Last update
Loading...

চুয়াডাঙ্গা ও রাজবাড়ীতে 'বন্দুকযুদ্ধে' ২ চরমপন্থী নেতা নিহত

চুয়াডাঙ্গায় র‌্যাবের সঙ্গে ও রাজবাড়ীতে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই চরমপন্থী নেতা নিহত হয়েছেন। বুধবার দিবাগত রাতে আলমডাঙ্গার তালুককররা-পারলক্ষ্মীপুরের মধ্যবর্তী কুড়ির মাঠে ও গোয়ালন্দ উপজেলায় ছোট ভাকলা ইউনিয়নের চর দেলন্দী গ্রামে এ 'বন্দুকযুদ্ধ' হয়। নিহতরা হলেন- পূর্ববাংলার কমিউনিস্ট পার্টির আঞ্চলিক কমান্ডার ওল্টু মণ্ডল (৪৩) ও কদম আলী ওরফে করম (৩৫)। ওল্টু আলমডাঙ্গার উপজেলার তিয়রবিলা গ্রামের ঝড় মণ্ডলের ছেলে এবং করম  গোয়ালন্দ উপজেলার দেবগ্রাম ইউনিয়নের তেনাপঁচা গ্রামের মৃত কুব্বাত হোসেনের ছেলে। আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর: র‌্যাব-৬ এর ঝিনাইদহ আঞ্চলিক কমান্ডার মেজর মনির আহমেদ জানান, রাতে র‌্যাবের একটি টহলদল চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার খাসকররা ইউনিয়ন এলাকায় টহলে যায়। তালুককররা-পারলক্ষ্মীপুর সড়কে পৌঁছালে র‌্যাবকে লক্ষ্য করে মাঠ থেকে গুলি ছোড়তে থাকে সন্ত্রাসীরা। র‌্যাবও পাল্টা গুলি চালায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ওল্টু মণ্ডলকে উদ্ধার করে রাত ৩টার দিকে আলমডাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর ও আলমডাঙ্গা সার্কেল) তরিকুল ইসলাম এলাকাবাসীর বরাত দিয়ে জানায়, নিহত ওল্টু চরমপন্থী সংগঠন পূর্ব বাংলার কমিউনিস্ট পার্টির আঞ্চলিক কমান্ডার ছিল। তিনি বলেন, ওল্টুর বিরুদ্ধে জেলার বিভিন্ন থানায় হত্যা ও চাঁদাবাজিসহ ৬টি মামলা রয়েছে। এসময় র‌্যাবের দুই সদস্য আহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ান শুটারগান ও ৪ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়েছে। এদিকে রাজবাড়ী ডিবি পুলিশের ওসি ওবাইদুর রহমান যুগান্তরকে বলেন,  নিষিদ্ধ ঘোষিত চরমপন্থী সংগঠন লাল পতাকা বাহিনীর রাজবাড়ী অঞ্চলের কামান্ডার ছিলেন করম। বুধবার বিকালে তাকে ঢাকার হেমায়েতপুর থেকে আটক করা হয়। এরপর তাকে গোয়ালন্দঘাট থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে করম অস্ত্র লুকানোর তথ্য দেয়। পরে রাত সাড়ে ৩টার দিকে গোয়ালন্দঘাট থানার পুলিশের সহযোগিতায় তাকে নিয়ে ওই ভিটায় অস্ত্র উদ্ধার অভিযানে যায় পুলিশ। এসময় আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা করমের দলের সদস্যরা পুলিশকে উদ্দেশ্য করে গুলি ছোড়ে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। এক পর্যায়ে করম গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান। ওসি জানান, করমের বিরুদ্ধে তিনটি হত্যা, একটি অস্ত্র ও একটি মাদক মামলা রয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে একটি একনালা বন্দুক ও ওয়ান শুটারগান উদ্ধার করা হয়েছে। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রাজবাড়ী সদর হাসপতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

0 comments:

Post a Comment