Last update
Loading...

ডায়াবেটিসে আক্রান্ত শিশুর রোজা

শিশুরা বড়দের দেখাদেখি শখ করে রোজা রাখার চেষ্টা করে। তাছাড়া মুসলমান শিশুদের ১২ বছর বয়স থেকে রোজা রাখা ফরজ। তাই বাবা-মাও শিশুর রোজা রাখার ব্যাপারে অমত করেন না। কিন্তু শিশু ও কিশোররা যদি ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হয় তাহলে বাবা-মা এ বিষয়ে একটু চিন্তাই করেন বটে। শিশু ও কিশোররা সাধারণত টাইপ ১ অথবা ইনসুলিন নির্ভরশীল ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হয়। শিশু ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের জন্য ইনসুলিন এবং নিয়মিত রক্ত পরীক্ষা অপরিহার্য। এ কারণেই টাইপ ১ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত শিশুদের রোজা রাখাটা একটু ঝুঁকিপূর্ণ বলে মনে করা হয়। শিশুর রোজা রাখার আগে সতর্কতা 
* শিশুর রক্তের গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণে আছে কিনা দেখতে হবে। এছাড়া শারীরিকভাবে রোজা রাখার সক্ষমতা আছে কিনা সেটা দেখা দরকার।
*ইনসুলিনের ডোজ নিয়মানুযায়ী পরিবর্তন করা।
*রোজায় রক্তের গ্লুকোজ পরীক্ষার করা জরুরি।
*সতর্কীকরণ সমস্যা যেমন- হাইপো, পানিশূন্যতা অথবা গ্লুকোজ অতিরিক্ত বেড়ে যেতে পারে তাই রোজায় খাবারের নিয়মাবলী জানতে হবে।
*যদি রক্তের গ্লুকোজের পরিমাণ (<৪ মি.মোল/লি) অথবা হাইপোর লক্ষণ দেখা দেয়। তাহলে স্বাস্থ্যের কথা চিন্তা করে রোজা ভেঙ্গে ফেলাই ভালো। এছাড়া শিশুদের রোজায় ডায়াবেটিস ঝুঁকিপূর্ণ কেন তা নিম্নে আলোচনা করা হলো;
*বারবার হাইপো হওয়ার আশংকা। তীব্র মাত্রার হাইপো অথবা রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ (<৪ মি.মোল/লি) কমে যেতে পারে। তবে এ ক্ষেত্রে হাইপো উপলব্ধি না করতে পারলে কিন্তু বিপদ।
*অনিয়ন্ত্রিত টাইপ ১ ডায়াবেটিস।
*ডায়াবেটিস কিটোএসিডসিস হওয়ার ইতিহাস থাকলে। এছাড়া অন্য কোনো অসুস্থতা থাকলে। তবে রক্তের গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণে থাকলে টাইপ ১ ডায়াবেটিস শিশুদের পক্ষে রোজা রাখা সম্ভব। তবে এর আগে চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়াটা জরুরি।
ডা. ফাহিম আহমেদ রুপম
মেডিসিন অ্যান্ড ডায়াবেটিস বিশেষজ্ঞ
ইমপালস হাসপাতাল, তেঁজগাও, ঢাকা

0 comments:

Post a Comment