Last update
Loading...

ঘরের ধুলো থেকে অ্যালার্জি

কোনো কোনো রোগীর সারা বছর ধরে চোখে চুলকানি ও চোখ দিয়ে পানি ঝরে এবং নাক থেকে সর্দি ঝরে। কারণ অনুসন্ধানে জানা যায়, ঘরের ধুলোতে থাকা জীবাণু থেকে এ সমস্যা হচ্ছে। এ কারণে অ্যাজমা রোগীদের শ্বাসকষ্ট বেড়ে যায় ও নিঃশ্বাসের সঙ্গে সঙ্গে কাশি হয়।ঘরের ধুলোতে কী থাকে : সুতার আঁশ, মানবদেহের ত্বকের মৃত কোষ, প্রাণীর লোম, আণুবীক্ষণিক জীবাণু, তেলাপোকার প্রতঙ্গ, ছত্রাকের জীবাণু, খাদ্য কণা ও আরও অনেক পরিত্যক্ত ক্ষুদ্র জিনিস। ঘরে আর্দ্রতা বেশি থাকলে, ফার্নিচারের প্রকারভেদ, ঘর তৈরির উপাদান, পোষা প্রাণীর উপস্থিতির কারণে এ সমস্যা প্রকট হয়। উপসর্গ কমাতে কী করবেন : চিকিৎসার তিনটি মৌলিক ধাপ রয়েছে-
- ধুলোর জীবাণু থেকে দূরে থাকা
- চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ গ্রহণ
- ইমিউনো থেরাপি
- সোবার ঘরের দিকে নজর দিন মানুষ তার জীবনের এক-তৃতীয়াংশ বেডরুমে কাটায়। ঘরের জীবাণু সোবার ঘরে বেশি থাকে। বালিশে ফোম বা তুলা ব্যবহার না করে সিনথেটিক ব্যবহার করুন। এয়ারকন্ডিশনার ও আর্দ্রতারোধক যন্ত্র ব্যবহার করুন। জানালায় সূক্ষ্ম কাপড়ের ফিল্টার ব্যবহার করতে পারেন। কাপড় ক্লোজেটে রেখে ঢাকনা বন্ধ রাখুন।
অ্যালার্জি ও অ্যাজমা রোগ বিশেষজ্ঞ, অ্যালার্জি ও অ্যামজা সেন্টার
পান্থপথ, ঢাকা, মোবাইল-০১৭২১৮৬৮৬০৬

0 comments:

Post a Comment