Last update
Loading...

১৫০০০ কোটি টাকার অস্ত্র-সরঞ্জাম ক্রয়

সাবেক সোভিয়েত রাজ্য বেলারুশের সঙ্গে সামরিক সরঞ্জাম কেনা ও প্রযুক্তি বিনিময়ের চুক্তি করেছে সরকার। গত ৮ জুলাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেলারুশ সফরের সময় দুই পক্ষের মধ্যে এ-সংক্রান্ত চুক্তি হয় বলে জানা যায়। তবে সরকারিভাবে এসব চুক্তির কথা স্বীকার করা হয়নি। আওয়ামী লীগ সরকারের সাড়ে চার বছরে সামরিক খাতে কেনাকাটার জন্য এ ধরনের অনেক চুক্তি করা হলেও তা কখনো প্রকাশ করা হয়নি। এ সময়ে সশস্ত্র বাহিনীর (সেনা, নৌ ও বিমান) জন্য ১৫ হাজার ১০৪ কোটি টাকার অস্ত্র, গোলাবারুদসহ বিভিন্ন ধরনের সামরিক সরঞ্জাম কেনা হয়েছে। এ ছাড়া রাশিয়ার সঙ্গে আট হাজার কোটি টাকার সরঞ্জাম কেনার চুক্তি হয়েছে। এর বাইরে আরও প্রায় দুই হাজার কোটি টাকার সরঞ্জাম কেনার প্রক্রিয়া চলছে। প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্র এসব তথ্য নিশ্চিত করেছে।
গত চার বছরে কেনা সামরিক সরঞ্জামের মধ্যে অত্যাধুনিক যুদ্ধবিমান, যুদ্ধজাহাজ, সামরিক হেলিকপ্টার, সাঁজোয়া যান, ক্ষেপণাস্ত্র ও বিভিন্ন ধরনের রাডার উল্লেখযোগ্য।
সশস্ত্র বাহিনীর কেনাকাটার ব্যাপারে জানতে চেয়ে প্রথম আলোর পক্ষ থেকে গত ১ মার্চ আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) মাধ্যমে সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসারের কাছে লিখিতভাবে তথ্য চাওয়া হয়। জবাবে আইএসপিআর থেকে ২৫ মার্চ লিখিতভাবে জানানো হয়, ‘বিষয়টি জাতীয় নিরাপত্তাসংশ্লিষ্ট হওয়ায় উত্তর দেওয়া সম্ভব নয়।’
এর আগে গত বছরের ২১ নভেম্বর সশস্ত্র বাহিনী দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর ভাষণে তিন বাহিনীর জন্য বিভিন্ন সরঞ্জাম কেনার তথ্য জানান। এ বছরের ২৭ ফেব্রুয়ারি জাতীয় সংসদের প্রশ্নোত্তর পর্বে তিনি সামরিক সরঞ্জাম কেনার কথা জানান।
সামরিক খাতের এই কেনাকাটা নিয়ে একাধিক সামরিক বিশেষজ্ঞের সঙ্গে আমরা কথা বলেছি। তাঁরা প্রথম আলোকে বলেন, বাহিনী থাকলে সরঞ্জাম কিনতেই হবে। আমাদের প্রতিরক্ষা-নীতি হবে আত্মরক্ষামূলক। তবে সম্ভাব্য আক্রমণকারী আঘাত হানার পরে আমরা প্রত্যাঘাত করব, নাকি আগেভাগেই হামলা চালিয়ে তাকে অকার্যকর করে দেব, সেটা ঠিক করতে হবে।
অবসরে যাওয়া একজন পদস্থ সেনা কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে প্রথম আলোকে বলেন, সাড়ে চার বছরে সরকার যেসব কেনাকাটা করেছে, তাতে কিছু ব্যক্তির আশা-আকাঙ্ক্ষারই প্রতিফলন ঘটছে। প্রতিরক্ষা নীতি না থাকায় এসব কেনাকাটা সমন্বিতভাবে হয়নি। তিনি বলেন, এ জন্য কোনো দিকনির্দেশনা থাকলে তা প্রতিরক্ষা-সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটিতে বা সংসদে অনুমোদন করিয়ে নিতে হবে। কিন্তু বাস্তবে তার কিছুই করা হয়নি। সবার সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে গ্রহণযোগ্য প্রতিরক্ষানীতি না করে আধুনিক সশস্ত্র বাহিনী গড়ে তোলার কথা বলে একেক সময়ে সরকারের ইচ্ছানুযায়ী কেনাকাটা মোটেই গ্রহণযোগ্য নয়। পাশাপাশি এ ধরনের কেনাকাটায় স্বচ্ছতাও জরুরি বলে তিনি মন্তব্য করেন।
সাবেক সেনাপ্রধান মাহবুবুর রহমান এ প্রসঙ্গে বলেন, বাংলাদেশের মতো দেশে প্রতিরক্ষা খাতে সক্ষমতা বাড়ানো উচিত। এ ক্ষেত্রে বিনিয়োগ করা দরকার। তবে রাশিয়া থেকে যে চড়া সুদে ঋণ নেওয়া হয়েছে, সেটা না করলেই ভালো হতো। এর আগে এত চড়া সুদে কখনো ঋণ নেওয়ার ঘটনা ঘটেনি। এই ঋণের অর্থ তো সাধারণ মানুষের পকেট থেকেই যাবে।
যত কেনাকাটা: অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ২০০৮-০৯ অর্থবছর থেকে শুরু করে ২০১২-১৩ অর্থবছর—এই চার বছরে তিন বাহিনীর জন্য ১৮৮ কোটি মার্কিন ডলার বা প্রায় ১৫ হাজার ১০৪ কোটি টাকার সামরিক সরঞ্জাম কেনা হয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি কেনা হয়েছে সেনাবাহিনীর জন্য। এ বাহিনীর জন্য চার বছরে পাঁচ হাজার ৪০৭ কোটি ২৭ লাখ টাকার সরঞ্জাম কেনা হয়েছে। নৌবাহিনীর জন্য চার হাজার ৯৭৫ কোটি ৪৯ লাখ ও বিমানবাহিনীর জন্য চার হাজার ৭২২ কোটি ১৩ লাখ টাকার সরঞ্জাম কেনা হয়।
এসব কেনাকাটার বাইরে রাশিয়া থেকে ঋণ নিয়ে আট হাজার কোটি টাকার ট্যাংক বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র, সাঁজোয়া যান (এপিসি), পন্টুন সেতু, প্রশিক্ষণ বিমান, সামরিক হেলিকপ্টারসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম কেনার চুক্তি সম্পন্ন হয়েছে। ২০১৮ সালের ১৫ এপ্রিল থেকে ২০ কিস্তিতে ১০ বছর ধরে বার্ষিক ৪ শতাংশ সুদে এ ঋণের অর্থ পরিশোধ করা হবে। এ চুক্তির আওতায় অস্ত্র ও সরঞ্জাম কেনা হবে ২০১৭ সালের মধ্যে।
২০১৩-১৪ অর্থবছরে প্রতিরক্ষা খাতে বাজেট বরাদ্দ করা হয়েছে ১৪ হাজার ৪৫৮ কোটি টাকা। এর মধ্যে সামরিক বাহিনীর উন্নয়নের নামে ২২৮ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে।
