যুক্তরাষ্ট্রকে উত্তর কোরিয়ার কড়া বার্তা

উত্তর কোরিয়ার বর্তমান নেতা কিম জং উনের দাদা ও দেশটির প্রতিষ্ঠাতা কিম ইল-সুংয়ের ১০৫তম জন্মদিনে বিশেষ সামরিক প্রদর্শনী করেছে। শনিবার পিয়ংইয়ংয়ে আয়োজিত এই সামরিক কুচকাওয়াজ থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সম্ভাব্য সামরিক অভিযানের বিপরীতে কড়া বার্তা দেয়া হয়েছে। কিম জং উনের উপস্থিতিতে কুচকাওয়াজে বিপুলসংখ্যক সেনা সদস্যের পাশাপাশি অত্যাধুনিক সব সমরাস্ত্র, ট্যাংক ও ক্ষেপণাস্ত্র প্রদর্শন করা হয়। তবে কুচকাওয়াজের সেরা আকর্ষণ ছিল পারমাণবিক বোমা বহনে সক্ষম দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রের প্রথম প্রদর্শনী। এর মধ্য দিয়ে দেশটি ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি আরও সমৃদ্ধ করবে এবং যেকোনো সময় ব্যবহারে সক্ষম বলেই বার্তা দেয়া হয়। সম্প্রতি উত্তর কোরিয়ার দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রের কয়েকটি পরীক্ষার পর দেশটির পারমাণবিক কর্মসূচি নিয়ে উদ্বেগ দেখা দেয় যুক্তরাষ্ট্রে। এর মধ্যেই উত্তর কোরিয়াকে শায়েস্তা করতে কোরীয় উপদ্বীপে রণতরী মোতায়েন করেছে ট্রাম্প প্রশাসন।
আর এর জবাবে উত্তর কোরিয়ার সেনাবাহিনী এ কুচকাওয়াজ করে শনিবার নিজেদের শক্তিমত্তা প্রদর্শন করল। সামরিক এ কুচকাওয়াজ থেকে মার্কিন কর্তৃপক্ষের আচরণকে 'সামরিক হিস্টিরিয়া' রোগ বলে উল্লেখ করা হয়। পাশাপাশি এর যোগ্য জবাব দেয়ার জন্য উত্তর কোরিয়া প্রস্তুত বলেও ঘোষণা দেয়া হয়। উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা কেসিএনএকে দেশটির সেনা বাহিনীর জেনারেল স্টাফের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, 'উত্তর কোরিয়ার প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের যেকোনো ধরনের সামরিক, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক কঠোরতার যোগ্য জবাব দেবে দেশটির জনগণ ও সামরিক বাহিনী।' তিনি আরও বলেন, 'মার্কিন সামরিক বাহিনী কোনো অ্যাকশানে গেলে তার তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখানো হবে।' মার্কিনিদের আচরণের নির্দয় প্রতিশোধ নেয়া হবে বলেও ঘোষণা দেন এ মুখপাত্র।
Share on Google Plus

0 comments: