Last update
Loading...

হত্যার বদলা নিতে স্কুল ছাত্রীকে গণধর্ষণ

‘বাড়িতে তখন আমি আর দাদি ছিলাম। ওরা গভীর রাতে দরজা ভেঙে ঘরে ঢোকে। ওদের সঙ্গে কাদির মেম্বার (আবদুল কাদির) ছিল। ঘরে ঢুকেই ধারালো অস্ত্রের মুখে আমার হাত-পা বেঁধে ফেলে তারা। আমি বললাম, ‘মেম্বার সাব আমারে বাঁচান, ওরা আমারে মেরে ফেলল।’ মেম্বার তখন ধমক দিয়ে বলল, ‘চুপ থাক। নইলে শেষ করে দিব।’ তারপর ওদের চারজন একে একে আমার ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। আমার জামা-কাপড় ছিঁড়ে ফেলে। মেম্বার তখন সিন্ধুক ভাঙার কাজে ব্যস্ত। আমি চিৎকার করছিলাম। কিন্তু কেউ এগিয়ে আসেনি। একদিকে চলছিল আমাদের বাড়ি লুটপাট, অন্যদিকে কয়েকজন হায়েনার মতো আমাকে নির্যাতন (ধর্ষণ) করতে থাকে। আমি বাঁচার জন্য চিৎকার করছিলাম। কিন্তু কেউ এগিয়ে আসেনি। নির্যাতন শেষ হলে তারা হাতের বাঁধন খুলে দেয়। এ সময় আমি দৌড়ে পাশের বাড়িতে গিয়ে আশ্রয় নিই।’ ২০ মে গভীর রাতে কুমিল্লার বরুড়ার ১৩নং আড্ডা ইউনিয়নের পিলগিরি গ্রামের একটি বাড়িতে ঢুকে সপ্তম শ্রেণীর এক স্কুলছাত্রীকে এভাবে ফিল্মি স্টাইলে গণধর্ষণ করে একই গ্রামের একদল দুর্বৃত্ত। একটি হত্যার বদলা নিতে এভাবে ধর্ষণ ও লুটপাটের ঘটনা ঘটায়। অথচ পুরো পরিবার এখন জানমালের ভয়ে এক রকম পালিয়ে বেড়াচ্ছে।
থানায় মামলা করতে না পেরে আদালতের শরণাপন্ন হয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত প্রভাবশালী মহলের চাপের মুখে ধর্ষণ মামলা করতে পারেনি। তাদের দিয়ে সোমবার মেয়ে অপহরণের সাজানো মামলা দায়ের করা হয়। ওদিকে ধর্ষিত মেয়েটিকেও হত্যা মামলার আসামি করা হয়েছে। এক ধরনের মানসিক ভারসাম্যহীন অবস্থায় মেয়েটি এখন পরিবারের সঙ্গে পালিয়ে বেড়াচ্ছে। পলাতক অবস্থায় যুগান্তর প্রতিবেদক তার এবং ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সাক্ষাৎকার নিতে সক্ষম হয়। ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে ধর্ষিত স্কুলছাত্রীটি যুগান্তরকে জানায়, বাড়ির সীমানা নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে ২০ মে দুপুরে মারামারির মধ্যে লাঠির আঘাতে আবু তাহের (৫৫) নামে এক ব্যক্তি মারা যান। অভিযোগ আনা হয়, তার (স্কুলছাত্রীর) ভাইয়ের লাঠির আঘাতে আবু তাহের মারা গেছেন। এরপর ভয়ে তাদের পরিবারের প্রায় সবাই পালিয়ে যান। সেদিন শুধু বাড়িতে অবস্থান করছিল সে এবং তার বৃদ্ধ দাদি। সেই রাতের ঘটনা : ধর্ষিত স্কুলছাত্রীটির কাছে ঘটনার রাতটি ছিল এক বিভীষিকাময়। সে যখন পৈশাচিক ও বর্বরোচিত ওই ঘটনার বর্ণনা দিচ্ছিল তখন মাঝে মাঝে ঢুকরে কেঁদে উঠছিল। আবার কখনও কখনও এক রকম বাকরুদ্ধ হয়ে পড়ছিল। স্কুলছাত্রীটি জানায়, সেদিন গভীর রাতে ১৩নং আড্ডা ইউনিয়ন পরিষদের ২ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার আবদুল কাদিরের নেতৃত্বে ২০-২৫ জন তাদের বাড়িতে হানা দেয়। কাদির মেম্বারসহ সবাই লুটপাটে ব্যস্ত ছিল। এ সময় আবুল হোসেন, শরিফুদ্দিন, নাসির মিয়া এবং রিমান হোসেন তাকে টেনেহিঁচড়ে হাত-পা বেঁধে তার ওপর নির্যাতন চালায়। ধর্ষণ করে। অন্যরা ব্যস্ত ছিল লুটপাটে। এদের মধ্যে সে নিহত আবু তাহেরের ছেলে ইউসুফ মিয়াকে চিনতে পারে। দুর্বৃত্তরা চলে গেলে তার শরীরের ছেঁড়া জামা-কাপড় এক প্রতিবেশীর মাধ্যমে সংগ্রহ করে। এদিকে এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে অভিযুক্ত স্থানীয় ইউপি মেম্বার আবদুল কাদির যুগান্তরকে বলেন, ‘এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি। আবু তাহের খুন হওয়ার পর আমি ঢাকা থেকে গ্রামে আসি। রাতে খুনির বাড়িতে কেউ যায়নি। তাদের বাড়িতে কেউ লুটপাটও চালায়নি এবং কেউ সেখানে ধর্ষণের শিকারও হয়নি।’ ১৩নং আড্ডা ইউপি চেয়ারম্যান জাফরউল্লাহ চৌধুরী যুগান্তরকে বলেন, আমি এমন কোনো ঘটনার কথা শুনিনি। এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটলে আমি জানতাম। এখানে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। বিষয়টি নরমাল হয়ে এলে হয়তো সমঝোতা হবে।