এ ছাড়া আরও প্রায় ১০০ কোটি ডলার খরচ করে সম্পূর্ণ তৈরি অবস্থায় দুটি ডুবো যুদ্ধজাহাজ (সাবমেরিন) কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলায় কুতুবদিয়া চ্যানেলের পাশে সাবমেরিন ঘাঁটি করার জন্য জমি বরাদ্দের প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে।
এবারের বাজেটে সামরিক খাতে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ১৪ হাজার ২২৯ কোটি টাকা। এর আগের বছর ছিল ১৩ হাজার ২৮৮ কোটি টাকা। ২০১১-১২ অর্থবছরে বরাদ্দ ছিল ১১ হাজার ৯৭৮ কোটি টাকা।
সেনাবাহিনী: বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর সেনাবাহিনীর ২৬০টি সাঁজোয়া যান, ১৮টি সামরিক উদ্ধার যান, ১৫টি এপিসি অ্যাম্বুলেন্স, ৪৪টি তৃতীয় প্রজন্মের ট্যাংক, দুটি হেলিকপ্টার, ১৮টি স্বয়ংক্রিয় কামান ও সামরিক রাডার কেনা হয়।
২০০৮-০৯ অর্থবছরে ৭৯ কোটি ৮২ লাখ টাকায় জাপান থেকে কেনা হয় ১৮৪টি তিন টনের ট্রাক। পরের বছর রাশিয়া থেকে কেনা হয় ১২০টি সাঁজোয়া যান (আরমার্ড পার্সোনাল ক্যারিয়ার—এপিসি), ১০টি সামরিক উদ্ধার যান (আরমার্ড রিকভারি ভেহিকেল—এআরভি) ও ১০টি এপিসি অ্যাম্বুলেন্স। কেনা এসব সরঞ্জামের দাম ৫১০ কোটি ৯৫ লাখ টাকা। ২০১০-১১ অর্থবছরে চীন থেকে কেনা হয় এক হাজার ২০১ কোটি ৮১ লাখ টাকায় এমবিটি ২০০০ মডেলের ৪৪টি চতুর্থ প্রজন্মের ট্যাংক ও তিনটি সামরিক উদ্ধার যান। ফ্রান্সের তৈরি ইউরোকপ্টার ব্র্যান্ডের দুটি হেলিকপ্টার কেনা হয় ১৭৯ কোটি ৪২ লাখ টাকায়। ওই বছর চীন থেকে রাডার কেনা হয় ১৩৬ কোটি ৩৯ লাখ টাকা খরচ করে। পরের বছর সার্বিয়া থেকে ১৮টি স্বয়ংক্রিয় কামান (সেলফ-প্রোপেলড গান—এসপিগান) কেনা হয় ৫৪১ কোটি ৩৪ লাখ টাকায়। রাশিয়া থেকে ২২২ কোটি সাত লাখ টাকায় কেনা হয় ১১৩টি ট্যাংক বিধ্বংসী সরঞ্জাম। একই বছর রাশিয়া থেকে ৬৫১ কোটি ৪৫ লাখ টাকায় কেনা হয় ১৪০টি সাঁজোয়া যান, পাঁচটি উদ্ধার যান ও পাঁচটি এপিসি অ্যাম্বুলেন্স।
সূত্র জানায়, এ ছাড়া সেনাবাহিনীর জন্য আরও দুটি বিমান, তিনটি ক্ষেপণাস্ত্র শনাক্তকরণ রাডার, কিছু বেতার সম্প্রচারকেন্দ্র, মাল্টিপল লঞ্চ রকেট সিস্টেম, বেশ কিছু ট্যাংকবিধ্বংসী অস্ত্র, স্বল্প পাল্লার ট্যাংকবিধ্বংসী গাইডেড উইপন, এপিসিসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম কেনার সরকারি সিদ্ধান্ত রয়েছে।
নৌবাহিনী: সরকারের চার বছরে নৌবাহিনীতে ১৬টি নতুন জাহাজ যুক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ১১টি কেনা হয়েছে আর চীনের সহায়তায় খুলনা শিপইয়ার্ডে তৈরি করা হচ্ছে ছোট আকারের পাঁচটি জাহাজ। ২০০৮-০৯ অর্থবছরে ইতালি থেকে ১৬৩ কোটি টাকায় কেনা হয় দুটি মেরিটাইম হেলিকপ্টার। একই দেশ থেকে ১৪১ কোটি টাকায় কেনা হয় এমকে-১ ক্ষেপণাস্ত্র। পরের বছর ৮৩৬ কোটি ৮৭ লাখ টাকায় চীন থেকে দুটি বড় টহল জাহাজ (এলপিসি) ও পাঁচটি ছোট টহল জাহাজ কেনা হয়। ১৩৬ কোটি ৯৩ লাখ টাকায় যুক্তরাজ্য থেকে কেনা হয় দুটি জাহাজ ও একটি জরিপ জাহাজ। এ ছাড়া ৩০২ কোটি ৫৪ লাখ টাকায় চীন থেকে ৫০টি ক্ষেপণাস্ত্র এবং ১৫৯ কোটি ৬৪ লাখ টাকায় কেনা হয় রাডার যন্ত্রপাতি। ২০১০-১১ অর্থবছরে নৌবাহিনীর জন্য জার্মানি থেকে আনা হয় ডরনিয়ার ব্র্যান্ডের দুটি মেরিটাইম এয়ারক্রাফট। এর দাম ২৪১ কোটি ৩৮ লাখ ৭৮ হাজার টাকা। গত ৩ জুন নৌবাহিনীর প্রধান কুর্মিটোলায় বঙ্গবন্ধু বিমান ঘাঁটিতে এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। ওই বছর এক হাজার ৬৫৯ কোটি ৩৯ লাখ টাকায় চীন থেকে কেনা হয় আরও দুটি যুদ্ধজাহাজ। এ বছর ৬৫২ কোটি টাকায় কেনা হয় আরও দুটি ফ্রিগেট।
কেনাকাটায় স্বচ্ছতার ব্যাপারে জানতে চাইলে নৌবাহিনীর প্রধান ভাইস অ্যাডমিরাল এম ফরিদ হাবিব গত ৩ জুন সাংবাদিকদের বলেন, নৌবাহিনীর কেনাকাটায় সব সময় স্বচ্ছতা ছিল। কোনো ধরনের অনিয়ম হয়নি।
বিমানবাহিনী: ২০০৯-১০ অর্থবছরে বিমানবাহিনীর জন্য ৩৩২ কোটি টাকায় চীন থেকে কেনা হয় স্বল্পপাল্লার বিমান প্রতিরক্ষা পদ্ধতি (এসএইচওআরএডি)। এফ-৭ বিমানের রক্ষণাবেক্ষণের সুবিধা স্থাপনে খরচ করা হয় ২০৪ কোটি টাকা। এ সময় এফ-৭ বিমানের জন্য চীন থেকে এবং মিগ-২৯ বিমানের জন্য রাশিয়া থেকে ক্ষেপণাস্ত্র কেনার জন্য খরচ করা হয় ২৭২ কোটি ১৭ লাখ টাকা। ২০১০-১১ অর্থবছরে এক হাজার ৫৩৮ কোটি টাকা দিয়ে কেনা হয় চতুর্থ প্রজন্মের ১৬টি যুদ্ধবিমান এফ-৭ বিজি১ এবং ৩৪৫ কোটি টাকায় রাশিয়ার তৈরি এমআই-১৭১এসএইচ হেলিকপ্টার। ৯ এপ্রিল এগুলো বিমানবাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরের বছর চারটি মিগ-২৯-এর রক্ষণাবেক্ষণে খরচ করা হয় ১১৯ কোটি ৫০ লাখ টাকা। এ ছাড়া চীন থেকে বিমান প্রতিরক্ষা রাডার কেনায় খরচ করা হয় আরও ২১৫ কোটি আট লাখ টাকা।
প্রতিরক্ষানীতি নেই: সামরিক সূত্রগুলো জানিয়েছে, দেশে কোনো প্রতিরক্ষানীতি নেই। চারদলীয় জোট সরকারের আমলে প্রতিরক্ষানীতি করার উদ্যোগ নেওয়া হয়। এরপর থেমে যায়। বর্তমান সরকারের আমলেও প্রতিরক্ষাবিষয়ক সংসদীয় কমিটিতে এ নিয়ে শুধু আলোচনাই হয়েছে। তবে সশস্ত্র বাহিনীর আধুনিকায়নের জন্য ‘ফোর্সেস গোল-২০৩০’ নামে পাঁচ বছর মেয়াদি চার ধাপের একটি পরিকল্পনা নেয় সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ। প্রথম ধাপে ২০১১ থেকে ২০১৫, দ্বিতীয় ধাপ ২০১৬ থেকে ২০২০, তৃতীয় ধাপ ২০২১ থেকে ২০২৫ এবং চতুর্থ ধাপ ২০২৬ থেকে ২০৩০ সালে বাস্তবায়িত হবে। প্রধানমন্ত্রী এতে অনুমোদনও দিয়েছেন। বর্তমান সরকারের আমলে যেসব কেনাকাটা হচ্ছে, তা প্রথম ধাপের অংশ বলে জানা গেছে।
