Last update
Loading...

২১৯টি নতুন গ্রহ : পৃথিবীর মতো ১০টি

২১৯টি নতুন গ্রহ আবিস্কার করেছে নাসার কেপলার মিশন, যার ১০টির আকার পৃথিবীর মতো। যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা থেকে বিজ্ঞানী মারিও পেরেজ এই তথ্য প্রকাশ করেছে।
পেরেজ বলেন, পৃথিবী আকৃতির ১০টি গ্রহ শিলাময়, তবে এগুলো পানি ধারনে সক্ষম। খবর সিএনএন ও ডেইলি মেইলের।
এই কেপলার তথ্যের সন্নিবেশ একদম দূর্লভ, এটি একমাত্র মানুষ ধারন ক্ষমতার গ্রহ, যা পৃথিবী সদৃশ্য।
নতুন তথ্যমতে, কেপলার এখন পর্যন্ত ৪ হাজার ৩৪টি গ্রহানু নির্বাচন করেছে এবং ২০৩৫ টি সাম্ভাব্য গ্রহের সন্ধান পেয়েছে।
নতুন তথ্যে বলা হয়, অর্ধেকের বেশি সাম্ভাব্য গ্রহ ছায়াপথ হয় বায়বীয়, যেখানে কোন বর্হিভাগ নেই অথবা যেখানে অনেক ভারী বায়ুমন্ডল আছে যা আমাদের কল্পনাতীত। কিন্তু কেপলার এই গ্রহানুগুলোকে পরীক্ষা নিরীক্ষা করেছে স্পেস টেলিস্কোপের সাহায্যে।
সৌরজগতের বাইরে বাসযোগ্য গ্রহ অনুসন্ধানের কাজে নিয়োজিত নাসার টেলিস্কোপ কেপলার। ২০০৯ সালে নাসা কেপলার টেলিস্কোপটি পাঠানোর পর থেকে এটি ব্যস্ত সময় পার করছে। ছায়াপথগুলোর মধ্যে কোথাও কোনো গ্রহে প্রাণের সম্ভাবনা থাকতে পারে কি না, সেই দুরূহ সন্ধানের কাজটিই করে এটি। ২০১৩ সালের মধ্যেই কেপলার তার প্রাথমিক লক্ষ্যপূরণ করে ফেলে। আবিষ্কার করে ফেলে সৌরজগতের বাইরে প্রায় পাঁচ হাজার সম্ভাব্য গ্রহ। এর মধ্যে ২ হাজার ৩৩৫টি গ্রহের অস্তিত্বের ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া গেছে।
২০১৪ সালে শুরু হওয়া কেপলারের দ্বিতীয় মিশনে সৌরজগতের বাইরে এখন পর্যন্ত আরো ৫২০টি সম্ভাব্য গ্রহ আবিষ্কার করা হয়, যার মধ্যে ১৪৮টি গ্রহ নিশ্চিত হওয়া গেছে। সৌরজগতের বাইরে পৃথিবীর মতো আকৃতির ও বাসযোগ্য গ্রহ হিসেবে এর আগে ২১টি গ্রহ আবিষ্কার করেছিল কেপলার। তাই এবার আগে থেকেই ধারণা করা হচ্ছিল, কেপলারের নতুন আবিষ্কারের তালিকায় সম্ভবত বাসযোগ্য গ্রহ হিসেবে সেরা কিছু থাকবে। নাসার আমেস রিসার্চ সেন্টার পূর্ব ঘোষনা অনুযায়ী মার্কিন সময় ১৯ জুন সোমবার সকাল ১১টায় (ইডিটি) এ ব্যাপারে ব্রিফিং করে চূড়ান্ত তথ্য প্রকাশ করেছে। একই সাথে নাসার ওয়েবসাইটেও সরাসরি অনুষ্ঠানটি লাইভ দেখানো হয়েছে।
নাসার মতে, কেপলারের নতুন আবিষ্কার এ যাবতকালের সবচেয়ে উন্নত বিশ্লেষণের ফলাফল এবং সৌরজগতের বাইরের গ্রহ গবেষণায় নতুন কিছু উত্থাপিত হয়েছে। নাসার সায়েন্স মিশন পরিচালনা এর অ্যাস্ট্রোফিজিক্স বিভাগের বিজ্ঞানীদের পাশাপাশি সার্চ ফর এক্সট্রাটেরেস্ট্রিয়াল ইনস্টিটিউট, মানোয়ার হাওয়াই ইউনিভার্সিটি এবং ক্যালটেক এর বিজ্ঞানীরা সৌরজগতের বাইরে তাদের সর্বশেষ আবিষ্কারের ব্যাপারে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখবেন।

0 comments:

Post a Comment