Last update
Loading...

যেভাবে কোলেস্টেরল থাকবে নিয়ন্ত্রণে, কমবে হৃদরোগে মৃত্যু

প্রতিদিন ভাজাভাজি ও অতিরিক্ত তেল মশলা জাতীয় খাবার খাচ্ছেন। রাত জেগে অফিসে কাজ করা যেন অভ্যাসের পরিণত হয়েছে। এমনটা নিয়মে পরিণত হলে আপনাকে কিন্তু বিপদে পড়তে হবে, তাই এখন থেকেই সাবধান হয়ে যান! আপনি জানেন কি? অস্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রা কারণে রক্তে কোলেস্টেরল বেড়ে যায়। শরীরে দেখা দেয় নানা জটিলতা। এর জন্য এমনকি মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। বিশেষজ্ঞদের মতে, অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপনের কারণে প্রথমে রক্তে কোলেস্টেরল বাড়ে, তারপর একে একে হার্ট অ্যাটাক, স্ট্রোক প্রভৃতি মারণ রোগের আশংকা বৃদ্ধি পায়। একাধিক গবেষণায় দেখা যায়,
শরীরে খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা বৃদ্ধি পেলে তা গিয়ে জমতে শুরু করে আর্টারিতে। আর এ কারণে যদি হার্টে ঠিক মতো রক্ত পৌঁছাতে না পারে তাহলে হার্ট অ্যাটাকের আশংকা বৃদ্ধি পায়। শুধু তাই নয় অনিয়ন্ত্রিত কোলেস্টেরলের কারণে ওবেসিটি, স্ট্রোক, ব্লাড প্রেসার প্রভৃতি রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশংকাও বাড়ে। তবে রক্তে চর্বির মাত্রা কমিয়ে এই মরণ রোগগুলোর হাত থেকে বাঁচতে বিশেষজ্ঞরা একটি ঘরোয়া ওষুধ সেবনের পরামর্শ দিয়েছেন। তারা মনে করেন, কোলেস্টেরল এবং হার্ট অ্যাটাকের আশংকা কমাতে ৩০-এর পর থেকেই এই আয়ুর্বেদিক ওষুধটি সেবন করা জরুরি। এ ওষুধটি ধীরে ধীরে আপনার কোলেস্টেরল কমিয়ে হার্ট অ্যাটাক, স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করবে! তাহলে আসুন দেরি না করে সেই ঘরোয়া ওষুধ তৈরির প্রস্তুত প্রণালী জেনে নেই;
উপকরণ: ধনেপাতা হাফ কাপ, মধু ১ চা চামুচ ও এক গ্লাস পানি।
প্রস্তুত প্রণালী: প্রথমে ব্লেন্ডারে নির্দেশনা অনুযায়ী ধনেপাতা ও পানি দিয়ে ভালো করে ব্লান্ড করুন। এবার এতে মধু মিশিয়ে পান করতে পারেন। ধনে পাতায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার এবং ভিটামিন-সি, যা কোলেস্টেরল কমাতে দারুণ কাজে আসে। অপরদিকে মধুতে রয়েছে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট প্রপাটিজ। এটিও শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে। এটি টানা ২ মাস সকালে নাস্তার পর পান করলে দেখবেন অল্প দিনেই কোলেস্টেরলের মাত্রা একেবারে স্বাভাবিক হয়ে গেছে। একাধিক গবেষণায় একথা প্রমাণিত যে, নিয়মিত এ ঘরোয়া ওষুধটি সেবনের সঙ্গে যদি শরীরচর্চা এবং জাঙ্ক ফুড থেকে নিজেকে দূরে রাখা যায়, তাহলে অকালে মৃত্যুর হাত থেকে বাঁচবেন আপনি।

0 comments:

Post a Comment