কতটা যৌক্তিক: প্রতিরক্ষানীতি না থাকার পরও বাংলাদেশের মতো দরিদ্র দেশে এত বিপুল পরিমাণ অর্থ খরচ করে সামরিক সরঞ্জাম কেনা কতটুকু যৌক্তিক? সাবেক সেনাপ্রধান কে এম সফিউল্লাহ এ প্রশ্নের জবাবে প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা কী কিনব, তা নির্ভর করবে আমাদের প্রতিরক্ষানীতির ওপর। তবে কেনাকাটার ক্ষেত্রে স্বচ্ছতা অবশ্যই থাকতে হবে, যাতে এ নিয়ে কোনো প্রশ্ন না ওঠে। নিজেদের নিরাপদ রাখতে হলে প্রতিরক্ষার জন্য ব্যয় করতে হবে। এর প্রয়োজন আছে।’
দেশে কোনো প্রতিরক্ষানীতি নেই। তার পরও কোন উদ্দেশ্য সামনে রেখে এ ধরনের কেনাকাটা হচ্ছে? জানতে চাইলে প্রতিরক্ষাবিষয়ক সংসদীয় কমিটির প্রধান ইদ্রিস আলী প্রথম আলোকে বলেন, প্রতিরক্ষানীতি না থাকলেও প্রতিটি বাহিনীতে নিজস্ব কার্য পদ্ধতি আছে, আছে ‘ফোর্সেস গোল’। সেই লক্ষ্য নিয়েও কেনাকাটা হচ্ছে। এই ১৫ হাজার কোটি টাকার কেনাকাটায় স্বচ্ছতা ছিল বলে মনে করেন কি না—এ প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, সেনাবাহিনী তার চাহিদা অনুসারেই কেনাকাটা করে থাকে। এ ক্ষেত্রে যদি কোনো অনিয়মের অভিযোগ ওঠে, তবেই সংসদীয় কমিটি হস্তক্ষেপ করতে পারে।
তবে রাশিয়ার সঙ্গে আট হাজার কোটি টাকার সামরিক সরঞ্জাম কেনার চুক্তির পর গত ২১ জানুয়ারি সংবাদ সম্মেলনে সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার (পিএসও) আবু বেলাল মোহাম্মদ শফিউল হক বলেন, ‘সামরিক সরঞ্জাম কেনার ক্ষেত্রে কোনো ধরনের অস্বচ্ছতার অবকাশ নেই। এ ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট সব মন্ত্রণালয়ের মতামত নেওয়া হচ্ছে।’
ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার এয়ার কমোডর (অব.) ইসফাক ইলাহী চৌধুরী প্রথম আলোকে বলেন, একটি বাহিনী থাকলে তার সক্ষমতা থাকতেই হবে। না হলে বাহিনী রেখে লাভ কী? সক্ষমতার জন্য দরকার সামরিক সরঞ্জাম। তবে এসব সরঞ্জামের দাম অনেক বেশি, যা সাধারণ মানুষ চিন্তাও করতে পারে না। তবে দাম যাই হোক না কেন, কেনাকাটা অবশ্যই স্বচ্ছ হওয়া চাই, যাতে মানুষের কোনো সন্দেহ না থাকে।
গত ২৯ জানুয়ারি লন্ডনে প্রকাশিত দুর্নীতিবিরোধী আন্তর্জাতিক সংস্থা ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের (টিআই) এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘সামরিক খাতে বাংলাদেশের দুর্নীতির ঝুঁকি রয়েছে। জাতীয় নিরাপত্তা-সম্পর্কিত গোপন বিষয়গুলো সম্পর্কে সংসদে যেমন কোনো তথ্য প্রকাশ করা হয় না, তেমনি নিরাপত্তা খাতের বার্ষিক হিসাবের নিরীক্ষা প্রতিবেদন নিয়েও কোনো বিতর্কের প্রমাণ মেলে না।’
গত ২৭ ফেব্রুয়ারি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে সেনাবাহিনীর একাংশের দুর্নীতির অভিযোগ নিয়ে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশের সময় টিআইবির চেয়ারম্যান সুলতানা কামাল বলেছিলেন, ‘সামরিক খাতের কেনাকাটা নিয়ে কোনো তথ্য জনগণের কাছে প্রকাশ করা হয় না। এ ক্ষেত্রে স্বচ্ছতারও অভাব রয়েছে। এ নিয়ে সংসদেও কখনো কোনো আলোচনা করা হয় না।’

প্রথম আলোর ১০৬টি পাঠকের মন্তব্য

  • ২৩
    ১২
    অর্থহীন এই ব্যয়, এই দেশের বা দেশের জনসাধারণের কি কাজে আসবে? এই অর্থ যদি শহরের ও গ্রামের রাস্তা মেরামত, পরিষ্কার প্রকল্পে, বিদ্যুৎ উন্নয়ন প্রকল্প, তথ্যপ্রযুক্তি উন্নয়ন এবং বেকার নিরসনে কাজে লাগান যেত তাহলে হয়ত দেশ অনেকটাই এগিয়ে যেত। আফসস, এদেশের রাজনীতিবিদেরা নিজ স্বার্থ ছাড়া অন্য কিছুই ভাবতে পারে না :(
    • ১১
      it won't help the regular citizen but it will help the pocket of AL leaders........ they will pocket enough money for the upcoming election from this deal.
    • ১২
      ১৭
      ঠিকই বলেছেন। আর্মি আগে ভাল ছিল, এ সরকারের আমলে কেমন জানি হয়ে গেছে। আজমি ভাইয়ের ন্যায় চৌকস আর্মিদেরকে অপসারন করেছে। দুর্নিতীর সম্ভাবনা আছে।
    • ২৮
      ৩০
      মন্তব্য দেখে মনে হচ্ছে আমাদের এই সব সরকার নেই। একটি জাতি কতটুকু শক্তিশালী ,মর্যাদা সম্পন্ন তা তার সামরিক শক্তি দিয়ে বুঝা যায়। আমাদের সমুদ্র সীমানাও বেড়েছে। সরকার সিদ্বান্তটি যৌক্তিক। পদ্মা ব্রিজ ওয়ালারা, বাস্তবতা ফিরে আসুন। ভাবখানা এমন যে সরকারে সমালোচনা করলেই মারাত্নক দেশপ্রেমিক আর বুদ্ধিজীবী হওয়া যায়।
    • ১০
      do not blame only to politicians, how about us ? when a government opens new transport system, new electricity plat etc. what we do ? on the name of politics we simply vandalize those things in protest, so are we good ?
    • ২৯
      ১২
      দেশে এখনো পাকি দালাল আছে বুঝা যায়। আমান আজমির আর্মিতে নিয়োগটাই তো ছিল দুর্নীতি। বাংলাদেশ আর্মির নিয়ম অনুযায়ী বিদেশি নাগরিকের সন্তান আর্মিতে ঢুকতে পারবে না। গোয়াজম পাকি নাগরিক হওয়া সত্ত্বেও তার ছেলে কিভাবে আর্মিতে নির্ধারিত সময়ের এক মাস পরে ঢুকতে পারে? কিভাবে উচ্চমাধ্যমিকে তৃতীয় শ্রেণী পাওয়া আজমি আর্মির ফর্ম তুলতে পারে? কিভাবে সাঁতার না জানা সত্ত্বেও আজমি একের পর এক প্রমশান পায়? কিভাবে গোআজম একজন পাকি সিভিলিয়ান হয়েও ঢাকা ক্যান্টনমেন্টে রাত যাপন করে ছেলের সাথে (নাগরিকত্ব পাওয়ারও অনেক আগে)? আর গো আজম কিভাবে মাত্র পৌনে চার বছর কারমাইকেল কলেজে খণ্ডকালিন লেকচারার থাকার পরও (পূর্ণকালীন লেকচারার ও হইতে পারে নাই) নামের আগে অধ্যাপক লাগায়?)
    • ১০
      আমাদের নিরাপত্তার জন্য এত ব্যয়বহুল অস্ত্র কেনার সামর্থ থাকলেও সাহিনাদের নিরাপত্তার জন্য কোনো ব্যবস্থা নাই কেন? কেন শাহিনাদের বাচাতে অত্যাধুনিক সরঞ্জাম ইন্ডিয়া বা যুক্তরাজ্য থেকে ধার নেওয়ার কথা আসে । যেহেতু আমাদের চতুর্পাশে ভারত তাই ইহার দশগুণ অস্ত্র কিনলেও ফেলানিরা ঝুলবে কাটা তারে ভবিষ্যতেও ।
    • এখন তো ঘরের শত্রু বিভীষণে পরিণত হয়েছে, তাদের তাড়াতে, গদি কন্টকমুক্ত রাখতে অস্ত্রের প্রযোজন আছে না ?
  • ১৯
    ১০
    Well, I believe it's a good to make our defense strong.
    • নৌবাহিনীর জন্য দুরপাললার যুদ্ধজাহাজ কেনার জন্য সরকারকে অনুরোধ করছি। কারণ আমাদের নতুন সমুদ সিমার শেষ পযন্ত যাওয়ার উপযোগি কোন জাহাজ নাই। যা আছে তা দিয়ে আধেকটা যাওয়া যায়। আমাদের সমুদ সিমা অরখিত আবসথায় আছে। বিদেশি জাহাজ তাদের ময়লা আবজনা সব আমাদের সমুদে ফেলতেছে।
    • This is stupid!! The period for fighting with other country is over.... no country attacks or will attack other country now a days. i have spoken lot of defense people this time and all of them are fade up with thier job - lot already left their job. so it's better to work for improving their job facilities then to buying new weapons. Out of 15000 crore minimum 3 thousand crore will be in AL's pocket. as they did during their last tenure (procuring worthless mig 29). we need to spend money for improving general people's life style, improving the health service, transportation , job opprotunities, tackle crime. All the positive comments are coming from the ......... military guys. This country people never accept such wastage of money. This is ridiculus.
  • ১৫
    It means lot of corruption happened as well.
  • ৩১
    In terms of percentage of GDP, Bangladesh spends the least on Military expense among all the South Asian countries. Here is the south asian countries by military expenditures: Sri Lanka: 3.5% of the GDP Pakistan: 2.7% of the GDP India: 2.5% of the GDP Nepal: 2.0% of the GDP Bangladesh: 1.5% of the GDP Source: http://en.wikipedia.org/wiki/List_of_countries_by_military_expenditures But there must be a defence policy before spending on weapons for example spending 1,538 crore taka on 4th Generation F7BGI (it is a 3rd generation fighter actually) is a complete waste. Rather we should invest more on Air Defence. We also need relatively a stronger Navy to protect our vast sea territory. So, the spending on Navy is justifiable. Although, the report claims that two ships were bought from china at a cost of 1,659 crore taka which is not true I think, and purchasing two old frigates at a cost of 652 crore taka this year is still not confirmed. I think the reporter confused himself with the information. Finally, I agree with the agreement of defence technology transfer with Belarus and I must say that its now time to invest on Research and Development so that we can build weapons locally like the small warship we built last time. This will save our money and create more job opportunities.
    • 1. the info is not correct given by author, we have bought 2 chinese old frigate at good condition at very low cost which will be heavily modified with more advance weapons. it will reduce cost by 1.5 times if we bought newly build warship of its kind. 2. F-7BGI has been bought to replace A-5iii and F-7MB for ground attack role, their life time has expired. 3. you will see 5 layer air defence system by 2023-2025.
    • ১৭
      ১০
      Nice information. We need strong defense system. Thanks Govt. for enriching our defense forces .
    • সুন্দর একটি তথ্য বহুল মন্তব্যের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ ।
    • some people is disgusting , they always say AL want destroy army . when they get news AL making our army strong they try 2 find corruption or say we no need army . when this kind people will be Bangladeshi ? when they will love Bangladesh ? whey will see positive ?
  • ১০
    How many padma bridge is possible by that money?
    • ১৪
      অর্ধেকটা বানানো যেত।
    • ১২
      সামরিক ব্যয়ের প্রয়োজন আছে এবং সেটা করতেই হবে। ওই টাকা দিয়ে কি করা যেত কথা অবান্তর।
    • Sadiq , you always thinking negative why ? any government will come they will make padma bridge . we need strong and smart army 4 our safety .
  • ১৭
    ১৪
    এই রিপোট লিখার সময় যে সব বিশেষগগের মতামত নেওয়া হয়েছে তারা কেউ বলেনি এইসব সামরিক সরঞ্জাম কেনার প্রয়োজন নাই। হয়তো বিষয়টি জাতীয় নিরাপত্তাসংশ্লিষ্ট হওয়ায় প্রকাশ করা হয়নি। আমরা নেগেটিভ ভাবে না দেখে এটাও আওয়ামি লীগ সরকারের সাফল্য হিসাবে দেখতে পারি।
  • ২৮
    সামরিক দিক দিয়ে শক্তিশালী হওয়া ছাড়া উপায় নেই। তবে স্বাস্থ্যখাত( প্রেশার বাড়লে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে যেন যেতে না হয়) এবং দেশের সবচেয়ে গরীব মানুষগুলার চিকিতসা ব্যয় কিভাবে সামাল দেয়া যায় সেগুলাও মাথায় রাখা দরকার, শিক্ষাখাত কেও যেন কম গুরুত্ব দেয়া না হয়, ইদানীং সার্টিফেকটধারী তৈরি হচ্ছে অনেক, কিন্তু শিক্ষিত হচ্ছে কয়জন সেটা প্রশ্নসাপেক্ষ। আমাদের দেশে নামেই ভার্সিটি তৈরি হচ্ছে। প্রশ্ন হচ্ছে, আমাদের দেশের সব ভার্সিটিগুলাতে নিয়মিত গবেষণা হচ্ছে কি? ভার্সিটি মানে নিশ্চয় খালি পরীক্ষা না, এখানে তো আন্তর্জাতিক মানের অনেক গবেষণা হওয়ার কথা, অনেক পেপার বের হওয়ার কথা নিয়মিত, যেগুলা বিশ্বব্যাপী গ্রহণযোগ্য হবে। গবেষণা না হয়ে মারামারি করে ই তো অনেক সময় চলে যায়। সকল দিকে যেন মনোযোগ দেয়া হয়। সমন্বিত উদ্যোগ অনেক বেশি প্রয়োজন। আমাদের দেশটা অনেক ছোট দেশ। এই ছোট দেশ এ সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণ না করলে সব জগাখিচুড়ি পাকিয়ে যাবে। মিয়ানমার এবং ভারতের প্রতিবেশি দেশ হিসেবে সামরিক খাতে ব্যয় কে অপ্রয়োজনীয় ভাবাটাই বোকামি। তবে যা কেনা হচ্ছে, তা সামরিক বিশেষজ্ঞ রাই বলতে পারবে ঠিক আছে কিনা। সাধারণ মানুষ হিসেবে আমরা খালি বুঝতে চাইব যে , সীমান্তে বিএসএফ বা নাসাকা যেন বাড়াবাড়ি করার আগে ভয় পায়। সমুদ্র সীমায় আমাদের জেলেরা যেন নির্ভয়ে মাছ ধরতে পারে। জলদস্যুরা যেন বাংলাদেশের জাহাজ কে এটাক করার আগে দুইবার ভাবে। সেগুলা পেলেই জনতা খুশি। সব দিকেই মনোযোগ দেওয়া প্রয়োজন।
    • আমাদের সামরিক শক্তিকে ভয় পায় বলেই বিএস এফ সীমান্তে জীবন্ত টার্গেট প্র্যাকটিস করে।
  • ১২
    ১০
    Just want to know how much perchantages goes govt pocket....
  • পদ্মা সেতু সেনাবাহিনির অংশ হলে ভালো হতো !!!
  • Arms purchase deal of Tk 15,104 crore, without letting the people/parliament know about this? What does this indicate? How long people can condone this type of arrogance of this government?
    • It never happens (making military expenditures public). This is not due arrogance of the govt; this is what Bangladesh armed forces do not want to be disclosed.
  • ১১
    ১০
    এতে করে আসলেই কিছু ব্যক্তির চিন্তাভাবনার এবং আশা আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটেছে, এতে করে জনগনের চুড়ান্ত ক্ষতি সাধিত হবে।
  • ১০
    যে বা যাহারা যতই বলুক না কেন, এতো টাকা খরচ করে সরঞ্জাম কিনার কি দরকার? আমরা কার সাথে যুদ্ধ করবো? আমাদের তো কোন শত্রু নেই। তাহলে বলবো আমাদের আশে পাশে ঘাপ্টি মেরে আছে কিছু শত্রু যারা চাইলে অনেক কিছুই করতে সক্ষম সরাসরি হোক আর ইন-ডিরেক্ট হোক। আমাদের বাহিনী আছে এবং তা আমাদের প্রাইড ও তাই তাদের সক্ষমতা অর্জন করা খুব দরকার, তবে এই কেনাকাটার প্রক্রিয়া টা স্বচ্ছ যেমন হওয়া দরকার ঠিক দরকার একটা ভিশন এর উপরে ভিত্তি করে এগিয়ে নেওয়া। যেমন আমাদের নৌ- বাহিনীর জন্যে সাব মেরিন অবশ্যই দেশের ইতিহাসে মাইলফলক হতে যাবে তবে তা পারমাণবিক নয়। এখন যারা আমাদের ঘাটাতে চাইবে তারা একবার হলেও ভাববে আমাদের দিকে এগিয়ে আসার আগেই।
  • We need to understand few things. 1. our armed forces weapons and equipments are now very old. To keep it up to date we need to improve and increase fire power. 2. we are spending only 1.5% of our GDP. 3. Both of our neighbors are increasing their firepower heavily, specially upcoming superpower India after china. I am not saying that we will have war with them but who knows after 15 to 20 years what will happen. 4. our armed forces are trying to keep things secret because you can win half battle by just knowing enemy strength, so whoever will be the enemy, our armed forces are trying to keep them blind about our strength as much as possible, if we disclose it in public then all will know our strength and weakness. 5. according to official, BD will pay to russia from earnings of UN mission. 6. When you convert USD purchase amount into BDT, please also convert BD economy size into BDT too. for your help, now BD economy is $122 billion USD, now do the math.
    • Well said bro... in case of war or criminal activity, it will not wise to get help from others if we can manage ourselves alone with strong defense.
    • Our neigbers secret agents are everywhere in Bangladesh. So although we don't know our & their strength, they know everything.
  • We can not fight with our neighbours, good relatioship with neighbours always good. Yes we believe we need better naval force, our fishing industries , off shore area unprotected. But heavy arms in land area suspicious. Shopping spree before departure of govt, carring wrong messages, Purchasing from old suviet countries are more suspicious because they are no more old socialist govt. Their govt is in transition of capitalist structure systems,They are fighting with corruption as well. These huge arms shopping no doubt will carry controvercy,rather than necesity of the of our defence
  • Forgot to mention 1 more thing, for taking that credit from Russia, they will pass technology to Bangladesh which is very importand, it is not easy get just deal if you are not very close ally.
  • ১০
    সামরিক সরঞ্জাম কেনা মানেই বিরাট %
  • ১০
    ভারত তার নিজের টাকায় দেশের প্রযুক্তি তে বিমানবাহি যুদ্ধজাহাজ বানালেও আপনারা কটাক্ষ করে বলেন "গরিবের ঘোড়া রোগ" . এবার আপনাদের এই " বার্ষিক ৪ শতাংশ সুদে অস্ত্র-সরঞ্জাম ক্রয় " কে আপনারা কি বলবেন ???
    • ১২
      এইটা ভারতের প্রতি এলারজি থেকেই বলা। আর এই এলারজি জন্য ভারতও বহুলাংশে দায়ি।
    • প্লিজ লজ্জা দিবেন না, এসবে আম জনতার কোন হাত নেই।
    • আপনাকেও লাইক দিলাম। আপনার এই মন্তব্যটা একদম সঠিক।
  • ১৪
    যদি সামরিক সরন্জাম কিনতে হয়, তবে সেটা কিনতে হবে আমাদের দাতা দেশগুলো থেকে। সে সন দেশে আমাদের তৈরী পোষাক যায়, তার মধ্যে আমেরিকাই প্রধান। এ ছাড়া ইংল্যান্ড, ক্যানাডা, অস্ট্রেলিয়া সহ ইউরোপের অনেক দেশেই যায়। ওসব দেশ বাদ দিয়ে অখ্যাত দেশ থেকে অস্র কেনার আসল কারন কি? কমিশন????
    • ১২
      bro, plz do not talk what you do not know, if you buy from those countries our purchase cost will increase by 2 to 3 times. Which unpopular country are talking about from whom we are buying weapons ? first study on defence related issues.
    • একই ধরনের সামরিক সরঞ্জাম দাতা দেশগুলো থেকে কিনতে গেলে যেমন খরচ অনেক বেশী হয় তেমনি ওরা সরাসরি জেনে ফেলে আমাদের সামরিক শক্তির পরিমান। এছাড়া দাতা দেশগুলো আমাদের অস্ত্র সম্ভার নিয়ন্ত্রণ করার সুযোগ পেয়ে যাবে।
    • Quality of weapon is not important here priority goes to the country who can understand the percentage deal . which is really very important for awamilegue before the upcoming election .
    • .............বন্ধুত্ব মানে সীমাবদ্ধতা নয় @ইবনে নিজান, সব কাজে বিরোধিতা করা মানে বোকামি করার সামিল.
  • ১২
    এর আগে এত চড়া সুদে কখনো ঋণ নেওয়ার ঘটনা ঘটেনি। এই ঋণের অর্থ তো সাধারণ মানুষের পকেট থেকেই যাবে।
  • ১২
    ১৫,০০০ কোটি টাকার ২০% কত হয়? ৩,০০০ কোটি টাকা। এই বিপুল কমিশন কাদের পকেটে যাচ্ছে বা যাবে তা খুব ভালভাবে বোঝা যায় কেন এই সরকার ক্ষমতা ছাড়তে একেবারেই ইচ্ছুক নয়। তারা ক্ষমতায় না থাকলে এই বিপুল পরিমান কমিশন অন্যদের পকেটে চলে যাবে না? তবে সবচেয়ে বিস্মযকর ও বিমূঢ় করে দেবার মত ব্যপার হচ্ছে জনগনের স্বার্থরক্ষার কথা বলে জনগনের টাকার এরকম অপচয় - বিশেষ করে আমাদের প্রধান প্রতিবেশীর সাথে যুদ্ধের যেখানে দুরতম কোন সম্ভবনা নেই - সেখানে এরকম হঠকারী কান্ড কিভাবে কোন বিবেচনায় সম্ভব? তবে কি এই সরকার বুঝে গেছে যে ঘর পুড়ে গেলে যা পাওয়া যায় তাই লাভ? এনারা কি 'নির্নয় লে লিয়া হ্যায় কে বহুত দের নেহী ইয়ে দেশ ছোড়নে কো'? কি জানি?
    • ভাইজান, ভিন্দেশী ভাষায় কী লিখলেন বুজলাম না। পারসেন্টেজ ভাগাভাগির বৈঠকে কি আপনারে ডাকা হইছিল? এত কথা জানেন কিমুন কইরা? সশস্র বাহিনীর লোকজনের সাথে একটু আলাপ করে জেনে নিয়েন, অস্রের অপূর্ণটা নিয়ে তাদের আক্ষেপ কত? তাদের প্রশিক্ষন আরে ব্যবহৃতব্য অস্রের মধ্যে তফাৎ কত? তাছাড়া আর্মির কেনাকাটায় পলিটিশিয়ানরা কতটুকু ভাগ বসাইতে পারে একটু জেনে নিয়েন। এগুলো খাম্বা না, ফাইটার, ট্যাঙ্ক, ম্যারিন বোট।
    • correct
  • ১০
    আমাদের দেশের জন্য এত বড় সশস্ত্র বাহিণী রাখার কোন যৌক্তিকতা নেই। এদের খোর পোষের পেছনে এত টাকা ব্যয় করা অর্থহীন। এখান থেকে কিছু টাকা ব্যয় করলেই দেশে বিভিন্ন ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক মানের গবেষনাগার স্থাপন করা যায়। সশস্ত্র বাহিণীর আকার ছোট করে দেশে বাধ্যতামূলক সামরিক প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা যেতে পারে; যেন প্রয়োজনীয় মুহুর্তে আপামর জনসাধারণ যুদ্ধে অংশ নিতে পারে।
    • এতো বড় সামরিক বাহীনির বেশীর ভাগ ই জাতি সংঘ শান্তি মিশনে নিয়োজিত। যার ফলে আমরা প্রচুর বৈদেশিক মূদ্রা আয় করতেছি শুধুমাত্র সামরিক বাহীনির মাধ্যমেই। আর আপনি কি জানেন যে, বাংলাদেশ ই বিশ্বের সবচেয়ে বেশী আর্মি প্রেরনকারী রাষ্ট্র। তাই বেশী বেশী বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের জন্য আমাদের সামরিক বাহিনী আরো বড় করা দরকার।
    • 1. same people will say government did nothing to our armed forces when we will face difficulties. 2. you do not support expense of 5,00,000 armed forces size but supporting arms training of 16 crore people ? then some of them will start terrorism with the training. What a Logic ! ! ! i am impressed
  • ১৪
    দেশের সার্বভৌমত্ত রক্ষা তথা প্রতিরক্ষা বিভাগকে শক্তিশালী করার জন্য অস্ত্র-সরঞ্জাম ক্রয় করা যেতেই পারে।
    • লাইক দিলাম, ভাল কথা কইছেন।
  • ১৬
    নিজেদের নিরাপদ রাখতে হলে প্রতিরক্ষার জন্য ব্যয় করতে হবে। এর প্রয়োজন আছে।সক্ষমতার জন্য দরকার সামরিক সরঞ্জাম।তবে দাম যাই হোক না কেন, কেনাকাটা অবশ্যই স্বচ্ছ হওয়া চাই, যাতে মানুষের কোনো সন্দেহ না থাকে।
    • ১১
      যু্দ্ধটা কার সাথে করতে চাইছেন ?
    • saiful @ আপনার কাছে এটম বোমা আছে ওইটা মারার দরকার নাই, আছে জানলেই আরেক জন আপনার সাথে লাগতে আসার আগে দশ বার চিন্তা করব। এত করার পরও প্রতিবেশি দেশের মন ভরে না প্রতিদিন গুলি করে মানুষ মারে। কারণ আপনার দেশ দুবল।
  • অস্ত্র। এক আতঙ্কের নাম। একটা ভয়। এই অস্ত্রই না আবার দেশের জন্য আতঙ্কের হয়ে পড়ে !
  • Our force must have the capability. Military competencies required for military equipment. We are purchasing on n on but no goal. Bangladesh is sovereign country. But there is no Defense Policy for the country yet. But why????? Military shopping shud follow Defense Policy.
  • আমরা যুদ্ধ করব কার সাথে?
    • Ok we will dismiss our armed forces, can you guarenty us our national safety not just short term but also long term like about 20 years ?
    • you should be happy that at least this sector is getting good shape which is rare case of Bangladesh
    • শুধু মায়ানমার এর কথা চিন্তা করুন, তারা কতবার আমাদের সমুদ্রসীমা লংঘন করেছে। আমরা ধাওয়া না দিয়ে আলোচনার মাধ্রমে সমাধান করার চেষ্টা করেিছ। কিন্তু জবাব দেয়ার মতো উপযুক্ত ফায়ার পাওয়ার থাকলে তারা সমুদ্রসীমা লংঘন করার সাহস পেতনা।
  • WE HAVE HEARD THE TERMS/WORDS - TENDER BANIJJO, NIYOG BANIJJO ETC. NOW WE ARE WAITING TO HEAR THE WORD - KROY BANIJJO.
  • ২০০৮-০৯ অর্থবছর থেকে শুরু করে ২০১২-১৩ অর্থবছর—এই চার বছরে তিন বাহিনীর জন্য ১৮৮ কোটি মার্কিন ডলার বা প্রায় ১৫ হাজার ১০৪ কোটি টাকার সামরিক সরঞ্জাম কেনা হয়েছে। তাছাড়া ইতপূর্বকার অস্ত্র ক্রয় এবং ভবিষ্যৎ ক্রয় পরিকল্পনার বিশাল ফিরিস্তি দেখে অবাক লাগে কারন এগুলো কেনার পর রক্ষনাবেক্ষনের জন্যও বেয় করতে হবে প্রচুর অর্থ । আমাদের মত গরিব দেশে অর্থ বেয়ের আরও অনের প্রাইওরিটি আছে বলে আমি মনে করি ।
  • ১১
    AL is much better than BNP. They want to do something for country.
  • ১৫
    আমাদের সেনাবাহিনীর হাতে যদি পর্যাপ্ত সামরিক সরাঞ্জাম না থাকে তা হলে বাহিনী রেখে লাভ কি ? আমরা কার সাথে যুদ্ধ করব? আসে পাশে তাকালেই দেখতে পাবেন।
  • ১১
    @সৌরভ রায় (কোলকাতা)২০১৩-০৮-২৪ ০৮:৫১ via computer আপনারা যেভাবে সিমান্তে পেশী শক্তি দেখান আর মানুষ মারেন, তাতে অস্ত্র না কিনে কি কোন উপায় আছে? আমাদের দেশে একটি প্রবাদ আছে “বেড়ায় খেত খায়”
    • চোরা কারবারি বন্ধ হলেই সীমান্তে গুলি বর্ষণ বন্ধ হবে. BSF কখনোই বাংলাদেশের মধ্যে প্রবেশ করে এ্‌ই হত্যা করে না .
  • যুদ্ধটা কার সাথে ?
  • একটি দেশের নিরাপত্তার স্বার্থে অস্ত্র ক্রয় করা অবশ্যই প্রশংসনিয়। কিন্তু যে দেশের মানুষ শীতের সময় গরম কাপড়ের অভাবে মারা যায়, বিনা চিকিতসায় মারা যায়, যে দেশে আজও মানুষের মৌলিক চাহিদা পুরন হয়না সে দেশে ১৫০০০ কোটি টাকার অস্ত্র ক্রয় হাস্যকর ছাড়া আর কিছুই নয়। আমাদেরকে বাচতে সহায়তা করুন, আমাদের মৌলিক চাহিদি পুরনে সহায়তা করুন। কোন সভ্য দেশই এখন যুদ্ধ চায়না। আর আমাদেরতো তেলের খনি নেই যে আমেরিকা আমাদের উপর আক্রমন চালাবে রাষায়নিক অস্ত্র আছে বলে !!!!
    • that totally nonsense ! ! we spend only 1.5% GDP in defence, why are you obsessed with this 1.5% ? what about 98.5% of GDP ? use them properly then you will not see any type of that situation, if you can not take care of 98.5% GDP properly, do not talk about 1.5%
  • বড় বড় ডিল, বড় বড় %।
  • যুদ্ধ করি বা না করি নিজেদের নিরাপদ রাখতে হলে প্রতিরক্ষার জন্য ব্যয় করতে হবে । তবে তা েগাপনে করাটা ঠিক হয় নি ..... কারন আগে একই ভাবে অস্ত্র কিনে অভিজুগ উঠেচিল । এবার ও সেই একই প্রশন .. কমিশন নয় তু ????????? অবশ্য এটা বাংলাদেশের কালচার .......।
  • Hope to know that awamileague government has changed its policy regarding Armed Forces...!! Good for the country and people...Hope we will be more secured from any outside attack...It would be nice if we could secure our border more...
  • সাবাশ ......... পতিরক্ষা ছাড়া দেশ , হাট পা হীন পঙ্গুর মতো ।
  • এজননই পরতিবেশি দেশগুলু আওয়ামিলিগ সরকারকে কিছুটা হলেও ভয় পায় | সেনা বাহিনির শ্বংখলা বজায় রাখতে হবে | এ| সরকার সফলতার সাথে মিয়ানমার এর নিকট থেকে ১১১০০০ বরগ কিলমিটারের সমুধর বিশাল এলাকা জয় করে দেশের আয়তন বাড়িয়ে দেশকে মৎস ও খনিজ সমপদে সমরিধধ করেছে | তবে কেনা কাটায় সছচতা থাকা উচিত|
  • sob i thik ache, ja dorkar ta kinuk :) Proti bochor shoto koti taka r gola barud expire hoi jai, ogula agun a jalai dewa hoi.
  • It will be discovered after Awami govt. that all of them (weapon) are so obsolete which are kind of trash & 50% commission in govt. pocket. Why they buy from Russia only? I am positive there are some very sweet honey for these types of deal.
    • কারন রাশিয়া হচ্ছে এমন একটি দেশ যারা বাংলাদেশকে সব সময় সাপোর্ট করেছে ...... ৭১ সালে আমেরিকান নৌ বাহিনীর বিরুধে জবাবটা রাশিয়াই দিয়েছিল..........।
    • mohammad , read history , Russia was always our good friend , they saved us 4m USA navy in 1971 .
  • দেশও আমাদের সেনাবাহিনীও আমাদের। তার প্রয়োজনও মেটাতে হবে আমাদেরকেই। কিন্তু ষেঅল কোটি মানুষের বিপুল অনিশ্চয়তার মাঝে কতোটা জবাবদিহিতার মানদণ্ড ধরে রাখে নৈতিকতার বিচারে। ষোলকোটি মানুষ যদি তাদের সিনা চেতিয়ে স্ব-দেশ স্ব-জন এবং স্ব-কালকে রক্ষা করতে না পারে তবে কোন সেনাবাহিনী আছে তা করবে বা করতে পারে? শিক্ষা স্বাস্থ্য জনপরিষেবা যেখানে এখনো আধুনিক পৃথিবী থেকে লক্ষ যোজন দূরে সেখানে ধার করে বিলাস করবার রাষ্ট্রীয় নৈতিকতা আদৌ মানা সম্ভব? গাছেরটা খাওয়া আর তলারটার কুড়াবার নীতিতে এগিয়ে চলা বাহিনী স্বচ্ছতা ছাড়া গণতান্ত্রিকতার দায় কতোটা মেটাতে পারে? গর্ব যেমন আমরা করি তেমনি কালো ইতিহাসও কম নয়, সেটা বিবেচনায় না নিয়ে স্বচ্ছতাকে পাশ কাটিয়ে চলতে গেলে লক্ষ্য হাসিলের সম্ভাবনা বরাবরই কম। আর এটা রাষ্ট্রে মৌলনীতিরও পরিপন্থি বটে।
  • আমার কেন জানি মনে হচ্ছে আমরা বার্মার সাথে ভবিষ্যতে সামরিক সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ব, রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে সামরিক intervention এর কোনো বিকল্প দেখছিনা, আমি মনে করি আমাদের বিমান বাহিনীকে আরো সম্মৃদ্ধশালী করা উচিত, modern warfare এ যুদ্ধ বিমানের বিকল্প নেই. আমাদের এ কথাও মনে রাখা উচিত যে UN এর peace mission গুলিতে আমরা আমাদের সমরাস্ত্র ব্যবহার করতে পারি এমং এর জন্য আমরা উপযুক্ত পারিশ্রমিক পাবো
  • এইখানে যারা বলছেন সামরিক সরঞ্জাম কিনে কি হবে, যুদ্ধ কার সাথে করব ইত্যাদিইত্যাদি..। আল্লাহ না করুক যদি বাংলাদেশ কোনদিন আক্রান্ত হয় ঠিক তারাই বলবেন সামরিক খাতে বাজেটে বরাদ্দ টাকা দিয়ে কি ঘাশ কাটা হয় নাকি, টাকা গেসে কই ব্লা ব্লা.. অথচ দক্ষিণ এশিয়াতে বাংলাদেশ সামরিক খাতে জিডিপি পারসেনটেজ হিশেবে সবচেয়ে কম খরচ করে। এমনকি নেপালের মত দেশের চাইতেও কম পারসেনটেজ খরচ করে। Sri Lanka: 3.5% of the GDP, Pakistan: 2.7% of the GDP, India: 2.5% of the GD, Nepal: 2.0% of the GDP, Bangladesh: 1.5% of the GDP Source: http://en.wikipedia.org/wiki/List_of_countries_by_military_expenditures অস্ত্র ছাড়া আর্মি কি হাত পা নাক মুখ দিয়ে দেশ রক্ষা করবে কামান, রাইফেল, বিমানের বিরুদ্ধে? ডাবল স্ট্যান্ডার্ড মেইনটেইন না করে দেশের স্বার্থ বুঝেন।
    • যারা বলছেন সামরিক সরঞ্জাম কিনে কি হবে, তাদের উদ্দেশ্য আমার আর একটু কথা । ঘড়ে তরকারি কাটতে বটি লাগে হাত দিয়ে তা কাটা যায় না বা পাসের বাড়ির আন্টি আপনার তরকারি প্রতিদিন কেটে দেবে না .... দেশের সুরক্ষার বাবস্থা দেশকেই করতে হবে ।
  • We have need first infrastructure development for increase our GDP growth. No need unnecessary purchase Military arms & equipment's. We are a peaceful nation & we always want a peaceful world..
    • we may want peace without arms, does others think like us ?
  • so painful...our army is also corrupted!!! They're sucking people's blood money!!!
  • সংবাদের শিরোনামটিই ছিল আতংকের। পড়ে দেখি স্বাভাবিক। একটি দেশে সেনাবাহিনী থাকলে অস্ত্র লাগবেই। একটি দেশ বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হওয়ার মত দুর্নীতিবাজ থাকলে দুর্নীতি হবেই। কোনটাই অস্বাভাবিক নহে।
  • আচ্ছা এই টাকা দিয়ে সিংগাপুরের হসপিটালের মত একটা হসপিটাল করা যেতনা? ওরকম একটা হসপিটাল হলে আমাদের রুগ্ন রাষ্ট্রপতি মন্ত্রী নেতা নেত্রীদের সিংগাপুর ব্যাংককে যেয়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানোর দরকার পরত না?
  • I do strongly support to strengthen the state defence as a whole. But the problem is that we do spend the hard-earning money of the public to buy weapons that are normally obsolete - demo is MIG 29!!! Why do not we spend money on the latest military equipment??? The concerning point is also to buy from Russia because civil service along with the government of Russia is like our big brother in terms of corruption - they are much more corrupted. I do not also understand why we should buy weapons from Belarus with which we have just started to make relations. Please note that when we buy weapons from any country, it is the selling country that also gains more than the buying country!
  • রাডার (Rudder) না, রেডার। A rudder is a device used to steer a ship, boat, submarine, hovercraft, aircraft, or other conveyance that moves through a medium (generally air or water). On an aircraft the rudder is used primarily to counter adverse yaw and p-factor and is not the primary control used to turn the airplane. A rudder operates by redirecting the fluid past the hull or fuselage, thus imparting a turning or yawing motion to the craft. In basic form, a rudder is a flat plane or sheet of material attached with hinges to the craft's stern, tail, or after end. Radar is an object detection system which uses radio waves to determine the range, altitude, direction, or speed of objects. It can be used to detect aircraft, ships, spacecraft, guided missiles, motor vehicles, weather formations, and terrain. The radar dish or antenna transmits pulses of radio waves or microwaves which bounce off any object in their path. The object returns a tiny part of the wave's energy to a dish or antenna which is usually located at the same site as the transmitter.
  • মিয়ানমার এবং ভারতের প্রতিবেশি দেশ হিসেবে সামরিক খাতে ব্যয় কে অপ্রয়োজনীয় ভাবাটাই বোকামি। সাধারণ মানুষ হিসেবে আমরা খালি বলতে চাইব যে , সীমান্তে বিএসএফ বা নাসাকা যেন বাড়াবাড়ি করার আগে ভয় পায়। সমুদ্র সীমায় আমাদের জেলেরা যেন নির্ভয়ে মাছ ধরতে পারে। জলদস্যুরা যেন বাংলাদেশের জাহাজ কে এটাক করার আগে দুইবার ভাবে।
  • আমাদের দেসের ৪০%মানুষ এখন দরিদ্র। আর অস্র কেনায় খরচ হচ্ছে এত্ত টাকা। মানতেই পারছিনা।
  • ভিনদেশে কোনো শত্রুরতো কোনো আলামত নাই ( অন্তত অস্র যুদ্ধ করার মতোন ) .. তাহলে কি শুধুমাত্র ঘরের শত্রুকে মারতেই ১৫ হাজার কোটি টাকার অস্র ?? কেনোরে বাবা লাঠি , চাকু , ছুরি , রামদা এগুলো দিয়েইতো ভালো কাজ চলে ।
  • আমরা নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে এত ভাবছি, শাহিনাদের নিরাপত্তার কথা কে ভাববে?
  • বাংলাদেশ মনে হয়ে আমেরিকার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে! অথবা এই সমস্ত ব্যয় অপ্রয়জনীয় ভাবে বিমান বন্দর বানানোর উছিলা দিয়ে অর্থ লুটপাট করার পথ সুগম করার মত নতুন লুটপাটের পথ। এই ভাবেই আমাদের ভবিষ্যত লুটপাট করে নিচ্ছে ওরা।
    • only on sentence for you, study on defense.
  • Dr. Bijon I know you are well educated person. But apnar comments dekhe mone hoy apni asole AL er...nije educated hoye kivabe bolen je akti desh er morjada r evaluation hoye military power diye..ai sob bad diye parle desh er jonno valo kichu korun..ar valo ke valo ar karap ke karap bolte sikhun..don't take my comments as advice
  • সশস্ত্র বাহিনীর কেনাকাটার ব্যাপারে জানতে চেয়ে প্রথম আলোর পক্ষ থেকে গত ১ মার্চ আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) মাধ্যমে সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসারের কাছে লিখিতভাবে তথ্য চাওয়া হয়। জবাবে আইএসপিআর থেকে ২৫ মার্চ লিখিতভাবে জানানো হয়, ‘বিষয়টি জাতীয় নিরাপত্তাসংশ্লিষ্ট হওয়ায় উত্তর দেওয়া সম্ভব নয়।’ - যেইনা সমরশক্তি! তার আবার গোপনীয়তা! সবাই যেখানে নিজেদের সমরাস্ত্র নিয়ে যৌথ মহড়ায় অংশ নিয়ে নিজেদের শক্তি বিশ্বের সামনে প্রদর্শন করতে উঠে পড়ে লাগে, সেখানে এদেশের কর্মকর্তারা কি এমন বাহাদূরী গোপনীয়তা বুঝাচ্ছেন - তা বোধগম্য নয়। তবে নিজেদের উদ্ভাবিত সমরাস্ত্র হয়ে থাকলে তার গোপনীয়তার বিষয়টি না হয় গুরুত্ব পেত। অনেকেই মনে করছে পদ্মা সেতুর মত কোন ঘটনা ঘটলো কিনা তা জানার অধিকার দেশের জনগণের রয়েছে।
  • জুলাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেলারুশ সফরের সময় দুই পক্ষের মধ্যে এ-সংক্রান্ত চুক্তি হয় বলে জানা যায়। তবে সরকারিভাবে এসব চুক্তির কথা স্বীকার করা হয়নি। ----------সামরিক বাহিনীর সব প্রকাশ করা উচিত নয়, আপনারা কি এই বিষয়ও বোঝেন না
  • The Parliament should have been informed by the govt. about these purchase. Without the oversight of the parliamentary committee, there is always chance of corruption. And the bottom line is if the money is paid from tax payer's pocket, they have the right to know where it will be spent.
  • বাংলাদেশে প্রতিরক্ষা নীতি নাই এখনো, শুনতে কেমন কেমন লাগে।
  • i agree with you @milon (Gazipur)
  • বেলারুশ থেকে মানধাতা আমলের অসএ কেনার কোন মানে নেই । অযথা পয়সা জলে ফেলা !

1 comment: Leave Your Comments

  1. Hi my friends I see you talk about military spending does anyone know exact amount in USD you pay for সার্বিয়া থেকে ১৮টি স্বয়ংক্রিয় কামান (সেলফ-প্রোপেলড গানÑএসপিগান) I don't know Bengali language and I used translate who is not so I would appreciate answer and also some links to pictures of delivered Nora self propelled guns in Bangladesh if you have such pictures. Tanks in advance.

    ReplyDelete