Last update
Loading...

মিন্দানাওয়ে সামরিক শাসন জারি

ফিলিপাইনের মিন্দানাওয়ে সামরিক শাসন জারি করা হয়েছে। সেনাবাহিনীর সঙ্গে আইএস জঙ্গিদের সংঘর্ষের পর মিন্দানাও দ্বীপে প্রথমে দুই মাসের জন্য সামরিক শাসন জারি করা হলেও দেশটির প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুতের্তে বলেছেন, এটা এক বছর পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে। মঙ্গলবার দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় এ দ্বীপে আইএসের হামলায় নিরাপত্তা বাহিনীর তিন সদস্য নিহত হয় বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা। খবর বিবিসির। স্বায়ত্তশাসনের দাবিতে মিন্দানাওয়ে তৎপরতা চালাচ্ছে বেশ কয়েকটি মুসলিম বিদ্রোহী গোষ্ঠী। এদের মধ্যে আইএসের সঙ্গে সম্পর্কিত জঙ্গিও রয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। এর মধ্যে সশস্ত্র জঙ্গিগোষ্ঠী মাউতে আইএসের প্রতি আনুগত্যের ঘোষণা দিয়েছে। দ্বীপটিতে সামরিক শাসন জারির পর দুতের্তে হুশিয়ারি দিয়েছেন, সন্ত্রাসবাদবিরোধী লড়াইয়ে তিনি আরও কঠোর হবেন। রাশিয়ায় এক রাষ্ট্রীয় সফরে রয়েছেন দুতের্তে। এখান থেকেই মিন্দানাওয়ে সামরিক শাসন জারির আদেশ দেন তিনি। পাশাপাশি এমন পরিস্থিতিতে সফর সংক্ষিপ্ত করে তিনি দেশে ফিরে আসবেন বলে জানা গেছে। আইএস ও অন্যান্য জঙ্গিগোষ্ঠীগুলোর সঙ্গে লড়াই চালিয়ে যেতে ফিলিপাইনের আরও আধুনিক অস্ত্র দরকার। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে বৈঠককালে এ নিয়ে আলাপ করেছেন দুতের্তে। ফিলিপাইনের সংবিধানে বলা আছে, আক্রমণ প্রতিহত বা বিদ্রোহ দমনে একজন প্রেসিডেন্ট শুধু ৬০ দিনের জন্য সামরিক আইন জারি করতে পারবেন। প্রেসিডেন্টের ঘোষণার পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে পার্লামেন্ট ঘোষণাটি রদ করতে পারবে আর সর্বোচ্চ আদালত এর বৈধতা যাচাই করে দেখতে পারবে। সামরিক শাসন জারির ফলে সামরিক বাহিনী মিন্দানাওতে কোনো অভিযোগ ছাড়াই লোকজনকে আটক করে দীর্ঘদিন বন্দি করে রাখতে পারবে। এক বিবৃতিতে সামরিক বাহিনী জানিয়েছে, আইএসের প্রতি আনুগত্য ঘোষণা করা এক জঙ্গিগোষ্ঠীর নেতাদের খোঁজে মিন্দানাওয়ের মারাবি শহরে তল্লাশি অভিযান চালাচ্ছিল সেনাবাহিনী, তখন তাদের লক্ষ্য করে হামলা চালায় জঙ্গিরা। দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী ডেলফিন লোরেঞ্জানা হামলাকারী জঙ্গিদের মাউতে গোষ্ঠীর সদস্য বলে শনাক্ত করেছেন। জঙ্গিরা সেনাদের ওপর হামলার পর একটি হাসপাতাল ও একটি কারাগার দখল করে নেয় এবং গির্জাসহ কয়েকটি ভবন জ্বালিয়ে দেয় বলে জানিয়েছেন তিনি।

0 comments:

Post a Comment