হত্যার ঘটনার সমঝোতা হয় না, বাদী আপস করলেও রাষ্ট্রপক্ষ মামলা এগিয়ে নিয়ে যাবে। এমন কথা জানালে ইউপি চেয়ারম্যান বলেন, বাদী চাইলে অনেক কিছুই সম্ভব। বরুড়া থানার ওসি মাহবুব মোরশেদ যুগান্তরকে বলেন, আমাদের কাছে ধর্ষণ ও লুটপাটের কোনো অভিযোগ আসেনি। আপনারা বিষয়টি নিয়ে খোঁজ করছেন শুনেই ঘটনাস্থলে লোক পাঠিয়েছিলাম। এমন কোনো তথ্য আমরা পাইনি। হত্যা মামলা হয়েছে। এ কারণে প্রতিপক্ষকে চাপে ফেলতে হয়তো তারা এ ধরনের কথা বলছে। ইউপি চেয়ারম্যান এবং থানার ওসি বিষয়টি অস্বীকার করলেও আড্ডা ইউপির এক মেম্বার নাম প্রকাশ না করার শর্তে যুগান্তরকে বলেন, ঘটনার পর স্কুলছাত্রী পাশের বাড়িতে গিয়ে আশ্রয় নেয়। ওই প্রতিবেশীর সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। তারাই লজ্জা নিবারণ করতে ধর্ষিতাকে পোশাক এনে দিয়েছে। তাই ধর্ষণের ঘটনা অবশ্যই ঘটেছে। তিনি বলেন, ঝগড়ার একপর্যায়ে একটি হত্যার ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু তাই বলে ধর্ষণ ও লুটপাট করে বদলা নেয়া কোনোভাবেই মানা যায় না। এদিকে যে প্রতিবেশী ধর্ষিত স্কুলছাত্রীকে ঘটনার পরপরই একরকম উদ্ধার করে তার ছেঁড়া জামাকাপড় এনে দেন, তার সঙ্গে প্রতিবেদক যোগাযোগ করেন। কিন্তু তিনি ভয়ে মুখ খুলতে রাজি হননি। ওই প্রতিবেশীর ভাষ্য, ‘ভাই আমাদের তো এলাকায় থাকতে হবে। এজন্য আমার পক্ষে কিছুই বলা সম্ভব নয়।’
স্কুলছাত্রীর দাদি যা বললেন : ঘটনার সময় বাড়িতে ছিলেন স্কুলছাত্রীর বৃদ্ধ দাদি। তিনি যুগান্তরকে জানান, রাতে চোখে দেখেন না তিনি। সেদিন রাতে বাড়িতে অনেক লোক এসেছিল। তার স্কুলছাত্রী নাতনি অন্য ঘরে ছিল। রাতে তার নাতনিকে ধর্ষণ করা হয়েছে। তখন তার নাতনি অনেক চিৎকার করেছে। সেই চিৎকার প্রতিবেশীরাও শুনেছে। দুর্বৃত্তরা ধারালো অস্ত্র নিয়ে এসেছিল। তারা পুরো বাড়িতে লুটপাট করে। বাড়িতে চারটি গরু ছিল। এগুলো নিয়ে গেছে। এমনকি বাড়িতে গরুর খড়ও রেখে যায়নি। তিনি এই প্রতিবেদককে গরুর ঘর দেখিয়ে বলেন, এ ঘরেই চারটি গরু ছিল। এখন কোনো গরু নেই। বাড়ির একটি ঘরে প্রতিবেদককে নিয়ে তিনি বলেন, এখানে কয়েক বস্তা ধান ছিল। কিন্তু সেদিন রাতে তারা বস্তায় ভরা সব ধান লুট করে নিয়ে যায়। স্কুলছাত্রীকে আসামি করার কারণ জানতে চাইলে নিহত আবু তাহেরের ছেলে মামলার বাদী ইয়াছিন মিয়া যুগান্তরকে বলেন, পুলিশ ঘটনার কথা শুনে মামলার এজাহার লিখেছে। আমি শুধু স্বাক্ষর করে দিয়েছি। তাছাড়া তখন আমার মানসিক অবস্থা ভালো ছিল না। স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ এবং লুটপাটের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ওইদিন আমি সারা রাত থানায় ছিলাম। সকালে লুটপাটের বিষয়ে জানতে পারি। কারা করেছে, সেটা আমি জানি না। আমি বিষয়টি ওসি স্যারকে বলেছিলাম।’ তখন তিনি বলেছিলেন, ‘আপনার এতকিছু জানার দরকার নেই। আপনার বাবা মারা গেছেন। তাকে নিয়েই ব্যস্ত থাকেন।’ লুটপাট এবং ধর্ষণের সময় আপনার ভাই ইউসুফ ছিল বলে স্কুলছাত্রী অভিযোগ করেছে-এ বিষয়ে তিনি বলেন, আমার ভাই (ইউসুফ) বাবার লাশ নিয়ে ব্যস্ত ছিল। সে লুটপাটের সময় সেখানে ছিল না।

0 comments:

Post a Comment