির ন্যায্য অংশ ভারত দিচ্ছে না এবং তা নিয়ে অনেক কথাবার্তা হচ্ছে। কিন্তু বাংলাদেশ যে নিজের দেশের নদীগুলোকে ধ্বংস করে দিচ্ছে এ নিয়ে সরকারি মহলে কোনো উদ্বেগ নেই! কারণ তাদের লোকরাই এই অপরাধ করছে!! যে বিশৃঙ্খলা, আইন অমান্যতা এবং অপরাধ এসব ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে তার সঙ্গে তাল রেখে অন্য প্রতিটি ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে একই অবস্থা। চুরি আইন অমান্যতার একটা বড় দৃষ্টান্ত। এই আইন অমান্যতা এখন বাংলাদেশে সরকার, সরকারি প্রশাসন, আর্থিক সংস্থা, উন্নয়ন কর্মকাণ্ড ইত্যাদি সর্বক্ষেত্রে লাগামহীনভাবে দেখা যাচ্ছে। সরকারি ব্যাংকগুলোতে এখন ডাকাতি পরিণত হয়েছে নিয়মিত ব্যাপারে। সরকারি লোকেরাই এর সঙ্গে জড়িত। এজন্য এই ব্যাংক ডাকাতদের বিরুদ্ধে কোনো শাস্তির ব্যবস্থা নেই। তারা চুরির টাকা নিরাপদে সরিয়ে নিচ্ছে। শুধু তাই নয়, এই টাকা চুরি সরকারি ব্যাংকগুলোতে যে পুঁজি সংকট তৈরি করেছে, তা মোকাবেলার জন্য সরকার তার বাজেটে সাধারণ আমানতকারীদের ক্ষুদ্র আমানতের ওপর কর ধার্য করে সেটা সরকারি ব্যাংকে চালান দেয়ার ব্যবস্থা করছে! অন্য দেশ হলে এ ধরনের কারবার যারা করে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তির ব্যবস্থা থাকত অথবা তাদের মানসিক হাসপাতালে পাঠানো হতো। কিন্তু বাংলাদেশে তা হওয়ার প্রশ্ন ওঠে না। কারণ সুযোগ পেলে অর্থনীতি ক্ষেত্রে আইন অমান্য বা চুরি করছে না এমন লোকের সন্ধান লাভের জন্য এখন গবেষণার প্রয়োজন।
এক্ষেত্রে সব থেকে বিপজ্জনক ব্যাপার হল, এ ধরনের আইন অমান্যতার একটা সামাজিক স্বীকৃতিও এদেশে তৈরি হয়েছে। আগে একটা চোরের প্রতি সমাজের যে দৃষ্টিভঙ্গি ছিল, যে ঘৃণা ছিল, আজ আর সেটা নেই। চুরি করে, ডাকাতি করে, ভূমিদস্যুতা করে, ঘুষসহ নানা দুর্নীতি করে বিপুল ধনসম্পদের মালিকরা এখন বাংলাদেশে সমাজের অধিপতি। এই অধিপতিদের গায়ে হাত পুলিশ দেয় না, দিতে পারে না এবং তাদের হুকুম মতোই দেশ চলে। এ পরিস্থিতিতে মিথ্যা যে ব্যাপকভাবে তার সাম্রাজ্য বিস্তার করে রাখবে এটাই স্বাভাবিক। কাজেই দৈনন্দিন ব্যবহারিক জীবন, বন্ধু-বান্ধবের সঙ্গে সম্পর্ক, পারিবারিক সম্পর্ক, রাজনীতি, অর্থনীতি, ইতিহাস থেকে নিয়ে প্রতিটি ক্ষেত্রে এখন মিথ্যার রাজত্ব চলছে। মিথ্যার শাসনেই সবকিছু নিয়ন্ত্রিত হচ্ছে। এসবই হচ্ছে কোনো না কোনোভাবে নিয়ম-কানুন ভঙ্গ এবং আইন অমান্যতার উদাহরণ। এই আইন অমান্যতা সব ক্ষেত্রেই ব্যাপকভাবে নৈরাজ্য তৈরি এবং তা গভীর থেকে গভীরতর করছে। সরকারের হাতেই সবকিছুর নিয়ন্ত্রণ থাকে। যে কোনো গণতান্ত্রিক দেশে নির্বাচনের মাধ্যমেই সরকার গঠিত হয়। কিন্তু বাংলাদেশে যে নির্বাচন হয় তাতে জনগণের মতামত প্রতিফলিত হয় না, তার কোনো সুযোগ থাকে না। কারণ এই নির্বাচনে নির্বাচনী আইন মেনে চলার কোনো ব্যাপার থাকে না। নির্বাচনের ফলাফল জনগণের ভোটের দ্বারা নির্ণীত হয় না। সেটা হয় খোদ নির্বাচন কমিশন এবং পুলিশের নির্বাচনী আইন অমান্যতার মাধ্যমে। অবাধ কারচুপির মাধ্যমে।
বাংলাদেশে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি যেভাবে সংসদ নির্বাচন হয়েছে, এত বড় নির্বাচনী আইন অমান্যতার দৃষ্টান্ত শুধু বাংলাদেশে নয়, দুনিয়ার কোথাও ইতিপূর্বে দেখা যায়নি। এই আইন অমান্যতার ফলে এমন ম্যাজিক দেখা গেছে যেখানে জনগণের কোনো ভোট ছাড়াই ক্ষমতাসীন সরকার ১৫৩টি আসনে জয়লাভ করে আবার ক্ষমতাসীন হওয়ার মতো সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করেছে! এভাবে যে সরকার ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হয়েছে, তারা রাজনীতি, প্রশাসন, অর্থনীতি, উন্নয়ন ইত্যাদি কোনো ক্ষেত্রে যে আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হবে এবং আইন মান্যতার পরোয়া করবে এটা স্বাভাবিক নয়। আইন অমান্য তাদের নিজেদেরও নানাভাবে এবং সর্বক্ষেত্রে করতে হবে। বাংলাদেশে এখন তা-ই হচ্ছে। কাজেই এর ফলে সমাজে প্রতিটি ক্ষেত্রে, শিক্ষা থেকে নিয়ে ব্যাংক পরিচালনা পর্যন্ত প্রত্যেক ক্ষেত্রে, বিশৃঙ্খলা হয়ে দাঁড়িয়েছে এক সাধারণ ব্যাপার। এর ফলে দেশে নৈরাজ্যিক পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে। নৈরাজ্য সমগ্র সমাজকে ভয়াবহভাবে গ্রাস করছে। এই পরিস্থিতি সম্পর্কে একটা মোটা দাগের ধারণা জনগণের থাকলেও এর বিপদের মাত্রা সম্পর্কে তাদের ধারণা নেই। শুধু তাদের কেন, এদেশের বুদ্ধিজীবীদেরও নেই। সেটা থকলে তাদের মধ্যে এ নিয়ে যে উদ্বেগ দেখা যেত তার কিছুমাত্র নেই। এর কঠোর সমালোচনা এবং এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধের চিন্তা কোথাও নেই। এর থেকে বিপজ্জনক পরিস্থিতি একটি দেশের জন্য আর কী হতে পারে?
১০.০৬.২০১৭
বদরুদ্দীন উমর : সভাপতি, জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল

0 comments:

Post a Comment