Last update
Loading...

রসনায় তৃপ্তি এনে দেয় কাবাব

সারা দিন রোজা রাখার পর সবাই চান একটু ভালো কিছু খেতে। ইফতারের সময় শরীরেও খাবারের চাহিদা থাকে বেশ। একটু ভারি খাবার হলেও রসনায় তৃপ্তি এনে দেয় কাবাব। গরু, খাসি ও মুরগির মাংস দিয়ে তাই নানা ধরনের কাবাব ইফতারে এনে দেয় বাড়তি আনন্দ। মাংসের দাম বেড়ে যাওয়ায় এবার সব ধরনের কাবাবসহ মাংসের খাবারের দাম একটু বেশি। তবুও মুখরোচক খাবার হিসেবে সবাই কম বেশি কাবাবের স্বাদ নিতে চান রোজার সময়। যাদের সামর্থ্য আছে তারা প্রায় প্রতিদিনই ইফতারে কাবাবের পদ রাখেন। আর যারা মধ্যবিত্ত বা নিন্ম মধ্যবিত্ত তারাও চেষ্টা করেন রমজানের কোনো না কোনো সময় একটু কাবাবের স্বাদ নিতে। রমজান মাসে ঐতিহ্যবাহী কাবাবের মধ্যে অত্যন্ত জনপ্রিয় খাবার হল সুতি কাবাব। চকবাজারের অন্য ইফতারের স্বাদ নিয়ে মানুষের মধ্যে মিশ্র মন্তব্য শোনা গেলেও সুতি কাবাবের ব্যাপারে সবারই একমত- চকের সুতি কাবাব অনন্য। চকবাজারে গরুর এবং খাসির সুতি কাবাব কিনতে পাওয়া যায়। গরুর সুতি কাবাবের দাম পড়বে কেজিপ্রতি ৬০০ থেকে ৭০০ টাকা। আর খাসির সুতি কাবাবের দাম পড়বে ৮০০ থেকে ৯০০ টাকা। চকের অন্যান্য কাবাবের মধ্যে রয়েছে চিকেন টিক্কা কাবাব, তন্দুরি চিকেন, লাঠি কাবাব, মুঠি কাবাব ইত্যদি। দাম পড়বে ১০০ টাকার মধ্যে। চকের সুতি কাবাব এখন ছড়িয়ে গেছে নানা জায়গায়। রাজধানীর নানা হোটেলে এখন সুতি কাবাব পাওয়া যায়। হোটেল আল রাজ্জাকে উৎকৃষ্টমানের সুতি কাবাব পাওয়া যায়।
খাসির সুতি কাবাবের দাম পড়বে এখানে কেজিপ্রতি ১২০০ টাকা। এছাড়া মোহাম্মদপুর ও খিলগাঁওয়েও সুতি কাবাব পাওয়া যায়। বিভিন্ন ধরনের কাবাবের জন্য স্টার হোটেল অ্যান্ড কাবাব বিখ্যাত। এখানেও সুস্বাদু সব কাবাব প্রস্তুত করা হয়। রমজান উপলক্ষে বিভিন্ন ধরনের কাবাব বিক্রি করা হচ্ছে স্টার হোটেলের চারটি আউটলেট বনানী, কারওয়ান বাজার, রায় সাহেবের বাজার ও ধানমন্ডিতে। তাদের কাবাবের মধ্যে রয়েছে শিক কাবাব, চিকেন টিক্কা কাবাব, খাসির বটি কাবাব, শামী কাবাব, জালি কাবাব, চিকেন রেশমি কাবার, কাশ্মীরি কাবাবসহ আরও অনেক পদের কাবাব। দাম পড়বে ৪০ থেকে ১৮০ টাকা। মোহাম্মদপুরের বিহারি ক্যাম্প বাজারে মোস্তাকিমের কাবাব ও চাপ অত্যন্ত জনপ্রিয়। এখানকার চাপ বিখ্যাত। চাপের দাম পড়বে ৮৫ থেকে ১২০ টাকা। এছাড়া অন্যান্য কাবাবের দাম পড়বে ২০০ টাকার মধ্যে। পুরান ঢাকার কাজী আলাউদ্দিন রোডের বিসমিল্লাহ কাবাব অত্যন্ত জনপ্রিয়। এখানে গরুর চাপ, বটি, চিকেন টিক্কা, গুর্দ্দা কাবাবসহ মুখরোচক সব কাবাব পাওয়া যায়। দাম পড়বে ১০০ টাকার মধ্যে। গুলশান-২ এর খাজানা ইফতার বাজারে বেশ কিছু কাবাব পাওয়া যায়। ছুপা রুস্তম, মুর্গ তিলওয়ালা, লাজ্জি মোরগ কাবাব, কাঠি কাবাব, শাহজাহানি কাবাব, এর্সোটেড কাবাব, চিংড়ি কাবাব, ভেটকি কাবাব, হারিয়ালি কাবাবসহ নানা স্বাদের কাবাব পাওয়া যায়। এছাড়া রাজধানীর প্রায় সব ছোট-বড় রেস্টুরেন্টেই শিক কাবাব ও টিকা কাবাব কিনতে পাওয়া যায়।

0 comments:

Post a Comment