Last update
Loading...
মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অভাবনীয় জয় পেয়েছে মালদ্বীপ ডেমোক্রেটিক পার্টির (এমডিপি) প্রার্থী মোহাম্মদ সোলিহ। প্রাথমিক ফলাফলে দেখা গেছে, তার কাছে ১৬ শতাংশ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছেন বর্তমানে প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিন। তিনি চীনপন্থি হিসেবে পরিচিত। অন্যদিকে রোববারের নির্বাচনে বিজয়ী মোহাম্মদ সোলিহ’র ওপর ভারত ও পশ্চিমা দেশগুলোর আশীর্বাদ রয়েছে। তাই মালদ্বীপের নির্বাচন হলেও চীন ও ভারতের জন্য তা গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু। আর এতে চূড়ান্তভাবে ভারতীয় আধিপত্যেরই বিজয়গাথা রচিত হয়েছে।
বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, এমডিপি ৫৮ শতাংশ ভোট পেয়ে সরকার গঠন করতে চলেছে। সবকিছু ঠিক থাকলে নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেবেন এমডিপির প্রধান ইব্রাহিম মোহাম্মদ সোলিহ। নির্বাচনের ফলাফল মেনে পরাজয় স্বীকার করেছেন বর্তমান প্রেসিডেন্ট আব্দুল্লাহ ইয়ামিন। অনানুষ্ঠানিক ফলাফলে দেখা গেছে, মোহাম্মদ সোলিহ ১ লাখ ৩৪ হাজার ৬১৬ ভোট পেয়েছেন। বিপরীতে প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিন পেয়েছেন ৯৬ হাজার ১৩২ ভোট। নির্বাচন কমিশনের হিসাব অনুযায়ী, রোববারের নির্বাচনে মালদ্বীপের প্রায় ৮৯ শতাংশ ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে ভোটাররা ভোটকেন্দ্রে হাজির হন। ব্যাপক ভোটারের উপস্থিতি দেখে নির্বাচন কমিশন ভোট গ্রহণের সময় তিন ঘণ্টা বাড়িয়ে দেয়। শান্তিপূর্ণ ভোটগ্রহণ শেষে গতকাল প্রাথমিক ফলাফল ঘোষণা করা হয়। এতে নির্বাচন কমিশন এমডিপিকে বিজয়ী ঘোষণা করে। ফলাফল মেনে নিয়ে বিজয়ী দল এমডিপির প্রধান মোহাম্মদ সোলিহর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তাকে অভিনন্দন জানান বর্তমান প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিন।
পরে জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে আবদুল্লাহ ইয়ামিন বলেন, মালদ্বীপের জনগণের নিজস্ব মতামত রয়েছে। আমি হার মেনে নিচ্ছি। একইসঙ্গে তিনি দাবি করেন, ক্ষমতাকালে তিনি তার সবটুকু দিয়ে মালদ্বীপের মানুষের জন্য কাজ করেছেন। বিশেষ করে দেশটির অর্থনৈতিক উন্নয়নের কথা তুলে ধরেন তিনি। ইয়ামিন জানান, তিনি তার ক্ষমতার মেয়াদ শেষ করবেন। সে অনুযায়ী এ বছরের ১৭ই নভেম্বর পর্যন্ত মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট পদে অধিষ্ঠিত থাকবেন তিনি। রাষ্ট্র পরিচালনায় ইসলামি আইনের ব্যাপক ব্যাবহার করেছেন ইয়ামিন। তার আমলে দেশটির উল্লেখযোগ্য অর্থনৈতিক উন্নয়ন সাধিত হয়। তবে একইসঙ্গে কট্টোর আইন ও বিরোধী মত বন্ধে নানা পদক্ষেপ নিয়ে দেশে-বিদেশে ব্যাপক সমালোচিতও হয়েছেন তিনি।
প্রসঙ্গত, মালদ্বীপে প্রভাব বিস্তার নিয়ে চীন ও ভারতের মধ্যে দীর্ঘদিনের দ্বন্দ্ব রয়েছে। এবারের নির্বাচনী প্রচারণাতেও ভারত ও চীন সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো অগ্রাধিকার পেয়েছে। এদিক দিয়ে মালদ্বীপের নির্বাচনে অনেকটা মুখোমুখি অবস্থানে ছিল ভারত ও চীন। তবে রোববারের নির্বাচন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ইউরোপিয় ইউনিয়ন ও যুক্তরাষ্ট্র। তারা মালদ্বীপের গণতান্ত্রিক পরিস্থিতির যদি উন্নতি না হলে দেশটির বিরুদ্ধে অবরোধের হুমকি দিয়েছে।
এদিকে, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে প্রেসিডেন্ট ইয়ামিনের বিরুদ্ধে বিরোধীদের ওপর নির্যাতনের স্টিম রোলার চালানোর অভিযোগ রয়েছে। স্থানীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, ভোটের আগে বিরোধীদের প্রধান কার্যালয়গুলো ঘেরাও করে তল্লাশি করেছে পুলিশ। এছাড়া, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে মালদ্বীপে প্রবল রাজনৈতিক উত্তেজনা দেখা দেয়।
ফেব্রুয়ারিতে দেশটির সুপ্রিম কোর্ট নির্বাসনে থাকা সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ নাশিদসহ বিরোধীদলীয় ৯ জনের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ বাতিল করে দেয়। কিন্তু প্রেসিডেন্ট ইয়ামিন জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেন। ওই অভিযোগ বাতিল করে দেয়া দু’জন বিচারকের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা দেন। তার গৃহীত কর্মকাণ্ডে সমালোচনার ঝড় ওঠে ওয়াশিংটন, লন্ডন ও নয়াদিল্লিতে। ভারতের অনেকে ছোট্ট এই দেশটিতে হস্তক্ষেপের দাবি জানান। এমনকি নির্বাসন থেকে সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ নাশিদ সামরিক হস্তক্ষেপের দাবি জানান ভারতের প্রতি।
কিন্তু ইয়ামিনের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয় চীন। তারা এটিকে ভারত মহাসাগরে নতুন বাণিজ্যিক রুট তৈরি ও প্রভাব বিস্তারের জন্য বড় সুযোগ হিসেবে গ্রহণ করে। ক্রমেই মালদ্বীপের ওপর প্রভাব বৃদ্ধি করে চীন। অনেকদিন ধরেই দেশটি পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা ও মালদ্বীপে কোটি কোটি ডলার বিনিয়োগ করছে। এর মধ্য দিয়ে এসব দেশের গুরুত্বপূর্ণ সব বন্দরের পরিচালনার দায়িত্ব নেয়ার চেষ্টা করে তারা। প্রেসিডেন্ট ইয়ামিনের অধীনে মালদ্বীপ বড় বড় প্রকল্পগুলোতে চীনা অর্থকে স্বাগত জানায়। তারা চীনের সঙ্গে একটি মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি স্বাক্ষর করে। ফলে আবদুল্লাহ ইয়ামিনের শাসনামলে অন্য যেকোনো দেশের চেয়ে চীন মালদ্বীপে অধিক প্রভাব বিস্তার করার সুযোগ পায়। কিন্তু রোববারের নির্বাচনে মোহাম্মদ সোলিহ এর বিজয়ের ফলে চীনের এ আধিপত্য হুমকির মুখে পড়েছে।
দুর্নীতিবাজরা জোট করে সরকার উৎখাতের চেষ্টা করছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, খুনি, অর্থ পাচারকারী এবং সুদখোররা আওয়ামী লীগ সরকারের বিরুদ্ধে একজোট হয়েছে, এরা ক্ষমতায় এলে দেশকে ধ্বংস করে ফেলবে। এরা দেশের সম্পদ লুটে খেয়েছে, এরা  ক্ষমতায় গেলে স্বাধীনতাবিরোধীদের সঙ্গে মিলে দেশ ধ্বংস করবে। কাজেই জনগণকে তাদের সম্পর্কে চিন্তা করতে হবে।’ যুক্তরাষ্ট্রে তার সম্মানে প্রবাসী বাংলাদেশিদের আয়োজনে অনুষ্ঠিত নাগরিক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী এ সময় নির্বাচনকে সামনে রেখে ড. কামাল হোসেন এবং বদরুদ্দোজা চৌধুরীর সরকারবিরোধী জোটের কঠোর সমালোচনা করে প্রশ্ন তোলেন, দুর্নীতিবাজদের সঙ্গে নিয়ে তারা কিভাবে দুর্নীতিকে প্রতিরোধ করবেন?
তিনি বলেন, খালেদা জিয়া এবং তার পুত্র তারেক রহমান দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত হয়েছেন এবং তারা যে অর্থ বিদেশে পাচার করেছে তা আমরা ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছি। এখন ড. কামাল হোসেন, বদরুদ্দোজা চৌধুরী এবং মাহমুদুর রহমান মান্না এই দুর্নীতিবাজদেরই সঙ্গে নিয়ে লড়াইয়ে নেমেছেন। ড. মুহাম্মদ ইউনূসের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নোবেল প্রাইজ পাওয়ার পরও তিনি গ্রামীণ ব্যাংকের এমডি পদ ছাড়েন না। দরিদ্রদের উচ্চসুদে ঋণ দিয়ে তিনি এখন বড়লোক হয়েছেন। হিলারি ক্লিনটনের সহযোগিতায় ড. ইউনূস পদ্মা সেতুতে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়ন বন্ধ করেছে দাবি করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় আমাকে গ্রেপ্তারের পর তিনি (ইউনূস) ইয়াজউদ্দীন নেতৃত্বাধীন সরকারকে ডাবল এ প্লাস মার্ক দিয়েছিলেন। শেখ হাসিনা বলেন, এরা সব এক জায়গায়। কেউ সুদখোর, কেউ ঘুষখোর, কেউ মানি লন্ডারিংয়ের দায়ে অভিযুক্ত, কেউ খুনি। এভাবে সব আজকে এক জায়গায়। প্রধানমন্ত্রী বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মইনুল হোসেন এবং বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদ নতুন জোটকে সমর্থন দিয়েছেন কিন্তু অতীতে তারা দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত হয়েছিলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, মইনুল হোসেন কাকরাইলের বাড়ির জমি দখল করেছিলেন, সে জায়গা নিয়ে মামলা আছে।
সাজু হোসেন বনাম রাষ্ট্র ওই মামলায় তিনি সাজাপ্রাপ্ত। আর ‘ভুয়া’ আমমোক্তারনামা তৈরি করে এক মৃত ব্যক্তির সম্পত্তি নিজের ভাইয়ের নামে দখল নেয়ার ঘটনায় বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদ অভিযুক্ত। কিন্তু তৎকালীন সামরিক শাসক এইচ এম এরশাদ তাকে ক্ষমা করে দিয়ে নিজের সরকারে অন্তর্ভুক্ত করেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই সমস্ত দুর্নীতিবাজকে নিয়ে দুর্নীতির বিরুদ্ধে যারা কথা বলেন, তারা লড়াই করবেন! কামাল হোসেন লড়াই করবেন? বি চৌধুরী লড়াই করবেন? মান্না লড়াই করবে? যুক্তফ্রন্ট প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তারা কেন সরকারকে উৎখাত করবে? কারণটা কী? দেশের জন্য আমরা কি করি নাই? এমন কোনো খাত নেই, যেখানে উন্নয়ন করি নাই। আরে এটা আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলেই সম্ভব।
স্থানীয় সময় রোববার সন্ধ্যায় নিউইয়র্কের মিডটাউনের হিলটন হোটেলে অনুষ্ঠিত সংবর্ধনায় আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী, আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ বক্তৃতা করেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান। প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক এবং সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দিপু মনি এ সময় অন্যদের মধ্যে মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন।
আওয়ামী লীগ সভাপতিকে নিয়ে বিব্রতকর পরিস্থিতি: এদিকে সংবর্ধনা চলাকালে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমানকে নিয়ে বিব্রতকর অবস্থা তৈরি হয়। প্রধানমন্ত্রী মঞ্চে অবস্থানকালে সিদ্দিকুর রহমান সভাপতির বক্তব্য দেয়ার জন্য চেষ্টা করলেও উপস্থিত নেতাকর্মীদের বাধার কারণে তিনি আর বক্তব্য চালিয়ে যেতে পারেননি। এ সময় উপস্থিত নেতাকর্মীরা ভুয়া ভুয়া বলে স্লোগান দিতে থাকেন। এছাড়া তারা বলেন, ‘নো মোর সিদ্দিক’। উদ্ভূত পরিস্থিতি সামাল দিতে কেন্দ্রীয় নেতারা চেষ্টা করলেও তারা নেতাকর্মীদের থামাতে পারেননি। প্রধানমন্ত্রী প্রায় এক ঘণ্টা বক্তব্য রাখেন। তার বক্তব্য শেষেও নেতাকর্মীরা ড. সিদ্দিকুর রহমানের বিরুদ্ধে স্লোগান দেন।
বিএনপির বিক্ষোভ: এদিকে হিলটন হোটেলে প্রধানমন্ত্রীর সংবর্ধনা চলাকালে বাইরে বিএনপি ও বিরোধী জোটের নেতাকর্মীরা অবস্থান নিয়ে বিভিন্ন স্লোগান দেন। তাদের হাতে থাকা প্ল্যাকার্ডে লেখা ছিল ‘গো ব্যাক হাসিনা’। যদিও যুক্তরাষ্ট্রে বিএনপির কোনো কমিটি নেই। তবে দলটির সমর্থকদের বিভিন্ন গ্রুপ এই বিক্ষোভে অংশ নেয়। এছাড়া বিমানবন্দরেও তাদের একটি অংশ প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখায়।
জেলার নড়িয়া উপজেলার পদ্মার ভাঙনের তীব্রতা কমলেও আতঙ্ক কাটেনি ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের। পানি কমতে শুরু করলেও আবার ভাঙনের ভয়াবহ রূপ নিতে পারে- এমন আশঙ্কা করছে নদী তীরের ক্ষতিগ্রস্ত বসবাসকারী মানুষ। আতঙ্কে পদ্মার পাড়ের শত শত পরিবার অন্যত্র চলে যাচ্ছে। এদিকে নদীর গতিপথ পরিবর্তনের জন্য ড্রেজিংয়ের জাহাজ নড়িয়া পদ্মার পাড়ে চলে এসেছে। আরো দুইটি ড্রেজিংয়ের জাহাজ যথা সময়ের মধ্য চলে আসবে। পানি কমার সঙ্গে সঙ্গে বেড়িবাঁধের কাজ শুরু হবে। পদ্মার ভাঙন অব্যাহত রয়েছে।
থেমে থেমে মানুষের ঘরবাড়ি পদ্মার ভাঙনে বিলীন হচ্ছে। দ্রুত বাড়িঘর সরিয়ে নিয়েছে। নড়িয়ার তিনটি ইউনিয়ন মধ্য মোক্তাকারের চর, কেদারপুর, ঘড়িষার। এর মধ্যে বেশ ক্ষতি হয়েছে কেদারপুর, ও মোক্তাকারের চর এই ইউনিয়নের ১২টি গ্রাম ও একটি পৌরসভার ২নং ও ৪নং ওয়ার্ডেরসহ প্রায় ৭ হাজার মানুষের ঘরবাড়ি পদ্মার গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। পদ্মার পাড়ের তারা মিয়া বেপারী, মোজাফর হাওলাদার, লক্ষ্মী দত্ত, আব্বাস খান, আবদুল কাদির শেখ ও শাজাহান সিকদারের স্ত্রী সকিনা বেগম বলেন, এ বছর বর্ষা মৌসুম থেকে শুরু করে নড়িয়া দুইটি ইউনিয়নের একটি পৌরসভার আংশিক ও নড়িয়া ৫০ শয্যা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্স (নতুন) ভবনসহ অসংখ্য মানুষের ঘরবাড়ি, দালানকোঠা বিলীন হয়ে গেল। কেদারপুর ইউপি সদস্য রফিক উদ্দীন বলেন, মানুষের চোখের সামনে বাপ-দাদার ভিটাবাড়ি ও ২শ’ বছরের কবর ও মসজিদ এবং মন্দির ও শ্মশান পদ্মার ভাঙনে বিলীন হয়ে গেল। অনেকের বহুতল ভবন, লাইফ কেয়ার ক্লিনিক, দেওয়ান শপিংমল, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, সরকারি বেসরকারি স্থাপনা বিলীন গেছে। ক্ষতিগ্রস্তরা আত্মীয়-স্বজনের বাড়ি, কেউ ভাড়া বাড়ি কেউ রাস্তার পাশে, স্কুল মাঠে, কেউ মানুষের জমি ভাড়া করে উঠাইছে, কেউ খোলা আকাশের নিচে ঝুপড়ি করে মানবেতর জীবনযাপন করছে।
সরকারি হিসাব অনুযায়ী গত ২/৩ মাসে ৫ হাজার ৮১ ও বেশি ক্ষতিগ্রস্ত। পদ্মার এমন ভয়ঙ্কর রূপ ১ বছরে কেউ এই রকম দেখিনি। এ দিকে গত অর্থ বছরে প্রধানমন্ত্রীর একনেকের মিটিং এ ১ হাজার ৯৭ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন। এ ছাড়া ভাঙন ঠেকানোর জন্য অতিরিক্ত ৮ কোটি, ২০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। শরীয়তপুর জেলার নির্বাহী প্রকৌশলী পানি উন্নয়ন বোর্ড প্রকাশ কৃষ্ণ সরকার বলেন, আসা করি এখন পানি কমবে এবং নদীর স্রোতও অনুকূলে চলে আসবে। সরকারের নির্দেশে আমরা ড্রেজিং কাজ শুরু করতে পারবো। নড়িয়া উপজেলার নির্বাহী অফিসার সানজিদা ইয়াসমিন বলেন, পদ্মার ভাঙনে বাপ-দাদার ভিটাবাড়ি ঘর ভেঙে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন।
সরকারের পক্ষ থেকে ত্রাণ তৎপরতা অব্যাহত আছে। প্রতিদিন বিভিন্ন পয়েন্টে আমরা ত্রাণ দিচ্ছি যেমন গত রোববার মোক্তাকারের চর ২০০০ হাজার প্যাকেট শুকনা খাবার ও পৌরসভার ২নং ও ৪নং ওয়াডে ১৭০০ পরিবারকে ৩০ কেজি করে চাল দিয়েছি। গতকাল ন্যাশনাল ব্যাংক ত্রাণ দিবে। এই জন্য আমরা আগামীকাল ৩০ কেজি করে বাকিদের দিবো এমনি ভাবে সরকারের নির্দেশে চার মাস ক্ষতিগ্রস্তরা চাল পাবে।
শরীয়তপুর জেলা প্রশাসক কাজী আবু তাহের বলেন, নড়িয়া উপজেলায় পদ্মা নদীর ডান তীর ভাঙনে মানুষের ভিটেবাড়ি ঘর দরজা সব নিঃস্ব হয়ে গেছে। বিধায় সরকারে পক্ষ থেকে পর্যাপ্ত পরিমাণ ত্রাণ তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।
ন্যায় বিচার পাবেন না- এমন আশঙ্কার কথা জানিয়ে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলার বিচারকের প্রতি অনাস্থা জানিয়েছেন এই মামলার দুই আসামি জিয়াউল ইসলাম মুন্না ও মনিরুল ইসলাম খান। গতকাল নাজিমউদ্দিন রোডের পরিত্যক্ত কারাগারের বিশেষ আদালতে তাদের পক্ষে আইনজীবীরা এ অনাস্থার কথা জানান। অনাস্থা জানানোর পরপরই আসামি জিয়াউল ইসলাম মুন্নার অন্তর্বর্তীকালীন জামিন নাকচ করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন ঢাকার পঞ্চম বিশেষ জজ আদালতের বিচারক ড. মো. আখতারুজ্জামান। আদালতে জিয়াউল ইসলাম মুন্নার পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো. আমিনুল ইসলাম। মনিরুল ইসলাম খানের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মো. আখতারুজ্জামান।
এদিকে এ মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে বিচারকার্যক্রম চলার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে উচ্চ আদালতে আবেদন করা হবে জানিয়ে শুনানি মুলতবির আবেদন করেন খালেদার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া। তবে, এ আবেদনে সাড়া দেননি আদালত। একই সঙ্গে খালেদা জিয়ার জামিন বর্ধিতকরণ ও তাকে বিশেষায়িত কোনো হাসপাতালে চিকিৎসার আবেদন জানান আইনজীবীরা। আদালত তার আদেশে জামিন বর্ধিতকরণের আবেদন মঞ্জুর করে কারাবিধি অনুযায়ী খালেদা জিয়ার চিকিৎসার বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়ার আদেশ দিয়ে মঙ্গলবার (আজ) ধার্য দিনে এই মামলায় যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের আদেশ দেন।
এদিকে নাজিমউদ্দিন রোডের পরিত্যক্ত কারাগারে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলার বিচারকার্যক্রম নিয়ে সম্প্রতি খালেদা জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া ও বিএনপিপন্থি বুদ্ধিজীবী ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর মোবাইল কথোপকথনের বিষয়টি নিয়ে গতকাল আদালতে একাধিকবার উভয়পক্ষের আইনজীবীরা তর্কে জড়ান। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল বলেন, ‘আদালতের ভেতরে-বাইরে অনেক সংকট তৈরির চেষ্টা হচ্ছে। ষড়যন্ত্র হচ্ছে। একজন বুদ্ধিজীবী ও সিনিয়র মানুষ কখনো আদালতে না যাওয়ার জন্য এভাবে কোনো আইনজীবীকে পরামর্শ দিতে পারেন না।’ খালেদা জিয়ার আইনজীবী মাসুদ আহমেদ তালুকদার বলেন, ‘একজন ‘অর্ডিনারি’ ব্যক্তি পরামর্শ দিলেই আমরা সেই পরামর্শ শুনতে বাধ্য নই। আমরা তার কথায় কিছু করি না।’
এর আগে গত ২০শে সেপ্টেম্বর এক আদেশে খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতেই জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলার বিচারকাজ চলবে বলে আদেশ দিয়ে ২৪, ২৫ ও ২৬শে সেপ্টেম্বর অসমাপ্ত যুক্তিতর্কের শুনানির জন্য দিন ধার্য রাখেন আদালতের বিচারক। জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলার বিচারকাজ নাজিমউদ্দিন রোডের পরিত্যক্ত কারাগারের ভেতরে প্রশাসনিক ভবনের একটি কক্ষে স্থাপিত বিশেষ আদালতে চলছে। গত ৮ই ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় ৫ বছরের কারাদণ্ডের রায় হওয়ার পর থেকে খালেদা জিয়াকে রাখা হয়েছে পরিত্যক্ত এই কারাগারে। জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের নামে অবৈধভাবে ৩ কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা লেনদেনের অভিযোগে খালেদা জিয়াসহ চারজনের বিরুদ্ধে ২০১০ সালের ৮ই আগস্ট রাজধানীর তেজগাঁও থানায় এ মামলাটি দায়ের করে দুদক। এ মামলার অন্য আসামিরা হলেন- খালেদা জিয়ার সাবেক রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী, বিআইডব্লিউটিএ’র নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক পুলিশের সাবেক ভারপ্রাপ্ত পরিচালক জিয়াউল ইসলাম মুন্না ও ঢাকার সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার সাবেক একান্ত সচিব মনিরুল ইসলাম খান।
গতকাল ১১টা ১০ মিনিটে আদালতের কার্যক্রম শুরু হলে আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া খালেদা জিয়ার জামিন বর্ধিতকরণ ও তাকে বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়ার নির্দেশনা চেয়ে আবেদন করেন। শুনানিতে আদালতের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘কারাগারে থাকা কোনো আসামি অসুস্থ হলে জেল কোড অনুযায়ী তাকে দ্রুত চিকিৎসা দেয়ার নিয়ম। আগে খালেদা জিয়ার চিকিৎসার ব্যবস্থা করুন। এরপরই তিনি বিচার কার্যক্রমে অংশ নেবেন।’ তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়ার কাস্টডিয়ান আপনি। তার অবস্থা দিন দিন খারাপ হচ্ছে। সরকারও কোনো দায়িত্ব নিচ্ছে না। এখন আপনি যদি জেল কোডের দোহাই দিয়ে বিষয়টি এড়িয়ে যান তাহলে আমরা যাবো কোথায়? আপনি দ্রুত কোনো স্পেশালিস্ট হাসপাতালে তার চিকিৎসার আদেশ দিন। উনি সুস্থ হয়েই আদালতে আসবেন।’
খালেদা জিয়ার অন্য আইনজীবী মাসুদ আহমেদ তালুকদার আদালতের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘ফৌজদারি কার্যবিধির ৫৪০ (এ) ধারা অনুযায়ী তার অনুপস্থিতিতে বিচারের যে আদেশ দিয়েছেন এর বিরুদ্ধে আমরা উচ্চ আদালতে আজই (গতকাল) আবেদন করবো।’ খালেদা জিয়ার চিকিৎসার ব্যবস্থা এবং আদালতের কার্যক্রম মুলতবি চেয়ে মাসুদ আহমেদ তালুকদার বলেন, ‘একজন অসুস্থ মানুষের বিচার করার জন্য প্রসিকিউশনের এত তাড়াহুড়ো কেন?’
শুনানিতে দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল বলেন, ‘আসামিপক্ষ বলছে তারা উচ্চ আদালতে যাবে। যদি উচ্চ আদালত থেকে তারা কোনো আদেশ আনতে পারে তখন না হয় বিষয়টি দেখা যাবে। যুক্তিতর্কের শুনানি শুরু হোক।’ আদালতের ভেতরে-বাইরে অনেক ষড়যন্ত্র হচ্ছে উল্লেখ করে দুদকের আইনজীবী বলেন, ‘উনারা (আসামিপক্ষের আইনজীবী) বলছেন, খালেদা জিয়া যেদিন সুস্থ হবেন সেদিনই তিনি আদালতে আসবেন। কিন্তু এরকম তো কোনো আইন নেই।’
জিয়াউল ইসলাম মুন্নার আইনজীবী আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘বকশীবাজারে আদালতের যে অবস্থা ছিল, এখানেও সেই একই অবস্থা। গত তারিখে যে আদেশটি (খালেদার অনুপস্থিতিতে বিচারকাজ) দেয়া হয়েছে সেটি আইনসিদ্ধ হয়নি এবং আজকেও আদালতে কোরাম হয়নি। আমরা আজকেই (গতকাল) উচ্চ আদালতে যাবো।’ তিনি বলেন, ‘যেহেতু এই মামলার বিষয়বস্তু এক আদেশও একই দিচ্ছেন তাই ফৌজদারি কার্যবিধির ৫৪০ (এ) এর যে ব্যাখ্যা সেটির অপব্যাখ্যা হয়েছে বলে আমি মনে করি। উচ্চ আদালতে এটির যথার্থ বিশ্লেষণ করা দরকার।’
মনিরুল ইসলাম খানের আইনজীবী মো. আখতারুজ্জামান বলেন, ‘আমাদের কোনো কথা ওই আদেশে (খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে বিচার) নেই। শুধু পিপি’র বক্তব্য লেখা হয়েছে আদেশে। আর বিদেশি আদালতের যেসব উদাহরণ দেয়া হয়েছে সেটি আমাদের এখানকার আদালতের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়। আমরা আইনজীবী হিসেবে আসামিকে যদি কোনো সুবিধা দিতে না পারি তাহলে এখানে আমাদের করার কিছুই নেই।’
এ সময় দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল বলেন, ‘যদি ওনারা যুক্তিতর্ক না করেন, আর উচ্চ আদালত যদি কোনো স্থগিতাদেশ না দেন তাহলে রায়ের জন্য দিন ধার্য করা হোক।’ তিনি বলেন, ‘এটি আসামিপক্ষের আইনজীবীদের প্রতি বাইরের নির্দেশ মাত্র। এই আদালত ও বিচারকার্যক্রম নিয়ে ষড়যন্ত্রের প্রতিফলন হচ্ছে।’ একপর্যায়ে তর্কে জড়ান উভয়পক্ষের আইনজীবীরা।
আসামিপক্ষের আইনজীবী আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘বাইরের নির্দেশ পান তো আপনারা।’
মোশাররফ হোসেন কাজল বলেন, ‘ষড়যন্ত্র কোথায় হচ্ছে তা আমরা যেমন জানি দেশের ১৬ কোটি মানুষও জানে। এভাবে একজন বুদ্ধিজীবী সিনিয়র মানুষ (ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী) সানাউল্লাহ মিয়াকে আদালত বর্জনের পরামর্শ দিতে পারেন না।’
মাসুদ আহমেদ তালুকদার বলেন, ‘একজন পরামর্শ দিয়েছে মাত্র। কিন্তু আমরা কি তার পরামর্শ মানতে বাধ্য? একজন ‘অর্ডিনারি’ মানুষের কথায় আমরা কিছু করি না।’
দুদকের আইনজীবী বলেন, ‘কোথা থেকে কি হচ্ছে আমরা তা জানি। আদালতকে নিয়ে ব্যঙ্গ করা হচ্ছে। আদালতকে নিয়ে এ ধরনের বুদ্ধিজীবীরা কথা বলেন। আমাদের লজ্জা হয়।’ বিচারকের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘যুক্তিতর্কের শুনানির জন্য ২৫ ও ২৬শে সেপ্টেম্বর ধার্য তারিখ আছে। আপনি অপেক্ষা করুন। যদি তারা শুনানিতে না আসে তাহলে রায়ের তারিখ ধার্য করুন।’
মাসুদ আহমেদ তালুকদার বলেন, ‘আদালতের পিপি রাজনীতির ভাষায় কথা বলতে পারেন না। এভাবে আমরা আইনজীবীরা বাইরের মানুষকে রাজনীতির ভাষায় কথা বলতে উৎসাহিত করছি। একপর্যায়ে বিচারক যুক্তিতর্কের শুনানির জন্য আদেশ দেন।’ এতে আপত্তি জানান আসামিপক্ষের আইনজীবীরা। জিয়াউল ইসলাম মুন্নার আইনজীবী আমিনুল ইসলাম আবেদন দাখিল করে বলেন, ‘এই আদালতের প্রতি আমার আস্থা নেই। আদালত ও বিচারক পরিবর্তনের জন্য উচ্চ আদালতে আবেদন করবো। সে জন্য ২০ দিন সময় চাই। পাশাপাশি মনিরুল ইসলামের আইনজীবী মো. আখতারুজ্জামানও তার অনাস্থার কথা আদালতকে জানান।’
এসময় দুদকের আইনজীবী বলেন, ‘উনারা আদালতের প্রতি অনাস্থা জ্ঞাপন করবেন আবার জামিন বর্ধিতকরণের আবেদনও করবেন। আদালতের প্রতি অনাস্থা থাকলে তো জামিনের কোনো অধিকার থাকে না।’
একপর্যায়ে আদালতের বিচারক জিয়াউল ইসলাম মুন্নার আইনজীবীর উদ্দেশ্যে বলেন, যদি এই পিটিশনই দেবেন তাহলে আপনারা শুনানি করলেন কেন?
আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘আদালতের প্রতি অনাস্থা জানানো আসামির আইনগত অধিকার।’ শুনানি নিয়ে আদালতের বিচারক আদেশে জিয়াউল ইসলাম মুন্নার জামিন বাতিল করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। একই সঙ্গে খালেদা জিয়ার জামিন বর্ধিত করে তার চিকিৎসা বিষয়ে কারাবিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়ার আদেশ দিয়ে মঙ্গলবার (আজ) পর্যন্ত মামলার কার্যক্রম মুলতবির আদেশ দেন বিচারক।
মোবাইল ফোন চুরির অভিযোগে বিচারের নামে আটকে রেখে দুই কিশোরীকে পালাক্রমে ধর্ষণ করেছে ৮ যুবক। রক্তাক্ত অবস্থায় দুই কিশোরীকে উদ্ধারের পর পুলিশ ৬ যুবককে গ্রেপ্তার করেছে। পলাতক রয়েছে আরো দুই যুবক। রোববার দিনগত রাতে চট্টগ্রাম মহানগরীর নিউ মার্কেট মোড়ের জলসা মার্কেটের নবম তলার ছাদে দুই কিশোরীকে ধর্ষণের এই ঘটনা ঘটে বলে জানান কোতোয়ালি থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন।
ধর্ষিত দুই কিশোরীর নাম গোপন রাখা হলেও ঘটনায় জড়িত যুবকদের নাম বলেছেন ওসি। এরমধ্যে গ্রেপ্তারকৃত ৬ যুবক হচ্ছে-
জাহাঙ্গীর আলম (২৪), ফারুক (২৭), আব্দুল আউয়াল ওরফে ডালিম (৩০), কবির (২৭), বাবলু (২৮) ও সেলিম (৩৫)। আর পলাতক দুই যুবক হচ্ছে- রুবেল (২৫) ও এনাম (২৭)।
ওসি মোহাম্মদ মহসীন বলেন, ১৭ বছরের এক তরুণী আগে থেকে জলসা মার্কেটে চাকরি করতো। ওই মার্কেটের ৫ম তলার জয়ন্তী বোরকা হাউসের মালিক রাশেদ তাকে জানায়, তার দোকানের জন্য একজন মহিলা কর্মচারী লাগবে। সে হিসেবে ওই তরুণী ১৬ বছর বয়সী তার এক বান্ধবীকে নিয়ে রোববার দুপুর ২টার দিকে রাশেদের দোকানে যায়।
কথা বলে চলে আসার সময় রাশেদের দোকানের এক মেয়ের মোবাইল হারিয়ে গেছে বলে ডালিম ও সেলিম নামের দুজন তাদেরকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করে। সন্ধ্যা ৬টার দিকে প্রথমে রাশেদের রুমে বসিয়ে মোবাইল চুরি করেছে কিনা জানতে চাওয়া হয়। এরপর সেলিমের দোকানে নিয়ে যাওয়া হয়।
এরপর সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে বিচারের কথা বলে দুই কিশোরীকে জলসা মার্কেটের ৯ম তলার ছাদে নিয়ে যায় তারা। সেখানে আটজনই পালাক্রমে দুই কিশোরীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পালাক্রমে ধর্ষণে রক্তাক্ত হওয়ার পর তারা দুই কিশোরীকে মুমূর্ষু অবস্থায় ছাদে রেখে যায়।
এদিকে বাড়ি থেকে বের হওয়ার দীর্ঘক্ষণ পরও ঘরে না ফেরায় ১৭ বছরের ওই তরুণীর মা রাত সাড়ে ১০টার দিকে জলসা মার্কেটে যান। সেখানে সমিতির লোকজনদের বলার পর খোঁজাখুঁজি করে মার্কেটের ছাদে গিয়ে তার মেয়ে ও মেয়ের বান্ধবীর খোঁজ পান। এ সময় তারা অসুস্থ অবস্থায় সেখানে পড়ে ছিল।
খবর পেয়ে কোতোয়ালি থানার টহল পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে দুই কিশোরীকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে রাত দুইটার দিকে ৮ ধর্ষকের ৬ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। টের পেয়ে দুই ধর্ষক পালিয়ে যায় বলে জানান কোতোয়ালি থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন।
বাংলাদেশে নির্বাচনের বছর এটা। আর ভোটের কয়েক মাস আগে থেকেই ভারতে আসতে শুরু করেছেন আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টির নেতারা। তুলনায় বড় দলগুলো যেমন আসছে, তেমনি তরিকত ফেডারেশন বা জাকের পার্টির মতো ছোট দলগুলোও বাদ পড়ছে না।
কিন্তু দিল্লিতে ঠিক কী ধরনের কর্মসূচি নিয়ে আসছেন বাংলাদেশের রাজনীতিবিদরা? ভোটের বছরে ভারতের রাজধানীতে এসে ভারতীয় নেতা-মন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক করে তাদের আদৌ কি কোনও লাভ হচ্ছে?
প্রথম কথা হলো, বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই বাংলাদেশের এই নেতারা দিল্লি আসছেন ভারতেরই আমন্ত্রণে। কখনও আমন্ত্রণটা জানাচ্ছে ভারত সরকার নিজে (যেমন জেনারেল এরশাদের বাড়িতে গিয়ে আমন্ত্রণপত্র পৌঁছে দিয়েছিলেন ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় রাষ্ট্রদূত হর্ষবর্ধন শ্রিংলা), কখনও বা ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীন সংস্থা আইসিসিআর (সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী হাসিনার উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম বা জাকের পার্টির নেতৃত্বকে তারাই দাওয়াত দিয়েছিল।)
আবার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে যে প্রতিনিধিদলটি দিল্লি ঘুরে গেল, তারা এসেছিলেন ভারতে ক্ষমতাসীন দল বিজেপির আমন্ত্রণে। গত জুনের গোড়ায় বিএনপির তিন নেতার বহুচর্চিত ভারত সফর ছিল সম্পূর্ণ তাদের ব্যক্তিগত উদ্যোগে।
দিল্লিতে পা রাখার পর এই নেতাদের সঙ্গে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বৈঠক একরকম অবধারিত। বাংলাদেশের নেতাদের ওজন বুঝে কখনও সেই বৈঠক হয় ক্যাবিনেট মন্ত্রীদের সঙ্গে, আবার কখনও বা প্রতিমন্ত্রীদের সঙ্গে।
অর্থাৎ বাংলাদেশের সাবেক রাষ্ট্রপতি হিসেবে এইচ এম এরশাদ কিংবা প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা হিসেবে এইচ টি ইমামরা যখন সুষমা স্বরাজ-রাজনাথ সিংদের সঙ্গে একান্ত আলোচনায় বসছেন, তখন তরিকত ফেডারেশনের নেতৃত্বকে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কিরেন রিজিজুর সঙ্গে অথবা জাকের পার্টির নেতাদের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম জে আকবরের সঙ্গে বৈঠকে বসতে দেখা যাচ্ছে।
এম জে আকবর বহুদিন ধরেই অবশ্য সরকারের হয়ে বাংলাদেশ অ্যাফেয়ার্স দেখাশুনো করছেন। পশ্চিমবঙ্গের হুগলী জেলার এই বাংলাভাষী রাজনীতিবিদ আগে কলকাতার ‘দ্য টেলিগ্রাফ’ পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন। বাংলাদেশের রাজনীতিবিদরা এলে তাদের সঙ্গে খোলাখুলি বাংলায় কথা বলতে পারেন তিনি। কাজেই সাউথ ব্লকে তার দফতর ঢাকার রাজনীতিবিদদের কাছে প্রায় একটা ‘মাস্ট ভিজিট’।
এইচ এম এরশাদ, এইচ টি ইমাম বা ওবায়দুল কাদেরের মতো ওজনদার নেতারা দিল্লি এলে ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভালের সঙ্গেও তাদের বৈঠক হচ্ছেই ধরে নেওয়া যায়।
অন্য দিকে বিজেপি দলের পক্ষ থেকে বাংলাদেশের রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষার কাজটা যিনি করে থাকেন, তিনি আর কেউ নন; দলের অতি প্রভাবশালী সাধারণ সম্পাদক রাম মাধব। অন্ধ্রের এই তেলুগুভাষী নেতা বহুদিন আরএসএসের মুখপাত্র ছিলেন, এখন আরএসএস থেকেই তাকে বিজেপিতে ‘ডেপুটেশনে’ পাঠানো হয়েছে। ঢাকা থেকে যে দলের নেতারাই আসুন, রাম মাধবের সঙ্গে বৈঠক ছাড়া তাদের ভারত সফর কার্যত অসম্পূর্ণ থেকে যায়।
সাম্প্রতিক অতীতে বারে বারেই দেখা গেছে, বাংলাদেশ থেকে যে নেতারাই আসুন না কেন, তারা হয় রাম মাধবের সঙ্গে বৈঠকে বসেছেন, কিংবা দিল্লিতে তার থিঙ্কট্যাঙ্ক ‘ইন্ডিয়া ফাউন্ডেশনে’র মতবিনিময়ে যোগ দিচ্ছেন। অথবা দুটোই।
বিজেপির অন্যান্য নেতাদের মধ্যে দলের সহ-সভাপতি বিনয় সহস্রবুদ্ধে (যিনি আইসিসিআরের প্রেসিডেন্টও বটে), রাম লাল কিংবা বিজেপি পলিসি রিসার্চ সেলের অনির্বাণ গাঙ্গুলিও বাংলাদেশি নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে বসছেন।
দিল্লির আরও একটি থিঙ্কট্যাঙ্ক বাংলাদেশের রাজনীতিবিদদের কাছে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে, সেটি হলো অবজার্ভার রিসার্চ ফাউন্ডেশন (ওআরএফ)। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রেখে কাজ করে প্রতিষ্ঠানটি; এমনকী দিল্লিতে ‘রাইসিনা ডায়ালগ’ নামে যে কূটনৈতিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় সরকারের সঙ্গে— সেটিরও যৌথ আয়োজক এই ওআরএফ।
গত কয়েক মাসের মধ্যে সেখানেও আসতে দেখা গেছে হাসানুল হক ইনু, এইচ টি ইমাম, তরিকত ফেডারেশনের নেতা নাজবুল বাশার মাইজভান্ডারী কিংবা জাকের পার্টির চেয়ারম্যান আমির ফয়সল মুজাদ্দেদিকে।
আর শুধু দিল্লির ক্ষমতার অলিন্দে বা থিঙ্কট্যাঙ্ক সার্কিটেই নয়, দিল্লিতে এসে বাংলাদেশের রাজনীতিবিদরা আজকাল ভারতের নামী বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতেও যাচ্ছেন— সেখানে ছাত্রছাত্রী বা শিক্ষকদের সঙ্গে মতবিনিময় করছেন। এই তালিকায় জেএনইউ, জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বা দিল্লি ইউনিভার্সিটির মতো সেরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোও আছে।
ইসলামপন্থী দলগুলো আবার রাজধানীর লোদী রোডে ‘ইন্ডিয়া ইসলামিক কালচারাল সেন্টার’-এর মতো কেন্দ্রেও যাচ্ছেন। তাদের কারও কারও সফরসূচিতে পুণের সিমবাওসিস ইউনিভার্সিটির মতো প্রতিষ্ঠানও থাকছে।
ফলে সার্বিকভাবে বাংলাদেশের এই রাজনীতিবিদদের সফরে ডিপ্লোম্যাটিক, পলিটিক্যাল বা অ্যাকাডেমিক— সব পর্যায়েই ভারতকে তাদের আরও ঘনিষ্ঠভাবে জানার সুযোগ হচ্ছে, বাংলাদেশের প্রকৃত ছবিটাও তারা তুলে ধরতে পারছেন।
কিন্তু প্রতিবেশী দেশের এই নেতাদের দাওয়াত দিয়ে নিয়ে এসে ভারতের কী লাভ হচ্ছে?
“প্রথম কথা হল, বাংলাদেশে গণতন্ত্রের অগ্রযাত্রায় বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্র ভারত যে সব ধরনের সহযোগিতা করতে প্রস্তুত; আমরা সেই বার্তাটা এর মাধ্যমে দিতে পারছি। তা ছাড়া এই যে নেতারা সানন্দে আসছেন, দিল্লিতে আমাদের নেতা-মন্ত্রী-নীতি নির্ধারকদের সঙ্গে খোলাখুলি আলোচনায় বসছেন— এ থেকেও প্রমাণ হয় যে বাংলাদেশের রাজনৈতিক ল্যান্ডস্কেপে ভারত আর কোনও ‘ট্যাবু’ নয়, ভারতের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করার মধ্যেও নিষিদ্ধ কিছু নেই। এটাও আমাদের জন্য একটা বড় লাভ বৈকি”, দিল্লিতে বাংলা ট্রিবিউনকে বলছিলেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা।
সুতরাং ধরেই নেওয়া যেতে পারে, বাংলাদেশের নির্বাচনের আগে যেমন, তেমনি তার পরেও ঢাকা থেকে রাজনীতিবিদদের এই দিল্লিযাত্রার ধারা অব্যাহত থাকবে।
এটা শুধু একদল নারীর স্বপ্ন ভঙ্গের গল্প নয়। বরং তাদের নিয়তি আর জীবন কীভাবে তছনছ হয়ে গেছে এটা সেই গল্প। বর্ণনা করা যায় না, বলা যায় না, লেখা যায় না। অসহ্য আর দুঃসহ যন্ত্রণা নিয়ে ফিরছে ওরা। বিমানবন্দরে নেমেই ভেঙে পড়ছে কান্নায়। কেউবা লজ্জায় মুখ ঢাকছে। কেউবা করছে আত্মহত্যার চেষ্টা। সৌদি ফেরত নারীদের জীবনের অবর্ণনীয় পরিস্থিতি নিয়ে অনুসন্ধান করেছেন মানবজমিনের স্টাফ রিপোর্টার মরিয়ম চম্পা-
লুৎফা বেগম। বয়স ৩৩। বাড়ি নেত্রকোনার চারুলিয়ায়। স্বামী আল-আমিন খেতখামারে কাজ করেন। তাদের তিন ছেলে-মেয়ে। একটু ভালো থাকার আশায় গত বছরের শেষের দিকে সৌদিতে পাড়ি জমান লুৎফা। সেখানে মুখোমুখি হন ভয়ঙ্কর জীবনের। বাসার প্রত্যেক লোক মিলে পালাক্রমে মারধর করতো। মালিকের স্ত্রী, ছেলে, মালিক কেউই বাদ যেত না।
সে সময়কার কথা স্মরণ করে এখনো আঁতকে উঠেন লুৎফা। বলেন, ওরা আমাকে টানা ৭ মাস ধরে নিয়মিত শারীরিক নির্যাতন করেছে। দিনের পর দিন না খেতে পেয়ে দমটা বেরিয়ে যাওয়ার অবস্থা হয়েছিল। একদিন তো সকালে মার শুরু করে সন্ধ্যায় ক্ষান্ত দিয়েছে। এরপর আমি এশার নামাজ পড়ে আল্লাহর কাছে কান্নাকাটি করছিলাম। তখন এসে মালিকের ছেলে আমাকে লাথি মেরে ফেলে দেয়।
কেন তাকে মারা হতো জানতে চাইলে তিনি বলেন, মালিকের ছেলে আমার সঙ্গে খারাপ কাজ করতে চাইতো। খারাপ কাজের প্রস্তাব দিতো। তখন বলতাম ‘আমি তোমার মা’র মতো। মায়ের সঙ্গে কেউ খারাপ কাজ করে বাবা। এটা বলার পর সে আমাকে কিল, ঘুষি, লাথি দিতে থাকে। এক পর্যায়ে চিকন তার দিয়ে আমার গলা পেঁচিয়ে ধরে। এভাবে প্রায় সময় সামান্য কোনো বিষয়ে আমাকে মারতো। একদিন মাঝরাতে মালিকের ছেলে আমাকে বলে ওর মা অসুস্থ তার কাছে যেতে হবে। লুৎফা গিয়ে দেখেন তার মা দিব্বি সুস্থ। এ সময় তাকে একটা রুমে যৌন নির্যাতনের চেষ্টা করে। অনেক কষ্টে নিজেকে মুক্ত করেন লুৎফা। এদিকে বাসার মালিক একদিন সন্ধ্যারাতে তাকে গোসলখানা ধুতে যেতে বলেন। মালিক গোসলখানার ভেতরেই ছিলেন। লুৎফা জানতেন না। লুৎফা গোসলখানা ধুতে গেলে মালিক মন মতো তাকে কাছে না পেয়ে চুলের মুঠি ধরে বেদম পিটাতে থাকেন।
লুৎফা মালিককে বলেন, বাবা আমাকে ছেড়ে দেন। কি অন্যায় করেছি। এ সময় মালিক বলেন, তুই শব্দ করে বাথরুম খুললি কেন। এভাবে দিনের পর দিন অত্যাচারের শিকার হন লুৎফা। তিনি বলেন, মার খেতে খেতে আমার নিয়মিত বমি হতো। অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে একদিন বাসা থেকে পালানোর চেষ্টা করি। তখন ওরা আমাকে ধরে ফেলে। এরপর বেদম মারতে থাকে। আমার খাওয়া দাওয়া বন্ধ করে দেয়। তাই যখনই সুযোগ পেতাম চুরি করে খাবার খেতাম। হঠাৎ আবার অসুস্থ হয়ে পড়ি। মরার মতো অবস্থা। বাসার মালিক মনে করেছে আমি অসুস্থের ভান করে বাসার দামি জিনিসপত্র নিয়ে পালাবো। তাদের বাসা থেকে কিছু চুরি করেছি কিনা তা পরীক্ষা করতে মালিকের বউ আমার গায়ের কাপড় চোপড় খুলে উলঙ্গ করে শরীর চেক করে। পরে আমাকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে রাস্তায় ফেলে যায়। তখন আমার কোনো হুঁশ-জ্ঞান ছিল না। এরপর পুলিশ আমাকে বাংলাদেশ দূতাবাসে রেখে আসে। সেখান থেকে সফর জেলে দেয়া হয়। সফর জেল খেটে অবশেষে বাংলাদেশে ফেরত আসি।
দেশে ফেরত এসে নতুন করে বেঁচে থাকার লড়াই করছেন লুৎফা বেগম। স্বামী শারীরিকভাবে অসুস্থ হওয়ায় খেতখামারের কোনো কাজই করতে পারছেন না। তিন ছেলে-মেয়েকে নিয়ে দিনের তিন বেলার দুই বেলাই না খেয়ে থাকতে হয়। পাড়া-প্রতিবেশীরা যে দুই ১শ টাকা দিয়ে সাহায্য করেন তাই দিয়ে চলে লুৎফার সংসার। তিনি বলেন, একটু আগে একজন প্রতিবেশী ১শ টাকা দিয়েছেন। সেটা দিয়ে ছেলেকে ১ কেজি চাল কিনতে পাঠিয়েছি। চালটা পানিতে ফুটিয়ে ছেলেদের খেতে দিবো। এতো কিছুর পরও নিজ দেশে ফিরতে পেরে সন্তুষ্ট লুৎফা। দেশের মাটিতে না খেয়ে মারা গেলেও যেন সৌদি আরবের মতো দেশে আর যেতে না হয়- এমনটাই জানান তিনি।
"একবার স্ত্রীকে নিয়ে শ্বশুরবাড়ি গিয়েছিলাম। আমার শালীর বিয়ে ছিল। আমাদের সঙ্গে ছিল পরিবারের এক নতুন সদস্য - আমার মেয়ে।
বিয়ের নানা আচার অনুষ্ঠানে, গান-বাজনা নিয়ে ব্যস্ত ছিল আমার স্ত্রী। মেয়ে আমার কাছেই ছিল - ওর এটাই অভ্যাস হয়ে গেছে।
আত্মীয়-স্বজনদের সঙ্গে গল্প-গুজব করছিলাম, এমন সময়ে মেয়ে পটি করে ফেলে। আমি সঙ্গে সঙ্গে ওকে পরিষ্কার করে দেওয়ার জন্য নিয়ে যাচ্ছিলাম, হঠাৎই আমার শাশুড়ি আমাকে আটকালেন।
কানে কানে বললেন, "তুমি এ বাড়ির জামাই। কী করছ তুমি বুঝতে পারছ? আত্মীয়-স্বজন দেখে কী বলবে কোনও ধারণা আছে? সোনালীকে ডাক। বাচ্চার পটি ও-ই পরিষ্কার করে নতুন ডায়াপার পরিয়ে দেবে।"
সোনালী আমার স্ত্রীর নাম।
আমি বলতে যাচ্ছিলাম যে মেয়ের পটি পরিষ্কার করার অভ্যাস আছে আমার! কিন্তু তার আগেই শাশুড়ি আমার স্ত্রীকে ডাক দিলেন। বললেন, "যাও, মেয়ের পটি পরিষ্কার করে নতুন ডায়াপার পরিয়ে দাও।"
আমি আর আমার স্ত্রী দু'জনেই দু'জনের দিকে তাকিয়ে ছিলাম। তবে কিছু বলার আগেই শাশুড়ি বেশ চাপা গলায় ধমকের সুরে স্ত্রীর নামটা শুধু বললেন, "সোনালী....!"
আমার স্ত্রী মেয়েকে নিয়ে বাথরুমে চলে গেল।
ঘটনাটা খুব অদ্ভুত লেগেছিল আমার। আমি যে 'হাউজ-হাজব্যান্ড' সেটা তো শ্বশুর-শাশুড়ি জানেন। মেয়ের পটি পরিষ্কার করাটা আমার কাছে নতুন কোনও কাজ তো নয়!
সম্ভবত আমার শাশুড়ির কাছে ব্যাপারটা লজ্জার ছিল। কয়েকজনকে দেখছিলাম মিটি মিটি হাসছেন।
তারপর থেকে ওই বিয়েবাড়ির হই-হট্টগোলের মধ্যেও কয়েকবার আমার কানে একটা কথা এসেছে - আমার দিকে ইঙ্গিত করে বলা হয়েছে, "এই ভদ্রলোক তো হাউস-হাজব্যান্ড"।
আমার শ্বশুর-শাশুড়ি চাইতেন না বিষয়টা পাঁচকান হোক। তবে আমি ঠিক করে ফেলেছিলাম যে আমার লজ্জা পাওয়ার যেমন কোনও কারণ নেই, তেমনই আমাদের চিন্তাভাবনাও পাল্টাবো না।
আমরা ভিন্ন জাতে বিয়ে করেছি। প্রথমেই ঠিক করে নিয়েছিলাম যে আমি বা আমার স্ত্রী - যে কেরিয়ার গড়ার ভাল সুযোগ পাবে, সেই কেরিয়ার গড়বে, অন্যজন ঘর-সংসার সামলাবে।
শুরু থেকেই আমার নিজের কেরিয়ারটা খুব একটা ভাল চলছিল না। অন্যদিকে আমার স্ত্রী সোনালী বেশ উন্নতি করছিল তার কেরিয়ারে।
তখনই ঠিক করে ফেলি যে আমি ঘর সামলাবো আর সোনালী চাকরি করে আরও উন্নতি করবে।আমাদের বাড়িতে কাজ করার জন্য কোনও গৃহ-কর্মী নেই। আমিই ঘর ঝাঁট দেওয়া, ধোওয়া-মোছার কাজ করি, বাসন মাজি, বাজার করি আবার রান্নাও করি।
অন্যদের হয়তো আমার এই বাড়ির কাজকর্ম করা অদ্ভুত লাগত, কিন্তু আমার কাছে ব্যাপারটা খুব সাধারণ ছিল।
তিন ভাইয়ের মধ্যে আমি ছোট। তবে ছোট থেকেই বাড়ির কাজে মাকে সাহায্য করতাম। তখনও দেখতাম বন্ধুরা আমাকে 'গৃহিনী' নামে ডেকে চটাতো।
তবে দিল্লিতে পড়াশোনা জানা বন্ধুবান্ধবরা আমার এই বাড়ির কাজ করার ইচ্ছাটাকে বুঝতে শুরু করেছে।
কিন্তু যখন নিজের শহর ভোপালে যাই, সেখানকার বন্ধুরা আমাকে নিয়ে মশকরা করতে লাগলো।
রাজনীতি বা অন্য কোনও গম্ভীর বিষয় নিয়ে যখন আলোচনা হয় আর সেখানে যদি আমি কিছু বলতে যাই, তাহলে মাঝপথেই আমাকে থামিয়ে দিয়ে বন্ধুরা বলে "তুমি এসব বুঝবে না, এটা গুরুতর বিষয়।"
বোধহয় আমাকে নিজের জায়গাটা, অর্থাৎ বাড়ির চৌহদ্দিটা চিনিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে ওই বন্ধুরা।
একবার এমনও হয়েছে, কী একটা বিষয়ে যেন বন্ধুরা কথা বলছিল, আর যেই আমি কিছু বলতে গেলাম, তখন ওরা বলল, "আরে তুই এসব বুঝবি না, একটু চা বানিয়ে আন বরং।"
আমি হেসে বলেছিলাম, "শুধু চা কেন, পাকোড়াও ভেজে আনছি।"
আমি এই সব ঠাট্টা, মশকরা সিরিয়াসলি নিই না।
অনেক বন্ধু আছে, যারা মাঝে মাঝে ফোন করে জিজ্ঞাসা করে 'ভাই আজ কী রান্না করলি!'
মানুষ আসলে বাড়ির কাজটাকে কাজ বলে গণ্যই করে না। অনেকেই বলে আমি নাকি ঘরে বসে আয়েশ করি।
কিন্তু ওরা এটা জানে না, যেসব পুরুষ অফিস বা কাজে যাওয়ার জন্য যেমন ভোরবেলা ঘুম থেকে ওঠে, আমিও তেমনই খুব সকালে উঠি। তারপরে ঘরের আর বাইরের - সংসারের সব কাজ করি।
বন্ধুদের এইসব মজা-মশকরা শুনতে শুনতে আমার মনে হয় যে ঘর-সংসারের কাজ সামলায় যে নারীরা, তাদের নিজেদের বউরা - তারা সংসারের জন্য যা যা করে সারাদিন ধরে, সেগুলোকে এরা কাজ বলে গণ্যই করে না।
আমাদের বিয়ের চার বছর পরে মেয়ে হয়েছে। তাই এখন আমার দায়িত্বও বেড়ে গেছে। মা হওয়া তো একটা পুরো সময়ের কাজ!সংসারের কাজের সঙ্গেই এখন জুড়েছে মেয়ের দেখাশোনার দায়িত্বও। তাকে স্নান করাতে, খাওয়াতে হয়, ঘুম পাড়াতে হয়, ঘুরতে নিয়ে যেতে হয়।
যখন মেয়েকে নিয়ে পার্কে বেড়াতে যেতে শুরু করলাম, প্রথম প্রথম সেখানে মহিলারা আমার মেয়েকে আদর করতেন বেশ। চার-পাঁচদিন পরে কয়েকজন জিজ্ঞাসা করলেন, "আজকেও আপনিই এসেছেন মেয়েকে নিয়ে? ওর মা কোথায়? তাঁর কী শরীর ভাল নেই?"
এরকম নানা প্রশ্ন করা শুরু হল।
আমি জবাব দিয়েছিলাম, "স্ত্রী চাকরি করেন। আমিই মেয়ের দেখাশোনা করি।"
তারপরে একের পর এক প্রশ্ন শুরু হল - "এত ছোট বাচ্চাকে আপনি কী করে সামলান? ও আপনার কাছে থাকে? স্নান করায় কে? খাইয়ে দেয় কে?"
ওই মহিলাদের চোখে মুখে যেন একটা অবিশ্বাস ছিল। তারা ভাবতেই পারছেন না যে একজন পুরুষ হয়ে ছোট বাচ্চাকে দেখাশোনার কাজ কেউ করতে পারে!
কেউ হয়তো এটাও ভাবছিলেন যে, 'কীরকম পুরুষ আমি যে কাজ করি না!'
বুঝতে পারতাম পার্কে বেড়াতে আসা ওই মহিলারা আমার পেছনে মজা করেন আমাকে নিয়ে।
বিয়ের পরে যখন প্রথমবার আমার বাবা-মা আমাদের বাড়িতে এসেছিলেন, তখন সংসারের কাজকর্ম আমাকে করতে দেখে সেটা বেশ অপছন্দ হয়েছিল মায়ের।
মা যদিও কিছু বলে নি, তবে হাবে-ভাবে বুঝিয়ে দিয়েছিল যে তাঁর পছন্দ হচ্ছে না ব্যাপারটা।
তাঁর চোখের ভাষায় বুঝতে পারছিলাম মা বলতে চাইছে যে তুমি রোজগারের জন্য চাকরি-বাকরি করো না? আর বউমা কি চাকরি করে তারপরে সংসারের কাজকর্ম সামলাতে পারে না?
সোনালীও বুঝেছিল যে আমার মা পছন্দ করছে না ব্যাপারটা।
তাই নিজে থেকেই সংসারের টুকটাক কাজ করতে শুরু করেছিল বাবা-মায়ের সামনে। কিন্তু অভ্যাস না থাকলে যা হয়, কোনওটাই ঠিকমতো করে উঠতে পারছিল না ও।
আমিই তখন ওকে বারণ করলাম যে লোক দেখানোর জন্য কাজ করতে হবে না।
মা-ও ব্যাপারটা খেয়াল করেছিল। কিন্তু কিছু বলে নি। আর তারপর থেকে এই ব্যাপারে আর কোনও কথাই বলে নি আমার মা।
এখন আমার মেয়ে স্কুলে যায়। ওকে বংশ-লতিকা বানাতে দিয়েছিল একবার স্কুল থেকে।
আমি কোনও কাজে বোধহয় বাইরে গিয়েছিলাম, আমার স্ত্রীকে ওকে বংশ-লতিকা বানাতে সাহায্য করেছিল।
সেখানে আমাকে 'হেড অফ দা ফ্যামিলি' বলে লিখেছিল।
ফিরে এসে আমি ওটা দেখে বলেছিলাম, চাকরি করে রোজগার করে সোনালী, সংসারে অর্থ সে-ই যোগায়। তাই 'হেড অফ দা ফ্যামিলি' তো তার হওয়ার কথা।
কিন্তু সোনালীর বক্তব্য ছিল অন্য।
ও বলেছিল, 'যে সংসার চালাবে, সে-ই হেড অফ দা ফ্যামিলি হবে - তা সে পুরুষ হোক বা নারী'।
বংশ-লতিকায় 'হেড অফ দা ফ্যামিলি'র জায়গা থেকে আমার নামটা সরাতে দেয় নি ও।
আমি অবশ্য একেবারেই যে অন্য কিছু করি না, তা নয়।
লেখালেখি করি ফ্রিল্যান্সার হিসাবে। সংসারের কাজকর্মের মধ্যেই বাড়িতে বসে লেখালেখি করি। দুটো বই ইতিমধ্যেই ছাপা হয়েছে। কিছুদিনের মধ্যে তিন নম্বর বইটা বের হবে।
কিন্তু বেশীরভাগ মানুষই আমাদের সংসারের ধরনটা বুঝে উঠতে পারে না।
আমার স্ত্রীকেও ওর অফিসে নানা কথা শুনতে হয়।
তবে আমাদের দু'জনের মধ্যে এতটাই ভালবাসা রয়েছে, যে আমরা এগুলোকে পাত্তাই দিই না।
আমার বড় দুই ভাই অবশ্য আমার এই ঘর-সংসার সামলানো নিয়ে কিছু বলে না, তবে আবার প্রশংসাও করে না কখনও। কিন্তু পরিবারের অন্য মহিলারা দেখেছি আমাকে বেশ সম্ভ্রম করেন।
যখন এমন কিছু আপনি করবেন, যেটা অন্যদের থেকে আলাদা, তখন প্রথমে মানুষ মজা করবে, তারপরে সমালোচনা করবে, আর অবশেষে মেনে নিতে শুরু করবে।
আমি এখন সেই প্রথম ধাপটায় রয়েছি।"
সূত্রঃ বিবিসি
দালাই লামার পর সবচেয়ে বেশি বিখ্যাত বৌদ্ধ ধর্মীয় গুরু সোগিয়াল রিনপোচের (৭১) বিরুদ্ধে গুরুত্বর যৌন হয়রানির অভিযোগ আনা হয়েছে। তিনি নারী অনুসারীদের সঙ্গে অবাধ যৌনাচার করেছেন। এমন কি নিজে সুন্দরী নারী পরিবেষ্টিত থাকতেন। গড়ে তুলেছিলেন নিজের মতো করে একটি হারেম। এ বিষয়ে তদন্ত হয়েছে। তাতে উঠে এসেছে এসব তথ্য। কাউকে কোনোভাবে আঘাত করে থাকলে তিনি ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন। বর্তমানে তিব্বতে বসবাস করেন সোগিয়াল রিনপোচে। দালাই লামার পর তাকেই বছরের পর বছর ধরে মানুষ সবচেয়ে বেশি সম্মান জানিয়ে আসছে। তার লেখা বই ‘দ্য তিবেতান বুক অব লিভিং অ্যান্ড ডাইং’ বিক্রি হয়েছে ৩০ লাখেরও বেশি কপি। এই যে মান, সম্মান, যশ, খ্যাতি এর আড়ালে ছিল তার এক অন্ধকার গোপনীয়তা। অভিযোগ আছে, হারেমে তিনি সুন্দরী যুবতী দ্বারা পরিবেষ্টিত থাকতেন। তাদের সঙ্গে গড়ে তুলতেন যৌন সম্পর্ক। এ ছাড়া তাদেরকে ইমোশোনালি ব্লাকমেইল করে নির্যাতন করতেন। তিনি জ্ঞানের আলোয় আলোকিত হওয়ার পথ উন্মুক্ত করার কথা বলে গড়ে তুলতেন অনিরাপদ যৌন সম্পর্ক। এ বিষয়ে এ মাসের শুরুর দিকে একটি তদন্ত রিপোর্ট বের হয়েছে। তাতে বেরিয়ে এসেছে বহু নারী অনুগামীকে তিনি গুরুত্বর শারীরিক, যৌন ও ইমোশনাল নির্যাতন করেছেন। তিব্বতের বৌদ্ধদের মেডিটেশন স্টোর রিগপা’র অর্থায়নে আইনি প্রতিষ্ঠান লুইস সিলকিন ওই রিপোর্ট তৈরি করে। সোগিয়াল রিনপোচের বিরুদ্ধে প্রথম অভিযোগ বেরিয়ে আসার পর বৌদ্ধ ধর্মের সাবেক অনুসারীরা এ নিয়ে কথা বলেছেন বৃটেনের একটি ট্যাবলয়েড পত্রিকার সঙ্গে। একজন অনুসারী বলেছেন, সোগিয়াল রিনপোচে কিছুটা দানবের মতো। আর কিছুটা হলো শিশুদেরকে নষ্ট করে দেয়া স্বভাবের। দৃশ্যত তিনি যৌনতা, খাদ্য, ধুমপানে আসক্ত। আরেকজন অনুসারী বলেছেন, সোগিয়াল রিনপোচে এবং মেয়েরা সব কিছুই একসঙ্গে ভাবতো। তারা তার ভিতরে প্রবেশ করতো। তার ভিতর থেকে বেরিয়ে আসতো। এটাকে পবিত্র বলে ধরে নেয়া হতো। সোগিয়াল রিনপোচের সাবেক একজন অনুসারী ২০১১ সালে তার আচরণ নিয়ে কথা বলেছেন কানাডিয়ান টিভি’তে। এরপরই তার অন্ধকার অধ্যায় বেরিয়ে আসে। ওই অনুসারী দাবি করেছেন, তার সঙ্গে তার এই শিক্ষক অনিরাপদ যৌন সম্পর্ক স্থাপন করেছেন। উল্লেখ্য, এখন আর রিগপা’র সঙ্গে যুক্ত নেই সোগিয়াল রিনপোচে। তিনি কৃতকর্মের জন্য অতীত ও বর্তমান অনুসারীদের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন।
ইরানের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর আহভাজে সামরিক মহড়ায় হামলা চালিয়েছে এক বন্দুকধারী। ওই হামলায় নিহত হয়েছে এক শিশু ও সাংবাদিক সহ ২৫ জন। এর প্রতিক্রিয়ায় দেশটির সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনি বলেন, আমেরিকার পুতুল রাষ্ট্রগুলো ইরানে নিরাপত্তাহীনতা তৈরির চেষ্টা করছে। তবে হামলার দায় স্বীকার করেছে সরকার-বিরোধী আরব সশস্ত্র গোষ্ঠী আহভাজ ন্যাশনাল রেসিস্ট্যান্স। কিছুক্ষণ পর জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) দায় স্বীকার করে। তবে কোনো গোষ্ঠীই এর স্বপক্ষে কোনো প্রমাণ দেখায়নি। এ খবর দিয়েছে বিবিসি।
এর আগে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভাদ জারিফ বলেন, একটি বিদেশী রাষ্ট্রের অর্থপুষ্ট সন্ত্রাসীরা এই হামলা চালিয়েছে। তিনি আরও বলেন, এই হামলার জন্য আঞ্চলিক সন্ত্রাস-পৃষ্ঠপোষক রাষ্ট্রসমূহ ও তাদের প্রভু যুক্তরাষ্ট্রকে দায়ী করছে ইরান।
রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা ইরনা জানিয়েছে, হামলার পর যুক্তরাজ্য, নেদারল্যান্ডস ও ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূতদের ডেকে পাঠিয়েছে ইরান। এই দেশগুলোর বিরুদ্ধে ইরানের সরকার-বিরোধী গোষ্ঠীসমূহকে সমর্থন দেওয়ার অভিযোগ করছে দেশটি।
পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেন, ইউরোপে সন্ত্রাসী হামলা চালায়নি বলে এই সংগঠনগুলোকে এখনও ইউরোপিয় ইউনিয়ন সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে তালিকাভুক্ত করেনি। এটি গ্রহণযোগ্য নয়।
বিভিন্ন প্রতিবেদনে বলা হয়, হামলায় নিহতদের প্রায় অর্ধেক হলো ইরানের বিপ্লবী রক্ষী বাহিনীর সদস্য।
এর আগে ইরান দেশটির সংখ্যালঘু আরবদের মধ্যে বিচ্ছিন্নতাবাদী কর্মকান্ডে সমর্থন দেওয়ার অভিযোগ এনেছিল আঞ্চলিক প্রতিদ্বন্দ্বী সৌদি আরবের বিরুদ্ধে।
কারা আদতে এই হামলা চালিয়েছে তা নিয়ে সাংঘর্ষিক দাবি রয়েছে। ইরানের খুজেস্তানে আরব সংখ্যালঘুদের অধিকারের স্বপক্ষে এমন সশস্ত্র কিছু গোষ্ঠীর সংগঠন আহভাজ ন্যাশনাল রেসিস্টেন্স এই হামলার দায় স্বীকার করে প্রথমে। সংগঠনটির মুখপাত্র বলেন, তারাই হামলার নেপথ্যে। কিন্তু এই হামলা তারাই চালিয়েছেন কিনা সেটি স্পষ্ট করেননি তিনি। পাশাপাশি তাদের সংগঠনের সঙ্গে বিদেশী কোনো রাষ্ট্রের যোগসাজশ রয়েছে কিনা তাও স্পষ্ট নয়।
অপরদিকে জঙ্গিগোষ্ঠী আইএস’র আমাক বার্তাসংস্থা দাবি করেছে, হামলা চালিয়েছে আইএস। তবে এই দাবির স্বপক্ষে কোনো প্রমাণ হাজির করেনি তারা। অবশ্য এর আগে ইরানে আরও একটি বড় হামলা চালিয়েছে আইএস। গত বছরের জুনে ইরানের পার্লামেন্ট ও ইসলামিক রাষ্ট্রটির প্রতিষ্ঠাতা আয়াতুল্লাহ খোমেনির মাজারে আত্মঘাতি হামলা চালায় একাধিক আইএস সদস্য। ওই হামলায় ১৮ জন নিহত হয়।
ইরানের সরকারী ও সামরিক কর্মকর্তারা উপসাগরীয় প্রতিদ্বন্দ্বী দেশ, যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরাইলের দিকে আঙ্গুল তাক করেছেন। এই সবগুলো দেশের সঙ্গেই ইরানের দীর্ঘদিনের উত্তেজনাপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে।
বিপ্লবী রক্ষী বাহিনীর এক মুখপাত্র দাবি করেন, হামলাকারীদের প্রশিক্ষণ ও সংগঠিত করেছে দু’টি উপসাগরীয় দেশ। এটির সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরাইলের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে।
তবে এ নিয়ে এখনও কোনো প্রতিক্রিয়া দেখায়নি যুক্তরাষ্ট্র বা উপসাগরীয় কোনো দেশ। তবে সংঘাত-কবলিত ইয়েমেনে শিয়া হুতি বিদ্রোহীদেরকে ইরান সমর্থন দিচ্ছে বলে যুক্তরাষ্ট্র ও সৌদি আরবের অভিযোগ করে আসছে। ইয়েমেনের আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত প্রেসিডেন্ট আবদ-রাব্বুহ মনসুর হাদির সরকারের পক্ষে সামরিকভাবে সক্রিয় আছে সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাত।
বাগেরহাটের মংলা সমুদ্র বন্দর ও লালমনিরহাটের বুড়িমারী স্থলবন্দরে ব্যাপক দুর্নীতি ও চাঁদাবাজির প্রমাণ পেয়েছে দুর্নীতিবিরোধী সংস্থা ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। দুই বন্দরে দুর্নীতির প্রাতিষ্ঠানিক রূপ নিয়েছে দাবি করে টিআইবি জানায়, ঘুষ ছাড়া সেখানে কোনো সেবা মেলে না। আর শুল্ক দপ্তর ও বন্দর কর্তৃপক্ষ নিজেরাই এসব অনিয়মের সঙ্গে জড়িত। ‘মংলা বন্দর ও কাস্টম হাউজ এবং বুড়িমারী স্থলবন্দর ও শুল্ক স্টেশন: আমদানি-রপ্তানি প্রক্রিয়ায় সুশাসনের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায়’ শীর্ষক টিআইবি’র গবেষণায় এসব তথ্য উঠে এসেছে। গতকাল রাজধানীর ধানমন্ডিতে টিআইবি কার্যালয়ে গবেষণা প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হয়। গবেষণা প্রতিবেদনের তথ্য-উপাত্ত তুলে ধরেন টিআইবির কর্মকর্তা মনজুর ই খোদা ও মো. খোরশেদ আলম।
টিআইবির গবেষণায় বলা হয়, পণ্য আমদানি-রপ্তানি কাজে মংলা স্থলবন্দরের কাস্টম হাউজ ও বন্দর কর্তৃপক্ষ বছরে অন্তত ২০ কোটি টাকা ‘নিয়ম বহির্ভূতভাবে’ আদায় করছে। সেবাগ্রহীতাদের মধ্যে জরিপের ভিত্তিতে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মংলা বন্দরের শুল্ক কর্মকর্তারা ২০১৬-১৭ অর্থবছরে নিয়ম বহির্ভূতভাবে ১৫ কোটি ৬৯ লাখ টাকা হাতিয়েছেন। বন্দর কর্তৃপক্ষ চার কোটি ৬১ লাখ টাকা নিয়ম বহির্ভূতভাবে আদায় করেছে। আমদানি পণ্যের শুল্কায়নে মংলা কাস্টম হাউজে প্রায় প্রতিটি ধাপে নিয়মবহির্ভূত অর্থ আদায় করা হয়। এই সময়ে আমদানি করা গাড়ির শুল্কায়নের ক্ষেত্রে কাস্টম হাউজে প্রতি গাড়ি চার হাজার টাকা এবং গাড়ি ছাড়ের ক্ষেত্রে মংলা বন্দরে ১ হাজার ৭১৫ টাকা ‘নিয়ম বহির্ভূতভাবে’ আদায় করা হয়েছে বলে হিসাব দিয়েছে টিআইবি। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মংলা কাস্টম হাউজে জাহাজ আগমন-বহির্গমনের সময় ৮ হাজার ৩৫০ টাকা করে নেয়া হয়। আর বন্দর কর্তৃপক্ষ নেয় ২১ হাজার টাকা। এছাড়া পণ্য ছাড়ের ক্ষেত্রে বন্দরে বিকাল ৫টার আগে ৬০০০ এবং পরে ৭২০০ টাকা করে আদায় করা হয়।
বুড়িমারী স্থলবন্দর ও শুল্ক স্টেশন নিয়েও গবেষণা করেছে টিআইবি। বুড়িমারী স্থলবন্দরের দুর্নীতির চিত্র তুলে ধরে বলা হয়, এই বন্দরের মাধ্যমে পণ্য আমদানি ও রপ্তানির বিভিন্ন পর্যায়ে কাস্টমস ও বন্দরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের একাংশের বিরুদ্ধে নিয়মবহির্ভূত অর্থ গ্রহণের অভিযোগ রয়েছে। এক্ষেত্রে আমদানি-রপ্তানি সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় সকল নথিপত্র এবং পণ্যের ধরন, গুণগত মান, ওজনসহ সবকিছু সঠিক থাকা সত্ত্বেও পণ্য ছাড়ের জন্য বাধ্যতামূলকভাবে অলিখিতভাবে নির্ধারিত ঘুষ বা নিয়মবহির্ভূত অর্থ দিতে হয়। তবে প্রয়োজনীয় নথিপত্র, পণ্যের মান, ধরন বা ওজনে সমস্যা থাকলে, অথবা শুল্ক ফাঁকি দেয়ার ক্ষেত্রে ঘুষের পরিমাণ পরস্পরের দরকষাকষির সক্ষমতার ওপর নির্ভর করে। গবেষণায় পাওয়া তথ্যমতে, বুড়িমারী বন্দরের মাধ্যমে পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে বিভিন্ন ধাপে বিল অব এন্ট্রি প্রতি গড়ে ন্যূনতম ২০৫০ টাকা নিয়ম বহির্ভূতভাবে বা ঘুষ হিসেবে দিতে হয়। একইভাবে পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে বিভিন্ন ধাপে বিল অব এক্সপোর্ট প্রতি গড়ে ন্যূনতম ১৭০০ টাকা নিয়ম বহির্ভূতভাবে দিতে হয়।
এতে আরো বলা হয়, বুড়িমারী স্থলবন্দরের শুল্ক স্টেশন আমদানি ও রপ্তানির জন্য বিল অব এন্ট্রিতে দুই কোটি ৮৫ লাখ টাকা নিয়ম বহির্ভূতভাবে আদায় করা হয়েছে এবং স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষ ৪৮ লাখ টাকা নিয়েছে বলে হিসাব দেখিয়েছে টিআইবি। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পণ্য আমদানি-রপ্তানির সময় ব্যবহৃত ট্রাক থেকে বুড়িমারীর মোটর শ্রমিক ইউনিয়ন চাঁদা নিয়েছে ৫ কোটি চার লাখ টাকা। এখানে আমদানি পণ্যের প্রতিটি চালানের (বিল অব এন্ট্রি) বিপরীতে শুল্ক স্টেশনে ১ হাজার ৭৫০ টাকা ঘুষ দিতে হয়। রপ্তানির বেলায় এটি দেড় হাজার টাকা। আবার আমদানি করা পণ্য ছাড় করতে স্থলবন্দরের কর্মকর্তাদের ৩০০ টাকা ঘুষ দিতে হয়। রপ্তানিতে এই ঘুষ ২০০ টাকা।
এই দুই বন্দরে দুর্নীতি প্রতিরোধে পণ্যের শুল্কায়ন, কায়িক পরীক্ষণ, পণ্য-ছাড় এবং জাহাজের আগমন-বহির্গমন প্রক্রিয়া অনুমোদনে কার্যকর ওয়ান স্টপ সার্ভিস প্রদান নিশ্চিত করা, সকল পর্যায়ে অটোমেশন এবং পেপার-লেস অফিস প্রতিষ্ঠা করার পাশাপাশি আরো বেশ কয়েকটি সুপারিশের কথা জানিয়েছে টিআইবি।
প্রতিবেদনে বলা হয়, দেশে আমদানি হওয়া গাড়ির ৬০ শতাংশ মংলা বন্দর দিয়ে আসে। এছাড়া ক্লিনকার, সার, কয়লা, এলপি গ্যাস আমদানি করা হয় এই বন্দর দিয়ে। রপ্তানি হয় চিংড়ি, পাট, সিরামিক ইত্যাদি পণ্য। ২০১৬-১৭ অর্থবছর মোংলা বন্দর ২২৭ কোটি টাকা ও মংলা কাস্টমস ৩ হাজার ৯৯ কোটি টাকা আয় করে। অন্যদিকে লালমনিরহাটের বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়ে ভারত ও ভুটান থেকে বোল্ডার, সবজি বীজ, ভুট্টা, পিয়াজ ইত্যাদি পণ্য আমদানি হয়। তবে আমদানি পণ্যের ৯০ শতাংশের বেশি পাথর। ২০১৬-১৭ অর্থবছর বুড়িমারী স্থলবন্দর ও শুল্ক স্টেশন ৭২ কোটি ৫০ লাখ টাকা আয় করেছে।
টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান বলেন, মংলা বন্দর ও বুড়িমারী স্থলবন্দরে যোগসাজশে ও বলপূর্বক দুর্নীতি হচ্ছে। এটি প্রাতিষ্ঠানিক রূপ নিয়েছে। সিন্ডিকেটের কারণে সেবাগ্রহীতারা দুর্নীতির শিকার হচ্ছেন। এসব দুর্নীতি নিয়ে কর্তৃপক্ষ অবগত। তারাও সুবিধা পায় বলে এসব বিষয়ে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে না। ইফতেখারুজ্জামান বলেন, আমরা দেখেছি, আধুনিকায়ন ও ডিজিটালাইজেশন করার মাধ্যমে সেবাগ্রহীতা ও দাতার সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ কমানো গেলে দুর্নীতি কমে যায়। তবে সেই প্রক্রিয়ায় দীর্ঘসূত্রতার কারণে সুফল পাওয়া যায় না। তিনি বলেন, বুড়িমারী স্থলবন্দর হতে আমদানি পণ্য দেশের বিভিন্নস্থানে পরিবহনের জন্য ট্রাক ভাড়া করার ক্ষেত্রে বুড়িমারী ট্রাক টার্মিনালে মোটর শ্রমিক ইউনিয়ন ট্রাক প্রতি প্রায় ৯০০ টাকা চাঁদা হিসেবে আদায় করে নিচ্ছে। দালালের সাহায্য ছাড়া বুড়িমারী হতে ট্রাক ভাড়া পাওয়া যায় না। এক্ষেত্রে দালালকে ট্রাক প্রতি ৪০০ হতে ৫০০ টাকা বকশিশ দিতে হয়। এ থেকে প্রতিদিন গড়ে প্রায় ২০০টি হিসেবে বছরে প্রায় ৬০০০টি পণ্যবাহী ট্রাক এই টার্মিনাল হতে দেশের বিভিন্ন স্থানে পণ্য পরিবহন করে। আর এই হিসেবে দেখা যায়, প্রতি বছর এই টার্মিনাল হতে ন্যূনতম প্রায় সাড়ে ৫ কোটি টাকা নিয়মবহির্ভূতভাবে আদায় করা হচ্ছে বলে তিনি মনে করেন।
এক প্রশ্নের জবাবে ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, বন্দরের এই দুর্নীতি আইনের চোখে প্রমাণিত না, যে কারণে আমরা এটাকে অভিযোগ বলছি। যারা প্রত্যক্ষভাবে দুর্নীতির শিকার হয়, নিজেরাও দুর্নীতির অংশীদার হয়ে যাচ্ছে তাদের তথ্য এবং অন্য অংশীজন থেকে পাওয়া তথ্য নিয়ে আমরা প্রতিবেদন তৈরি করেছি। আমাদের পদ্ধতি অনুযায়ী প্রমাণিত বিধায় আমরা এটাকে (দুর্নীতি) বলছি।
আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, যারা বলেন জোর করে টাকা নিচ্ছি না, তারা তো বিভিন্নভাবে সেটা ব্যাখ্যা করেন। এটাকে অনেকে স্পিড মানি বলে থাকেন। আমাদের সরকারের একাংশ থেকেও আমরা সেটা শুনে থাকি। তবে আমরা সেটাকে দুর্নীতিই বলি।
‘বকশিশ হিসাবে যে অতিরিক্ত টাকা দেয়া হয় সেটা খুশি হয়ে দিচ্ছি এটা কেউ স্বীকার করবে না। তারা কিন্তু জিম্মি হয়ে দুর্নীতির শিকার হচ্ছেন এবং জিম্মি হয়ে দুর্নীতির অংশীদারও হয়ে যাচ্ছেন। আমাদের জাতীয় খানা জরিপে ৮৯ শতাংশ মানুষ যারা দুর্নীতির শিকার হয়েছেন, ঘুষ দিতে বাধ্য হয়েছেন তারা বলেছেন, ঘুষ না দিলে আমরা সেবা পাবো না, কাজেই ঘুষ দিতে বাধ্য হই’ যোগ করেন টিআইবির নির্বাহী পরিচালক। আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দুর্নীতি কমবে না যদি রাজনৈতিকভাবে সিদ্ধান্ত না নেয়া হয়।
হঠাৎ করেই কিশোরগঞ্জ শহরে আলোচনায় চলে আসে দুর্ধর্ষ কিশোর গ্যাং। শান্ত কিশোরগঞ্জে নেমে আসে অস্থিরতার পদধ্বনি। মুখোশধারী সশস্ত্র কিশোর সন্ত্রাসীরা নেমে আসে শহরের রাস্তা আর অলিগলিতে। এলোপাতাড়ি কুপিয়ে রাস্তার পাশের বাসাবাড়ি-দোকানপাট শহরজুড়ে চালায় একের পর তাণ্ডব। আতঙ্ক ভর করে শহরবাসীর মাঝে। একাধিক সন্ত্রাসী ঘটনার পরও অধরাই রয়ে গিয়েছিল কিশোর গ্যাংটির হোতাসহ সদস্যরা। অবশেষে পুলিশের তৎপরতায় ধরা পড়েছে দুর্ধর্ষ এই কিশোর গ্যাংটির হোতা সামাউল হক নিলয় (১৯)। গত ১১ই সেপ্টেম্বর শোলাকিয়া ঈদগাহ রোড রেলক্রসিং থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার পুলিশ। নিলয়ের গ্রেপ্তারের পরই বেরিয়ে আসে আরো এক ভয়ঙ্কর তথ্য। কেবল সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডই নয় এই গ্রুপটি জড়িত ছিল কিলিংয়েও। নিলয়ের নেতৃত্বেই গত ৯ই এপ্রিল রাতে কিশোরগঞ্জ শহরের বড়বাজার তেরিপট্টি এলাকায় নৃশংস হামলায় প্রাণ হারায় কলেজছাত্র রাজা। কিশোর গ্যাং হোতা সামাউল হক নিলয় কিশোরগঞ্জ শহরের নীলগঞ্জ মোড়ের লালু বাড়ির গলির মো. কাজল মিয়ার ছেলে। সে শহরের আজিম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র। গ্রেপ্তারের পর আদালতের আদেশে সামাউল হক নিলয়কে দুই দিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ। রিমান্ডে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে নিলয় জানায়, তার গ্রুপে সমবয়সী একশ’র বেশি কিশোর নেশাগ্রস্ত হয়ে শহরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়ি হামলা চালায়। মানুষ ভয় পেলে তাদের আনন্দ বেড়ে যায়। নেশার টাকা বাবা-মার কাছ থেকে কৌশলে নিয়ে আসে এবং বিভিন্ন সময় বিভিন্ন এলাকায় কোনো উদ্দেশ্য ছাড়াই ভয়ঙ্কর অ্যাকশনে যায়। কখনো তার বন্ধুদের সঙ্গে কারো কোনো ঝগড়া-ঝাটি হলে সবাই সংঘবদ্ধভাবে হামলা চালায়। সিসি ফুটেজে দেখা যায়, বড়বাজার তেরিপট্টি মোড়ে রাজা হত্যার সময় ১৬/১৭ জন কিশোর মুখোশ পরে আনন্দের সঙ্গে কোপাচ্ছে। রাজা হত্যার পর তাদের সাহস আরো বেড়ে যায়। তারা আরো বেপরোয়া হয়ে ওঠে। কিশোরগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু শামা মো. ইকবাল হায়াত জানান, পুলিশ সাধ্যমত সন্ত্রাস নির্মূল ও কিশোর অপরাধীদের ধরার চেষ্টা করছে। পুলিশের একাধিক অভিযান পরিচালনা করে ইতিমধ্যে নিলয়ের পাঁচ সহযোগীকে গ্রেপ্তার করেছে। তারা বর্তমানে জেলহাজতে আছে। এছাড়া কিশোর অপরাধীদের নিয়ন্ত্রণ করার জন্য অভিভাবকদেরও সচেতন হওয়া দরকার বলে মন্তব্য করেন ওসি আবু শামা মো. ইকবাল হায়াত।


শুধু বর্জ্যের ভাগাড় নয়, মৃত্যুকূপও ‘সেপটিক ট্যাঙ্ক’। তাই বর্জ্যের দূষণ কমাতে এবং মানুষ বাঁচাতে চট্টগ্রাম মহানগরীর কোথাও থাকছে না সেপটিক ট্যাঙ্ক। সেপটিক ট্যাঙ্ক তুলে নেয়ার এমন উদ্যোগ নিয়েছে চট্টগ্রাম ওয়াসা। এমনটাই বললেন চট্টগ্রাম ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী একেএম ফজলুল্লাহ। তিনি জানান, মানুষ ও গৃহস্থালির সব বর্জ্য আর সেপটিক ট্যাঙ্কে নয়। পাইপলাইনের মাধ্যমে সব বর্জ্য চলে যাবে সুয়্যারেজ ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টে।
ফলে বাসা-বাড়ির কোনো পয়োঃবর্জ্য নালা ও খালে যাবে না, হবে না ভরাট। আর কর্ণফুলী ও হালদা নদীও হবে না বর্জ্যের ভাগাড়। দূষণমুক্ত হবে নালা, খাল, নদী। নির্মল ও দুর্গন্ধমুক্ত হবে পরিবেশ। নষ্ট হবে না প্রাকৃতিক ভারসাম্য। এমনকি সেপটিক ট্যাঙ্কে পড়ে আর ঘটবে না প্রাণহানিও। আর সেপটিক ট্যাঙ্কমুক্ত চট্টগ্রাম মহানগরী দেখা যাবে ২০২৩ সালেই। তিনি বলেন, রান্নাঘরের ও গোসলখানার ব্যবহার্য পানি এবং টয়লেটের লাইনের পানি ও বর্জ্য ধারণে চট্টগ্রাম মহানগরীতে গড়ে তোলা সেপটিক ট্যাঙ্কগুলো এখন মৃত্যুকূপ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিশেষ করে বর্ষায় পানির তোড়ে সেপটিক ট্যাঙ্কের ঢাকনা উঠে গিয়ে সেখানে চলাচলরত মানুষ ডুবে মরছে।
ফলে সেপটিক ট্যাঙ্ক নয়; প্রায় তিন হাজার ৮০০ কোটি টাকা ব্যয়ে মাসটার প্ল্যানের আওতায় স্যুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্লান্ট প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। একনেকের সভায় প্রকল্পটি অনুমোদনও পেয়েছে। প্রকল্পটির প্রথম পর্যায়ের বাস্তবায়ন কাজ নগরীর হালিশহর আনন্দবাজার এলাকায় ১৬৫ একর জায়গার ওপর চলছে। তিনি বলেন, পানি প্রবাহের ওপর ভিত্তি করে পুরো চট্টগ্রাম মহানগরীকে ১১টি জোনে ভাগ করে এ প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। জোনগুলো হচ্ছে- চট্টগ্রাম মহানগরীর কোতোয়ালি, বাটালিহিল, মাঝিরঘাট, মাদারবাড়ী, আগ্রাবাদ, টাইগারপাস, আমবাগান, নয়াবাজার, চৌমুহনী, উত্তর হালিশহর, হালিশহর আনন্দবাজার এলাকা। এরমধ্যে প্রাথমিক প্রকল্পের আওতায় ছয়টি জোনে ছয়টি স্যুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট হবে এবং পুরো নগরীতে দুটি ফিকেল স্ল্যাজ শোধনাগার নির্মাণ করা হবে। প্রথম প্রকল্পের আওতায় নগরীর ২০ লাখ মানুষ সবার আগে এই সুবিধা পাবে। দ্বিতীয় প্রকল্পের আওতায় ৫টি জোনে স্যুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট বাস্তবায়ন করা হবে। ওয়াসার তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মোহাম্মদ আরিফুল ইসলাম বলেন, সুয়্যারেজ প্রকল্পের আওতায় বৃষ্টির পানি চলে যাবে ড্রেনে, আর বাকি সব পানি পাইপ লাইনের মাধ্যমে স্যুয়ারেজ লাইনে যাবে।
এজন্য পুরো নগরীতে সর্বোচ্চ ২০ ইঞ্চি ও সর্বনিম্ন ৪ ইঞ্চি ব্যাসের পাইপ বসানো হবে। এসব পাইপ দিয়ে বর্জ্য ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টে যাবে। তিনি বলেন, দুর্গন্ধমুক্ত চট্টগ্রাম নগরীর পরিকল্পনা বহুদিনের। সেই পরিকল্পনাকে বাস্তবে রূপ দিয়ে সেপটিক ট্যাঙ্কবিহীন নগরে পরিণত করা হবে চট্টগ্রামকে। যেসব এলাকায় স্যুয়ারেজ প্রকল্পের পাইপলাইন বসানো যাবে না, সেসব এলাকায় দুটি খালের মাধ্যমে স্ল্যাজগুলো প্রবাহিত করে পাইপলাইনে প্রবেশ করানো হবে।
চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) অথরাইজড অফিসার মোহাম্মদ শামীম বলেন, বর্তমানে আমরা ভবন নির্মাণের অনুমোদনের ক্ষেত্রে সেপটিক ট্যাঙ্কের ডিজাইন দেখি এবং তা নিশ্চিত করা হয়। ওয়াসা যদি স্যুয়ারেজ প্রকল্প চালু করে তাহলে আর সেপটিক ট্যাঙ্কের প্রয়োজন হবে না।
পরিবেশ অধিদপ্তর চট্টগ্রামের পরিচালক আজাদুর রহমান মল্লিক বলেন, গত বছরের মার্চে ওয়াসার পানি সরবরাহ প্রকল্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্যুয়ারেজ নিয়ে প্রকল্পের জন্য ওয়াসাকে নির্দেশ দিয়েছিলেন। আর এরপর থেকেই ওয়াসা সক্রিয় হয়। অথচ আরও অনেক আগে নগরীতে স্যুয়ারেজ প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়ার প্রয়োজন ছিল। তবে দেরিতে হলেও সুয়্যারেজ প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে কিছু এলাকাতো দূষণ থেকে মুক্তি পাবে।
তিনি বলেন, নগরীর পয়ঃবর্জ্য নালা ও খালের মাধ্যমে কর্ণফুলী ও হালদায় গিয়ে পড়ছে। প্রতিদিন প্রায় ৩৩ কোটি লিটার বর্জ্য কর্ণফুলী ও হালদা হজম করছে। এতে নদী দুটি ক্রমশ দূষিত হচ্ছে। নষ্ট হচ্ছে প্রাকৃতিক ভারসাম্য ও পরিবেশ। ভরাট হয়ে মারমুখী হয়ে উঠছে নদী দুটি।
ওয়াসার তথ্যমতে, ১৯৬৩ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে ওয়াটার সাপ্লাই অ্যান্ড সুয়্যারেজ অথরিটি (ওয়াসা) নগরবাসীকে সুপেয় পানি সরবরাহের জন্য কাজ করলেও সুয়্যারেজের বিষয়ে তাদের কোনো কর্মকাণ্ড ছিল না। প্রতিষ্ঠার ৫৫ বছর পর এসে ওয়াসা সুয়্যারেজ মাস্টার প্ল্যান বাস্তবায়ন প্রকল্প হাতে নেয়।
এ প্রসঙ্গে ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী একেএম ফজলুল্লাহ বলেন, এতদিন নগরীতে পানির ঘাটতি ছিল। এখন আমরা অনেকগুলো প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে পানির ঘাটতি কাটিয়ে উঠছি। তাই এখন স্যুয়ারেজের দিকে নজর দিয়েছি।
বাংলাদেশি অভিবাসীদের উইপোকার (টারমাইটস) সঙ্গে তুলনা করেছেন ভারতে ক্ষমতাসীন দল বিজেপির সভাপতি অমিত শাহ। একই সময়ে তিনি ভোটার তালিকা থেকে তাদের প্রত্যেকের নাম বাদ দেয়ারও ঘোষণা দিয়েছেন। শনিবার রাজস্থানের সাবাই মাধোপুরে এক জনসভায় এ ঘোষণা দেন। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা পিটিআই। অমিত শাহ সম্প্রতি আসামে প্রকাশিত খসড়া নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি)’র উল্লেখ করে বলেন, বিজেপি সরকার প্রায় ৪০ লাখ অবৈধ অভিবাসীকে শনাক্ত করেছে। তিনি রাজস্থানে ক্ষমতায় থাকা বিজেপি সরকারকে অনড় ‘অঙ্গদ কা পা’ বলে উল্লেখ করেন। রামায়ণের একটি চরিত্রের উল্লেখ করে তিনি এমনটা বলেন।
ওই চরিত্রে রাবনের পা পর্যন্ত কেউ নড়াতে পারে না। তাই রাজস্থানে ক্ষমতায় থাকা বিজেপিকে তেমন অনড় অবস্থানে বলে উল্লেখ করেন তিনি। এ সময় তিনি বিরোধী দল কংগ্রেসের সমালোচনা করেন। বলেন, কংগ্রেস দেশের ভালোর জন্য কিছুই করতে পারে না। এর কারণ, এ দলে একজন নেতাও নেই। তাদের নীতি বা পলিসিও নেই। তিনি কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীকে ‘রাহুল বাবা’ উল্লেখ করে বলেন, তিনি যখন বিজেপি কি কাজ করেছে সেই খবর নিচ্ছিলেন তখন জনগণ তাকে বলতে চেয়েছে, তার পরিবারের চার প্রজন্ম কী করেছে।
প্রধানমন্ত্রীর সফরকে ঘিরে নিউ ইয়র্কে থাকা বাংলাদেশ কমিউনিটিতে পাল্টাপাল্টি অবস্থা বিরাজ করছে। চলতি মাস জুড়েই সরগরম বাংলাদেশ কমিউনিটির প্রাণকেন্দ্র কুইন্স ব্যুরোর জ্যাকসন হাইটস। গত এক সপ্তাহ ধরে সেখানে প্রতিদিন সন্ধ্যায় বিভিন্ন ব্যানারে মিছিল-মিটিং হচ্ছে। সরকার প্রধানের আগমনকে স্বাগত জানিয়ে বক্তৃতা-বিবৃতি, সংবাদ সম্মেলন ও বিজ্ঞাপন প্রচার করছে আওয়ামী লীগ এবং অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের যুক্তরাষ্ট্র ও নিউ ইয়র্ক শাখার নেতৃবৃন্দ। বিরোধী বিএনপির কমিটি না থাকলেও তাদের তরফে পাল্টা বক্তৃতা- বিবৃতি, সংবাদ সম্মেলন করা হচ্ছে বিভিন্ন ব্যানারে। তারা সরকার প্রধানের নিউ ইয়র্ক অবস্থানের পুরো সময় প্রতিবাদী কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। ফ্রিডম অব স্পিচ বা বাকস্বাধীনতার মুক্ত চর্চার  দেশ যুক্তরাষ্ট্রে স্বাগতম জানানোর পাশাপাশি প্রতিবাদের আয়োজন থাকাটাকে অন্যায় হিসাবে দেখা হয় না। এ নিয়ে এখানকার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বা  গোয়েন্দা সংস্থা কারও কোনো মাথাব্যথা  নেই। তবে তারা আগাগোড়ায় সতর্ক যে বিষয়টি নিয়ে তা হলো স্বাগত জানানো বা প্রতিবাদ- কোনো কর্মসূচিকে ঘিরে যেন সহিংসতা না হয়! এমনটাই বলছিলেন চলতি জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগদানের জন্য প্রধানমন্ত্রীর নিউ ইয়র্ক সফর বাস্তবায়নে বিশেষত সরকার প্রধানের নিরাপত্তা নিয়ে মার্কিন সিক্রেট সার্ভিসের সঙ্গে কাজ করা এক বাংলাদেশি কর্মকর্তা।
তার বক্তব্যের সঙ্গে দলমতনির্বিশেষে সহমত পোষণ করে প্রবাসী অনেক বাংলাদেশি। এখানে অনেক বছর ধরে (অভিবাসী হিসেবে) থাকা মৌলভীবাজারের মাতারকাপন এলাকার আবদুল মুমিন চৌধুরীও এমনটাই বলছিলেন। তার মতে, কমিউনিটি ম্যাটারগুলো নিউ ইয়র্ক পুলিশ বুঝে। তারা এ নিয়ে এতটাই ওয়াকিবহাল যে, অনেক সময় সিরিয়াস মারামারি হলেও তারা এতে জড়ায় না। প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানানোর আয়োজন নিয়ে জ্যাকসন হাইট এলাকায় যুবলীগের দুই গ্রুপের মারামারির যে ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে সে প্রসঙ্গে মুমিন চৌধুরীর মতে, ওই ঘটনাও পুলিশ হালকাভাবে নিয়েছে। ৩ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে নিয়ে গিয়েছিল, পরে অবশ্য তাদের সতর্ক করে  ছেড়ে দেয়া হয়েছে। প্রবাসী মুমিনই নন, প্রায় সবাই একমত যে এমন ঘটনায় ব্যক্তির জেল-জরিমানা না হলেও কমিউনিটির ইমেজে বিরাট প্রভাব পড়ে। যা ইমিগ্রেশন বা অন্যান্য কাজে গেলে টের পাওয়া যায়। বর্তমানে স্থায়ীভাবে নিউ ইয়র্কে বসবাসরত এমসি কলেজের সহকারী অধ্যাপক আমিনুল হক চন্নু বরাবরই সহিংসতাবিরোধী। এ নিয়ে কমিউনিটিতে তার কাজও রয়েছে।
তিনি মটিভেশনের কাজ করেন। তিনি বিষয়টাকে  দেখেন ভিন্নভাবে। তার কাছে এমন ঘটনার জন্য এককভাবে কমিউনিটি দায়ী হয়। তিনি বলেন, আমি রাজনীতির মানুষ, আর সমাজ বিজ্ঞান বা নীতির শিক্ষক। আমি বিষয়টার গোড়ায় যেতে চাই। প্রবাসীরা ভিন গ্রহের কেউ নয়, তারা যে কমিউনিটি  থেকে আসে সেটাই বিলং করে। এটা রাতারাতি পরিবর্তন হবে না। কিন্তু পরিবর্তনের চেষ্টা থাকতে হবে। এ নিয়ে দলের শীর্ষ নেতৃত্ব থেকে শুরু করে তৃণমূল- সর্ব মহলের সচেতনতা জরুরি।  সেটি সরকারি দল বা বিরোধী পক্ষ সবার জন্যই। প্রবাসে সরাসরি একটি দলের শাখা থাকা নিয়েও প্রশ্ন তুলেন ওই প্রবাসী সমাজ বিজ্ঞানী। গোলাপগঞ্জের পশ্চিমভাগ এলাকার সাইফুর রহমান বলেন, আমি কাকে সমর্থন করি তা সবাই জানেন। অন্তত আমার এলাকার লোকজন জানেন। ভবিষ্যতে সুযোগ পেলে আমার ইউনিয়নে নির্বাচনও করতে পারি। কিন্তু আমি একটা বিষয় বুঝি না ভাই, আমার দল বা বিরোধী যারা যে মতেরই হোন না কেন? আমেরিকার মতো জায়গায় এসে কেন আমাদের মারামারি করতে হবে? তাও সামান্য পদ-পদবির জন্য।
যেভাবে চেয়ার ছোড়া হয়েছে, পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করেছে, ধরে নিয়ে গেছে,  সেই ভিডিও আবার ভাইরাল করে দিয়েছে বিরোধীরা। এটা বাংলাদেশ কমিউনিটির জন্য বদনামের। আমি মনে করি, আমার দলের নেতারা এ বিষয়টি নিয়ে ভাববেন। তার সঙ্গে থাকা নিউ ইয়র্কে স্থায়ীভাবে বসবাসরত মৌলভীবাজারের দুর্লভপুর গ্রামের আবদুল মালিকও এ নিয়ে সহমত পোষণ করেন। মালিক অবশ্য রাজনীতি নিয়ে আলোচনায় তেমন আগ্রহী নন। তার মতে, আমরা এখানে স্থায়ীভাবে থাকছি। বাংলাদেশ বা বাংলাদেশি হিসেবে নিউ ইয়র্ক পুলিশের রেকর্ডে আমাদের কিছু পয়েন্ট রয়েছে।
একটা সুনাম আছে। এটা নষ্ট হয়ে গেলে পদে পদে আমাদের বিপদে পড়তে হবে। এ দেশের কেউ যদি ক্রাইম না করে, তার কাগজপত্র ঠিক না থাকলেও তাড়িয়ে দেয় না। মানবতার দিকটা এখানে প্রবল। সেটা যদি কেউ না বুঝে তা হলে কিছু করার নাই। গত সন্ধ্যায় ম্যানহার্টনে এক আড্ডায়ও এ নিয়েই কথা হয়। একজন একটি খবর দেখিয়ে বলেন- দেখুন রাজনীতির কি অবস্থা। নিউ ইয়র্কে শেখ হাসিনার ভ্যানগার্ড হিসেবে নাকি থাকবে মহানগর আওয়ামী লীগ! বিস্ময়ের বিষয় হচ্ছে এ ঘোষণার আড়ালে থাকা রাজনীতি নিয়ে। সেটাই দেখাচ্ছিলেন ওই কর্মকর্তা। বলেন, নিউ ইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জাকারিয়া চৌধুরী সংবাদ সম্মেলন করে ঘোষণাটি দিয়েছেন। কিন্তু সেখানে তিনি কিছু ইন্টারেস্টিং বিষয় সামনে নিয়ে এসেছেন। তার ভাষ্য ছিল এরকম ‘যুক্তরাষ্ট্রে জননেত্রী  শেখ হাসিনা এবং ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের ইমেজ বিনষ্টের ষড়যন্ত্রে লিপ্তদের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং নিউ ইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দহরম-মহরম দেখা যাচ্ছে।
এ দু’জনের ব্যাপারেও তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সজাগ থাকার প্রয়োজন রয়েছে।’ এখানে বিএনপির কর্মসূচি নিয়ে কথা বলতে গিয়ে মিস্টার চৌধুরী বলেন, বিএনপি-যুবদল সহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে নিউ ইয়র্কে শেখ হাসিনা বিরোধী যে কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে, তা সুশৃঙ্খলভাবে রুখে দেয়ার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের অংশ হিসেবে পুলিশ প্রশাসনের অনুমতি নেয়া হয়েছে, জননেত্রী শেখ হাসিনাকে কালো পতাকা দেখানোর নামে যদি কোনো ধরনের অশালিন-অসভ্য আচরণের ঔদ্ধত্য দেখানো হয়, তাহলে দাঁতভাঙা জবাব দেয়া হবে প্রচলিত আইনেই।” জ্যাকসন হাইটসে পালকি পার্টি  সেন্টারে অনুষ্ঠিত ওই সংবাদ সম্মেলনে জাকারিয়া চৌধুরী এ-ও জানান, এয়ারপোর্টে নেত্রীকে বিপুল অভ্যর্থনা জানানো হবে। জাতিসংঘে তার ভাষণ চলাকালে বাইরে শান্তি সমাবেশও করবে মহানগর আওয়ামী লীগ। তবে কর্মসূচি  ঘোষণার ওই সংবাদ সম্মেলনে তার দলের  জ্যেষ্ঠ নেতাদের ঘায়েলই তার উদ্দেশ্য ছিল জানিয়ে ওই আড্ডায় বলা হয়- দেখুন পদ- পদবি লড়াই থেকে কতটা নোংরামি হচ্ছে। একজন অন্যজনকে কীভাবে ঘায়েল করছে।
আওয়ামী লীগের ওই নেতাই  বলছিলেন- ‘তবে দলের পদ-পদবি  দেখিয়ে বছরের ৯ মাসই ঢাকায় অবস্থানকারী মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইমদাদ চৌধুরী এবং যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান মাঝেমধ্যে নিউ ইয়র্কে ফিরে দলের হাইকমান্ডের নাম ভাঙিয়ে ত্যাগী নেতাকর্মীদের বিষিয়ে তোলে আখের গোছাতে চান। সভাপতি শেখ হাসিনার আগমনকে ঘিরেও একই পরিস্থিতির উদ্ভব ঘটানো হয়েছে’-অভিযোগ করেন তিনি তার সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে। সেখানে এ-ও বলা হয় তাদের সংবাদ সম্মেলন ভণ্ডুল করার জন্য আরেক চৌধুরী নাকি সাঙ্গপাঙ্গ নিয়ে মহড়া দিচ্ছিলেন। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা নাকি দ্রুত স্থান ত্যাগ করে চলে গেছেন।
মহানগর আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ তাদের লিখিত এমন অভিযোগও করেন ‘পদ-পদবি নিয়ে বাংলাদেশে অবস্থান করে দু’জন ব্যক্তি তদবির বাণিজ্যে লিপ্ত। তারা প্রকারান্তরে আওয়ামী লীগের জনপ্রিয়তাকে প্রশ্নবিদ্ধ করছেন।’ এত গেল সরকারি দল আওয়ামী লীগের অবস্থা। বিরোধী বিএনপি! নিউ ইয়র্কে দলটির কোনো কমিটি নেই। যারা পুরনো তারা ৫-৬টি উপদলে বিভক্ত। এক দল অন্য দলকে ঘায়েলে ব্যস্ত। সেখানে আবার অন্য খেলা। একদল জামায়াতঘেঁষা, অন্যদের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের সঙ্গে লিয়াজোঁ করে চলার অভিযোগ। ওই অভিযোগগুলো নাকি দলের হাই কমান্ড পর্যন্ত ছড়িয়ে গেছে। বিএনপি’র প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে নিউ ইয়র্কে কাজ করা এক সরকারি কর্মকর্তা বলেন, কেউ কারও নেতৃত্ব মানে না।
যে যার মতো করে ফেসবুকে ঘোষণা দিয়ে যাচ্ছে। কয়েকটা সংবাদ সম্মেলনের খবরও এসেছে। ‘প্রবাসী নাগরিক সংবর্ধনা’ সমাবেশে প্রধানমন্ত্রীর আজকের বক্তৃতার সময় নাকি তারা বাইরে বিক্ষোভ ও কালো পতাকা দেখাবে। তারা নাকি এ জন্য কর্তৃপক্ষের অনুমতিও নিয়েছে। অবশ্য বিরোধী মহলের কর্মসূচির বিষয়ে আগাগোড়ায় সতর্ক রয়েছে সরকার। দলীয়  নেতারাও আছেন সক্রিয়। তারা  খোলামেলাই বলছেন, প্রতিবাদের নামে জামায়াত-শিবিরের প্ররোচনায় বিএনপি যদি কোনো অসভ্য-অগণতান্ত্রিক আচরণের  চেষ্টা করে তাহলে তার সমুচিত জবাব  দেয়া হবে।
প্রধানমন্ত্রীর মর্যাদা রক্ষায় তারা অতন্দ্র প্রহরীর ভূমিকায় থাকবেন। গত কয়েক দিনের পাল্টাপাল্টি ওই সব বক্তব্যের মধ্যেই প্রধানমন্ত্রী নিউ ইয়র্কে পৌঁছাচ্ছেন। স্থানীয় সময় দুপুরে তার নিউ আর্ক লিবার্টি ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্ট পৌঁছার কথা।
চলমান রাজনৈতিক সংকট নিরসনে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার, তফসিলের আগে সংসদ ভেঙে দেয়া, নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া যে দাবি তুলেছে তা মানা সম্ভব নয় বলে মনে করছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। তবে, এ পর্যন্ত জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার কর্মসূচিকে ইতিবাচক হিসেবেই দেখছেন দলটির নেতারা। তারা বলছেন, দেশে যে একটি নির্বাচনী আবহ তৈরি হয়েছে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার কর্মসূচিতেই তা প্রমাণ হয়। তবে, তারা যেসব দাবি তুলেছে নির্বাচনের ঠিক আগ মুহূর্তে এসব দাবি অযৌক্তিক। দলটির নেতারা বলছেন নতুন এ রাজনৈতিক জোটের কর্মসূচি পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। ভবিষ্যতে তারা কি ধরনের কর্মসূচি দেয় সেটা এখন দেখার বিষয়। বিরোধী জোট যদি সহিংস আন্দোলনের দিকে যায় তাহলে জনগণ ও সরকার তার ব্যবস্থা নেবে। জাতীয় ঐক্যের সঙ্গে বিএনপি থাকায় তাদের মূল উদ্দেশ্য নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে আওয়ামী লীগ। দলটির নেতারা জানিয়েছেন, দেশের অন্যতম বড় দল আওয়ামী লীগ। অথচ জাতীয় ঐক্যে আওয়ামী লীগ নেই।
তাহলে এটা কিসের জাতীয় ঐক্য হলো। দলীয় সূত্র জানায়, নির্বাচন সামনে রেখে নতুন জোটের বিষয়ে দলের পক্ষ থেকে সতর্ক প্রতিক্রিয়া দিতে কেন্দ্র থেকেই বলা হয়েছে। তবে, নতুন এ জোট গঠনের প্রক্রিয়া সামনে নির্বাচন বিষয়ে আওয়ামী লীগের সামনে বড় চ্যালেঞ্জ হবে বলে মনে করছেন নেতারা। আর তাই নির্বাচন সামনে রেখে ১৪ দলের বাইরে আরো কিছু রাজনৈতিক দলকে ক্ষমতাসীন জোটে নিয়ে আসার চিন্তা চলছে। বিএনপি ও বিরোধী দলগুলো জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সঙ্গে মিলে নির্বাচনে আসলে এক্ষেত্রে ক্ষমতাসীন দলও বড় জোট নিয়েই নির্বাচনের মাঠে নামতে চায়। এদিকে, এই মুুহূর্তে জোট মহাজোটের চেয়ে দলীয় প্রচার প্রচারণার ওপর জোর দিচ্ছে আওয়ামী লীগ। নির্বাচনী সভা সমাবেশের মাধ্যমে নেতাকর্মীদের চাঙ্গা রাখতে কেন্দ্রীয় নেতারা সারা দেশে সফর শুরু করেছেন। নির্বাচন পর্যন্ত এ কার্যক্রম চলবে।
শনিবার ডান-বাম-মধ্যপন্থি সব ধারার দলের নেতাদেরই দেখা গেছে মহানগর নাট্যমঞ্চে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সমাবেশে। ওই সমাবেশ থেকে সরকারের প্রতি সাত দিনের একটি আল্টিমেটাম দেয়া হয়েছে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার গঠনের উদ্যোগ নেয়ার জন্য। বলা হয়েছে দাবি মানা না হলে ১লা অক্টোবর থেকে সারা দেশে সভা সমাবেশের কর্মসূচি দেয়া হবে। নির্বাচন আর রাজবন্দিদের মুক্তির ইস্যুতে অভিন্ন কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে সমাবেশ থেকে।
এদিকে, জাতীয় ঐক্যের গঠন নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগকে বাদ দিয়ে জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব নয়। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের মতো জনপ্রিয় দলকে বাদ দিয়ে যে ঐক্য হবে, তা হবে জাতীয়তাবাদী সামপ্রদায়িক ঐক্য। এই ধরনের ঐক্য জনগণের মধ্যে কোনো গ্রহণযোগ্যতা পাবে না। এতদিন জোট গঠন প্রক্রিয়ার রাজনীতিকে ইতিবাচক হিসেবে দেখলেও জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সূচনাতেই ষড়যন্ত্রের গন্ধ পাচ্ছে আওয়ামী লীগ। এই প্ল্যাটফর্মে বিএনপি নেতাদের উপস্থিতি ও নাগরিক সমাবেশ থেকে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি উঠে আসায় জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ায় ষড়যন্ত্র দেখছে তারা।
দলটির নেতারা মনে করছেন, নাগরিক সমাবেশে বিএনপি নেতাদের অংশগ্রহণ ও খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি তুলে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে গেছে জাতির কাছে। তাই এই ঐক্য প্রক্রিয়া জাতির কাছে তার আবেদন হারিয়ে ফেলেছে। এ প্রসঙ্গে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ফারুক খান গতকাল মানবজমিনকে বলেন, আওয়ামী লীগকে ছাড়া তো আর জাতীয় ঐক্য হতে পারে না। আগামী কয়েক দিন তাদের কর্মসূচি পর্যবেক্ষণ করা হবে। তখন স্পষ্ট হবে এটা কি সন্ত্রাসীদের ঐক্য হলো, যুদ্ধাপরাধীদের ঐক্য হলো, বিরোধী দলের ঐক্য হলো না কি সংবিধান বিরোধীদের ঐক্য হলো।
তিনি বলেন, এরইমধ্যে যুক্তফ্রন্টকে আমরা স্বাগত জানিয়েছি। যদি যুক্তফ্রন্টের উদ্দেশ্য হয় আগামী নির্বাচনকে সুষ্ঠু ও সুন্দর ও অংশগ্রহণমূলক করার তাহলে আমরা তাকে সমর্থন করি। আর যদি যুক্তফ্রন্ট বা জাতীয় ঐক্য নির্বাচনকে ক্ষতিগ্রস্ত করার চেষ্টা করে, ষড়যন্ত্র করে, সংবিধান নিয়ে ষড়যন্ত্র করে তাহলে দেশের জনগণ ও সরকার সে বিষয়ে ব্যবস্থা নেবে। তাদের কর্মসূচি প্রসঙ্গে ফারুক খান বলেন, আন্দোলন হচ্ছে গণতন্ত্রের অংশ। জনগণকে নিয়ে তো আন্দোলন করতে হবে। তারা অতীতে যে সহিংস আন্দোলন করেছে তা আমরা দেখেছি। ওই ধরনের সহিংস আন্দোলনও তারা করতে পারে। তাহলে আওয়ামী লীগের করার কিছু নেই। সরকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে। দলের অপর প্রেসিডিয়াম সদস্য পীযুষ কান্তি ভট্রাচার্য মানবজমিনকে বলেন, সবচেয়ে বড় দল আওয়ামী লীগ। সেই দলকে বাদ দিয়ে তো জাতীয় ঐক্য হবে না।
যেটা হয়েছে ওটাকে জাতীয় ঐক্য বলে না। ওই ঐক্যে যারা আছেন তাদের বেশিরভাগেরই কোনো দলই নেই। ড. কামাল হোসেনের মতো অত্যন্ত শ্রদ্ধেয় ব্যক্তি তার কোনো দল নেই। ৫-৭ জন কেউ নির্বাচনে পাস করে না। বিএনপির আমলে যিনি প্রেসিডেন্ট (ডা. বদরুদ্দোজা চৌধুরী) ছিলেন উনার অবস্থাও তাই। এর বাইরে যারা আছেন তারা কেউই কোনো সময় পাস করার মতো নন। তাই এটাকে জাতীয় ঐক্য বলা যায় না। জাতীয় ঐক্যের দাবি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তারা যেসব দাবি জানিয়েছেন বিশেষ করে ৩০ তারিখের মধ্যে এটা করতে হবে, সেটা করতে হবে- এগুলো আসলে মানা সম্ভব না। কারণ নির্বাচন হবে সংবিধান অনুযায়ী। সেখানে তাদের ওই শর্ত আমরা মানতে রাজি না। তিনি বলেন, যে আলোচনাই হোক আওয়ামী লীগ এখন ক্ষমতায় রয়েছে এবং তাকে (শেখ হাসিনা) ক্ষমতায় রেখেই নির্বাচন হবে। এর বাইরে আমাদের সংবিধানের বহির্ভূত কোনো জিনিস আমরা মেনে নেব না।
জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়ায় ইতিবাচক অগ্রগতি দেখছে বিএনপি। কারাগারে যাওয়ার আগে জাতীয় ঐক্যের আহ্বান জানিয়েছিলেন দলটির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। ‘জাতীয় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগেই সরকারের পদত্যাগ, সংসদ ভেঙে দেয়া, নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার গঠন, নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন ও নির্বাচনে সেনা মোতায়েন’-এর মতো যেসব দাবিকে সামনে রেখে তিনি জাতীয় ঐক্যের আহ্বান জানিয়েছিলেন তা এখন নিজেদের দাবি হিসেবে গ্রহণ করেছে জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়া সংশ্লিষ্ট দলগুলো। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কারামুক্তির বিষয়ে একমত পোষণের পাশাপাশি নিজেরাই সে দাবি উচ্চারণ করেছে নাগরিক সমাবেশে। ইতিবাচক অগ্রগতি হয়েছে অন্য আরেকটি জায়গায়। বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০দলীয় জোটের শরিক দল জামায়াত ইস্যুতে ঐক্যপ্রক্রিয়ায় একটি টানাপড়েন ছিল এতদিন। জামায়াতের সঙ্গে জোটবদ্ধ রাজনীতি ও স্বতন্ত্রভাবে জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়ার অংশগ্রহণে বিএনপির কৌশলটি দুইপক্ষেই পেয়েছে গ্রহণযোগ্যতা। যার প্রেক্ষিতে, জোটের ঐক্য ধরে রেখে জাতীয় ঐক্যে এগোনোর সুযোগ তৈরি হয়েছে বিএনপির সামনে। আর সন্দেহ-সংশয়ের ঘূর্ণাবর্ত পেরিয়ে নাগরিক সমাবেশে বিকল্প ধারা সভাপতি ও সাবেক প্রেসিডেন্ট প্রফেসর ডা. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর অংশগ্রহণটিই এখন পর্যন্ত সবচেয়ে ইতিবাচক অগ্রগতি হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে বিএনপিসহ রাজনৈতিক মহলে। এ ছাড়া জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়ার নেতৃত্ব নিয়ে কোনো জটিলতা নেই এখন। প্রচারণা ছিল, নেতৃত্ব নিয়ে সাবেক প্রেসিডেন্ট ডা. বদরুদ্দোজা চৌধুরী ও সংবিধানের অন্যতম প্রণেতা ড. কামাল হোসেনের মধ্যে এবং এই দুইজনের সঙ্গে বিএনপির কিছুটা মতদ্বৈততা আছে। কিন্তু শনিবারের সমাবেশে সে প্রচারণা হাওয়ায় উড়ে গেছে। বিএনপি নেতারা বলেন, নেতৃত্ব নিয়ে কোনো ধরনের জটিলতা নেই। যৌথ নেতৃত্বে পরিচালিত হবে চলমান জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়া ও আন্দোলন। শনিবারের নাগরিক সমাবেশ শেষে বিএনপি স্থায়ী কমিটিসহ দলটির নানা পর্যায়ের নেতাকর্মী ও জোট নেতারা এমন মনোভাব পোষণ করেছেন।
জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়ার সার্বিক অগ্রগতিকে ইতিবাচক বিবেচনা করেই শনিবারের নাগরিক সমাবেশে অংশ নেয় বিএনপির শীর্ষস্থানীয় প্রতিনিধিদল। সেখানে বিএনপি নেতারা তাদের বক্তব্যে ঐক্যের উদ্যোক্তাদের নানা বিশেষণে সম্মান দেখান। বিএনপি মহাসচিব তার বক্তব্যে ড. কামাল হোসেনের ব্যাপারে বলেছেন, ‘জাতির এ চরম দুর্দিনে তিনি দেশবাসীকে মুক্তির পথ দেখাচ্ছেন’। উদ্যোক্তাদের ‘ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা’ জানিয়েছেন ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। ড. কামাল হোসেনকে ‘বাংলাদেশের গৌরব’ বলে আখ্যায়িত করেছেন ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়াকে বিএনপি কতটুকু ইতিবাচকভাবে দেখছে তা তাদের বক্তব্যেই প্রকাশ পেয়েছে। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘আমরা ইতিমধ্যে ঐক্যের পথে একধাপ এগিয়ে গেছি।’ কারাগার থেকে খালেদা জিয়া ঐক্যের তাগিদ দিয়ে বার্তা পাঠিয়েছেন বলেও উল্লেখ করেন তিনি। বিএনপি স্থায়ী কমিটির সিনিয়র সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘নাগরিক সমাবেশের মধ্য দিয়ে স্বৈরাচার ও ফ্যাসিস্ট সরকার থেকে দেশকে রক্ষা করার প্রক্রিয়ার সূচনা হলো। আমি মনে করি, সারা দেশের মানুষের মধ্যে জাতীয় ঐক্য ইতিমধ্যে প্রতিষ্ঠিত হয়ে গেছে।’
জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়ার গতি-প্রকৃতি ও কর্মসূচি নিয়ে রাজনৈতিক মহলে রয়েছে নানা কৌতূহল। জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়া সংশ্লিষ্ট নেতারা বলেন, আন্দোলনের মাধ্যমেই দাবি আদায় করতে হবে। কিন্তু দেশের রাজনীতিতে বিরোধী দলের ক্ষেত্রে ‘আন্দোলন’ শব্দটির ভেতর দিয়ে সরকারের তরফে প্রচারণা চালানো হয় একটি নেতিবাচক আশঙ্কার। এবার নতুন ধারার একটি আন্দোলন করতে চায় জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়ার দলগুলো। শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির মাধ্যমে সে আন্দোলন এগিয়ে যাবে। কর্মসূচিতে ধ্বংসাত্মক প্রকাশ নয়, বরং জনগণের স্বতঃস্ফূর্ত এবং বিপুল অংশগ্রহণের মাধ্যমে চাপ তৈরি করা হবে সরকারের ওপর। জনমতের ভিত্তিতে অনুকূলে আনা হবে কূটনীতিক সমর্থন। জনমতের চাপেই খালেদা জিয়াসহ রাজবন্দিদের মুক্তি ও সবার অংশগ্রহণে সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানে সরকারকে বাধ্য করা হবে। তবে গণতান্ত্রিক রীতি মেনে প্রথমে আলোচনার পথে হাঁটবে, পরে কড়া কর্মসূচি দেয়া হবে। তারই অংশ হিসেবে নাগরিক সমাবেশের যৌথ প্রস্তাবে উত্থাপিত দাবিগুলো পূরণে সরকারকে ৩১শে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সময় দেয়ার পাশাপাশি দাবি পূরণ না হলে ১লা অক্টোবর থেকে সারা দেশে সমাবেশের কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দিয়েছেন জাতীয় ঐক্যের নেতারা। আগামীতে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির মাধ্যমে এগিয়ে নেয়া হবে আন্দোলন। জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়া নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর ড. এমাজউদ্দীন আহমদ বলেন, ক্ষমতাসীন দল রাষ্ট্রের কর্মকর্তাদের ব্যবহার করে যেভাবে সারা দেশে ধরপাকড় চালাচ্ছে বৃহত্তর ঐক্যপ্রতিষ্ঠা ছাড়া এ পরিস্থিতি থেকে উত্তরণ সম্ভব নয়। সে জন্য কিছু স্যাক্রিফাইস যদি করতে হয়, করতে হবে। সবসময় সবাইকে সামনে আসার কি দরকার। যখন নির্বাচন আসবে তখন রাজনীতিতে নতুন বিবেচনা আসতে পারে। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে বিএনপির যে অঙ্গীকার সেটা অর্জনের লক্ষ্য পূরণে এ বৃহত্তর ঐক্যের পথযাত্রা জাতীয় রাজনীতিতে একটি ইতিবাচক ঘটনা।
২০দলীয় জোটের একাধিক নেতা জানান, যুক্তফ্রন্ট ও গণফোরাম আহূত জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়ায় যুক্ত হওয়ার বিষয়ে জোটের নেতাদের সঙ্গে একাধিক বৈঠক করেছে বিএনপি। সেখানে দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে জাতীয় ঐক্যের প্রয়োজনীয়তা ও জোটের শরিক দল জামায়াতের ব্যাপারে ঐক্যের উদ্যোক্তাদের মনোভাব নিয়ে আলোচনা-পর্যালোচনা হয়। সেসব বৈঠকে নেতারা একমত হন দেশের বর্তমান পরিস্থিতি উত্তরণে বৃহত্তর ঐক্যের বিকল্প নেই। কিন্তু জামায়াত ইস্যুতে বিষয়টি আটকে ছিল বেশকিছুদিন। একদিকে যুক্তফ্রন্ট ও গণফোরামের তরফে আপত্তি ছিল জামায়াতের ব্যাপারে অন্যদিকে জামায়াতকে বাদ দিয়ে এ ঐক্যের ব্যাপারে সংশয় ছিল জোটসহ বিএনপির একাংশের। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে দফায় দফায় আলোচনার মাধ্যমে একটি অবস্থানে এসে পৌঁছে বিএনপি। বিশেষ করে দলের চেয়ারপারসন কারাবন্দি খালেদা জিয়ার পরামর্শ ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশনার ভিত্তিতে সুনির্দিষ্ট আলোচনার মাধ্যমে এই সমাধানে পৌঁছে দলটি। সিদ্ধান্ত হয়, জোটের শরিক দল হিসেবে জামায়াতের সঙ্গে জোটের রাজনীতিতে ঐক্য ধরে রাখবে বিএনপি। অন্যদিকে স্বতন্ত্র দল হিসেবে অংশগ্রহণ করবে জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়ায়। জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়ার তরফে জোটের বেশকিছু দলকে স্বতন্ত্রভাবে চিঠি দিয়ে আমন্ত্রণ করায় সহজ হয়ে যায় বিএনপির এ কৌশল। জামায়াত সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, জামায়াত নেতারাও মনে করেন দেশের চলমান পরিস্থিতি উত্তরণে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্যের বিকল্প নেই।
কিন্তু তাদের বাদ দিয়ে এ ঐক্যপ্রক্রিয়া নিয়ে সন্দেহ ও সংশয় রয়েছে তাদের মনে। আর সন্দেহ-সংশয় থেকে তৈরি হয়েছে উদ্বেগ। দলীয় ফোরাম ও শুভাকাঙক্ষী মহলে তারা এ সংশয় প্রকাশ করেছেন। তারা সন্দেহ করছেন, সরকার সমর্থক কোনো শক্তি এ জোটের গতিপথ ভিন্নদিকে প্রবাহিত করতে পারে। তবে আপাতত এ ব্যাপারে প্রকাশ্যে কোনো বক্তব্য দেবে না জামায়াত। জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়াবিরোধী কোনো অবস্থানও নেবে না। পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করবে। পরিস্থিতি মেনেই পরিবর্তী সিদ্ধান্ত নেবে। তবে বড় কোনো জটিলতা তৈরি না হলে জামায়াত জাতীয় ঐক্যবিরোধী অবস্থানে যাবে না। অন্যদিকে জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়ার উদ্যোক্তা দলগুলোর নেতারা জানান, জামায়াত ইস্যুতে জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়া ও ২০দলীয় জোটের মধ্যে যতটুকু টানাপড়েনের কথা গণমাধ্যমে প্রকাশিত হচ্ছে বাস্তবে ততটুকু জটিলতা নেই। জাতীয় ঐক্য স্বাধীনতার পক্ষের দল নিয়ে ঐক্য ও আন্দোলন করবে। জামায়াতকে সেখানে যুক্ত করা হবে না। এখন জামায়াতকে কীভাবে হ্যান্ডেল করবে সেটা বিএনপির বিষয়। বিএনপি এখন পর্যন্ত সেটা সফলভাবে হ্যান্ডেল করতে পেরেছে বলেই তারা অংশগ্রহণ করতে পেরেছে নাগরিক সমাবেশে।
২০ দলীয় জোটের শরিক কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মে. জে. (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, বীরপ্রতীক বলেন, বর্তমান পরিস্থিতি উত্তরণে জাতীয় ঐক্যের বিকল্প নেই। আমরা ২০ দল জোটবদ্ধভাবে রাজনীতি করি, আমাদের প্রধান শরিক দল বিএনপি জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়ায় যুক্ত হয়েছে, আমরাও নাগরিক সমাবেশে দাওয়াত পেয়েছি। সমাবেশে উপস্থিত থাকতে না পারলেও আমরা ঐক্যপ্রক্রিয়ার সঙ্গে আছি। আমাদের প্রত্যাশা- যে ইতিবাচক লক্ষ্য ও অঙ্গীকার থেকে এ জাতীয় ঐক্যের পথযাত্রা শুরু হয়েছে আগামীদিনের পথচলায় সেটা অক্ষুণ্ন থাকবে। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির এ ঐক্যে মুক্তিযুদ্ধের রণাঙ্গনের সৈনিকরা যথাযথ সম্মান পাবে।
২০দলীয় জোটের সমন্বয়ক ও বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, দেশের রাজনীতিতে ২০দলীয় একটি জোটের নেতৃত্ব দেয় বিএনপি। শরিক দলগুলো এ জোটের অধীনে রাজনীতি করে। কিন্তু দেশের বর্তমান পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে একটি বৃহত্তর জাতীয় ঐক্যের বিকল্প নেই। তিনি বলেন, রাজনীতিতে জাতীয় ঐক্যের প্রথম ডাক দিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তিনি সংসদ ভেঙে দেয়া, সরকারের পদত্যাগ, নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন, নির্বাচনকালীন সরকার গঠন ও নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের যেসব দাবিগুলোকে সামনে রেখে এ ডাক দিয়েছিলেন এতদিন সেগুলো উচ্চারণ করেছে কেবল বিএনপি ও ২০ দল। এখন দাবিগুলো ক্ষমতাসীন জোট ছাড়া অন্যান্য রাজনৈতিক দলেরও মূলদাবিতে পরিণত হয়েছে। যুক্তফ্রন্ট ও গণফোরামের নেতারা কিছু দাবিতে জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়ার ব্যাপারে শনিবার একটি নাগরিক সমাবেশ করেছে। সেখানে তারা যাদের দাওয়াত করেছে তারাই অংশ নিয়েছে। দাওয়াত পেয়ে বিএনপি জোটের শরিকদের সঙ্গে আলোচনা করেছে। সেখানে সবাই গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ইস্যুতে চলমান আন্দোলনের পরিসর বৃদ্ধিতে একমত হয়েছেন। তারই ধারাবাহিকতায় নাগরিক সমাবেশে অংশ নিয়েছে বিএনপি। মনে রাখতে হবে, এটা একটি আন্দোলনের ঐক্য। ফলে এখানে জটিলতা সৃষ্টির কোনো কারণ নেই।
নজরুল ইসলাম খান বলেন, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার পথযাত্রা শুরু হয়েছে যেসব দাবির ভিত্তিতে তা অর্জনের আন্দোলনকে জোরদার করবে শনিবারের নাগরিক সমাবেশ। ফলে নাগরিক সমাবেশটি আন্দোলন জোরদারের ক্ষেত্রে একটি শুভ লক্ষণ। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান বলেন, ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে যে জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়া শুরু হয়েছে সেটাকে স্বাগত জানাই। মহানগর নাট্যমঞ্চের নাগরিক সমাবেশে যেসব রাজনৈতিক দল অংশ নিয়েছে তারাই শেষ নয়, আশাকরি দেশের সকল গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল এ প্রক্রিয়ায় সংযুক্ত হবে। আর এ জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়াকে জোরদার করে আন্দোলনের মধ্য দিয়ে সরকারকে সঠিক পথে আনার বিকল্প নেই। তিনি বলেন, জাতীয় ঐক্যের আহ্বান জানিয়ে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের লড়াই শুরু করার কারণে মিথ্যা মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে আটকে রেখেছে সরকার। তার সঙ্গে অমানবিক আচরণ করা হচ্ছে কারাগারে। মোহাম্মদ শাহজাহান বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাসে আগেও নেতারা অনেকবার ঐক্যের উদ্যোগ নিয়েছেন। কিন্তু নেতাদের কিছু আচরণে মানুষের স্বপ্নভঙ্গ হয়েছে, হতাশা তৈরি হয়েছে। আশা করি, এবার নেতারা সে ধরনের কোনো আচরণ করবেন না। জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়ার নাগরিক সমাবেশের মাধ্যমে জনগণের মধ্যে যে আশাবাদ তৈরি হয়েছে তা আরো জোরদার হয়ে ফ্যাসিবাদের বিরুদ্ধে লড়াই করার সাহস যোগাবে। যে আন্দোলনের সূচনা হয়েছে তা ইতিবাচকভাবে এগোবে। এর মাধ্যমে খালেদা জিয়ার মুক্তি নিশ্চিত ও সবার অংশগ্রহণে এবং সবার কাছে গ্রহণযোগ্য একটি নির্বাচন আদায়ে সক্ষম হবে। যার মাধ্যমে বর্তমান অবৈধ সরকারের পরিবর্তন হবে।
বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, জাতীয় ঐক্যপ্রক্রিয়ার উদ্যোগে নাগরিক সমাবেশের মধ্য দিয়ে দেশের রাজনীতিতে নিঃসন্দেহে সূচনা ঘটেছে নবদিগন্তের। এর মধ্য দিয়ে দেশনেত্রী খালেদা জিয়া দীর্ঘদিন ধরে যে ঐক্যপ্রক্রিয়ার আহ্বান জানিয়েছেন, যেখানে তিনি আওয়ামী লীগকেও যুক্ত করতে চেয়েছেন; সেখানে আওয়ামী লীগ না এলেও অন্য যারা এসেছেন সেটা অত্যন্ত ইতিবাচক। এর লক্ষ্য যদি হয় গণতন্ত্র ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পুনরুদ্ধার, তাহলে সে ঐক্যের প্রথম পর্বটি সম্পন্ন হয়েছে। এখন মাঠে গড়ানোর প্রক্রিয়া শুরু হবে। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ বলছে- তাদের ছাড়া জাতীয় ঐক্য কীভাবে হবে? তারা প্রথম থেকে এখন পর্যন্ত জাতীয় ঐক্য নিয়ে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্যই করে যাচ্ছেন। আমি বলতে চাই, মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় শাসক দল মুসলিম লীগকে বাদ দিয়ে স্বাধীনতার প্রশ্নে যদি তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের জাতীয় ঐক্য হতে পারে, নব্বইয়ে যদি জাতীয় পার্টিকে বাদ দিয়ে জাতীয় ঐক্য হতে পারে, এখন আওয়ামী লীগকে বাদ দিয়ে জাতীয় ঐক্য হতে বাধা কোথায়? বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও খুলনা মহানগর সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেন, দীর্ঘদিন থেকে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া যে জাতীয় ঐক্যের আহ্বান জানিয়ে এসেছেন, শনিবার মহানগর নাট্যমঞ্চের নাগরিক সমাবেশের মধ্য দিয়ে তা বাস্তব রূপ লাভ করেছে। এখন সুনির্দিষ্ট দাবিতে, সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যে এগিয়ে যাওয়ার পালা।
ঘোষিত কমিটি নিয়ে চট্টগ্রাম কলেজে ছাত্রলীগের বিবাদমান গ্রুপের মধ্যে টানা সংঘর্ষ চলছে। এরমধ্যে ৫ দিনের মাথায় রবিবার সকাল থেকে কলেজ ক্যাম্পাসের নিয়ন্ত্রণ নেয় পুলিশ। ফলে কোনোরকম সংঘর্ষের ঘটনা আজ ঘটেনি।
তবে ছাত্রলীগের দুপক্ষ ঠিকই মুখোমুখি অবস্থানে ছিল। যাদের হাতে ছিল না গত চারদিনের মতো কোনোরকম আগ্নেয়াস্ত্র। কারণ কলেজ ক্যাম্পাসে প্রবেশের সময় পুলিশ শিক্ষার্থীদের পরিচয়পত্র দেখার পাশাপাশি শরীরেও তল্লাশি চালায়।
এ জন্য চট্টগ্রাম কলেজ ক্যাম্পাস ঘিরে তিন শতাধিক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে বলে জানান চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের চকবাজার জোনের সহকারী কমিশনার নোবেল চাকমা।
তিনি বলেন, কয়েকদিন ধরে চট্টগ্রাম কলেজে তান্ডব চালিয়েছে ছাত্রলীগ। তবে এদের মধ্যে বহিরাগত ছিল বেশি। যাদের হাতে বন্দুকসহ নানা রকম আগ্নেয়াস্ত্র দেখা যায়। কলেজ ক্যাম্পাসে এরা ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতঙ্ক ছড়িয়েছে। সড়ক অবরোধ করে জনগণের দুর্ভোগ বাড়িয়েছে। সংঘাত-সংঘর্ষে জড়িয়ে চট্টগ্রাম কলেজ ক্যাম্পাসকে দুর্বিসহ করে তোলেছে।
টানা সংঘাত-সংঘর্ষের কারণে আজ রবিবার সকাল থেকে কলেজ ক্যাম্পাসের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে পুলিশ। যারা কলেজ ক্যাম্পাসের নিরাপত্তা জোরদার করেছে। পরিচয়পত্র প্রদর্শণ ছাড়া কাউকে ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে না দেওয়ায় এবং শরীর তল্লাশি করে প্রবেশ করার ফলে কলেজে আজ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেনি। কোনো বিস্ফোরণের শব্দও শুনা যায়নি।
তবে আজও ছাত্রলীগের দুইপক্ষ মুখোমুখি অবস্থানে ছিল। পদবঞ্চিতরা ক্যাম্পাসে অবস্থান নিয়ে আছেন। তারা মিছিল করার প্রস্তুতি নিয়েছিলেন। অন্যদিকে নবগঠিত কমিটির নেতাকর্মীরাও ক্যা¤পাসে অবস্থান করছিল। কিন্তু পুলিশ কাউকে মিছিল করতে দেয়নি।
এর আগে গত শনিবার সকালেও দুপক্ষ মুৃখোমুখি অবস্থান নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। এ সময় ককটেল বিস্ফোরণের শব্দ শুনা যায়। একটি পক্ষ সড়ক অবরোধের চেষ্টা করলে তাদের তাড়িয়ে দেওয়া হয়। ফলে শনিবার সড়কে কোনোরকম প্রতিবন্ধকতা ছিল না। এর আগে বৃহস্পতিবার, বুধবার ও মঙ্গলবার তিনদিনই সড়ক অবরোধ করে ছাত্রলীগ। ফলে দুর্ভোগে পড়েন নগরবাসী।
এছাড়া মঙ্গলবার ও বুধবার দু‘দিন সশস্ত্র সংঘর্ষে লিপ্ত হয় ছাত্রলীগ। এ সময় বন্দুক উচিয়ে গুলি করতেও দেখা যায় কয়েকজনকে। এদের মধ্যে সাব্বির সাদিক নামে এক ছাত্রলীগ নেতাকে গ্রেপ্তারও করে পুলিশ। তার কাছ থেকে গুলিসহ উদ্ধার বন্দুকটিও উদ্ধার করা হয়।
এছাড়া ধারালো অস্ত্র ও মুর্হুমুর্হু ককটেল বিস্ফোরণে রণক্ষেত্রে পরিণত হয় চট্টগ্রাম কলেজ ও আশপাশের এলাকা। এতে চরম অপ্রীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। ফলে আজ রবিবার সকাল থেকে চট্টগ্রাম কলেজ ক্যাম্পাসের নিয়ন্ত্রণ নেয় পুলিশ। এরপর সংঘাত-সংঘর্ষ না হলেও চট্টগ্রাম কলেজ ক্যা¤পাসজুড়ে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে বলে জানান তিনি।
প্রসঙ্গত, গত সোমবার রাতে চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের ২৫ সদস্যের কমিটি ঘোষণা করে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগ। এতে মাহমুদুল করিমকে সভাপতি ও সুভাষ মল্লিক সবুজকে সাধারণ স¤পাদক করে কমিটি অনুমোদন দেয় নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান হাসান ইমু ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ স¤পাদক দস্তগীর চৌধুরী।
মাহমুদুল করিম প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর অনুসারী এবং সবুজ প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসির অনুসারী। আর এই কমিটি প্রত্যাখান করে মঙ্গলবার সকাল থেকে ক্যা¤পাসে বিক্ষোভ শুরু করেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিনের অনুসারী ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। নতুন কমিটিতে পদ পাওয়া মেয়রের ছয়জন অনুসারী কমিটি থেকে পদত্যাগও করেন। 
যারা ক্যা¤পাস থেকে বের হয়ে মঙ্গলবার সকালে চট্টগ্রাম কলেজের সামনে সড়কে অবস্থান নেন। তারা সড়কের উপর টায়ার জ্বালিয়ে দেন। এসময় ওই সড়ক দিয়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ক্ষুব্ধ কয়েকজন নেতাকর্মী এ সময় কয়েকটি গাড়িও ভাংচুর করেন।
বিক্ষুব্ধ নেতাদের অভিযোগ, টাকার বিনিময়ে কমিটিতে ছাত্রদল ও শিবিরের রাজনীতির সঙ্গে যুক্তদের পদ দেওয়া হয়েছে। ত্যাগী নেতাদের বাদ দিয়ে রাতের আঁধারে এ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। যা কোনভাবেই মেনে নেবেন না তারা।
টানা তিনদিন সংঘর্ষের পর বৃহস্পতিবার বিকেলে ঘোষিত কমিটি বাতিল চেয়ে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনও করেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ স¤পাদক ও সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের অনুসারী মহানগর ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি এম. কায়সার উদ্দিন ও নেতাকর্মীরা।
অন্যদিকে নবগঠিত কমিটির সভাপতি মাহমুদুল করিম ও সাধারণ স¤পাদক সুভাস মল্লিক সবুজের নেতৃত্বে শতাধিক নেতাকর্মী দুপুরে গরীব উল্লাহ শাহর মাজার সংলগ্ন কবরস্থানে খুন হওয়া ছাত্রলীগ নেতা তবারকের কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায়। এসময় তারা পূর্বসূরীদের আদর্শ ধারণ করে মৌলবাদের বিরুদ্ধে রাজনীতি করে যাওয়ার শপথ নেন।
এরপর শনিবার সকাল থেকে তারা পুনরায় তারা মুখোমুখি অবস্থান নিলে ক্যাম্পাস উত্তপ্ত হয়ে উঠে। যার মুখে রবিবার সকাল থেকে চট্টগ্রাম কলেজের নিয়ন্ত্রণ নেয় পুলিশ।
ডিজিটাল সিকিউরিটি আইন করতে গিয়ে স্বাধীন সাংবাদিকতার কণ্ঠরোধ করা হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন সম্পাদক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও ইংরেজি দৈনিক ‘দ্য ডেইলি স্টার’-এর সম্পাদক মাহফুজ আনাম। তিনি বলেছেন, এই আইন সাংবাদিকতার মূলনীতির পরিপন্থি। যে কারণে সম্পাদক পরিষদ আইনটি প্রত্যাখ্যান করেছে। গত বুধবার বহুল আলোচিত ‘ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট-২০১৮’ সংসদে পাস হয়। সম্পাদক পরিষদ সহ বিভিন্ন মহলের আপত্তি সত্ত্বেও আইনটি সংসদে ওঠে। বৃহস্পতিবার এই আইন নিয়ে কথা বলতে চ্যানেল আই’য়ের টকশো তৃতীয় মাত্রাতে উপস্থিত ছিলেন মাহফুজ আনাম। অনুষ্ঠানটি উপস্থাপন করেন জিল্লুর রহমান।
মাহফুজ আনাম বলেন, সংবিধানে ৩৯ ধারার ২ এর এ এবং বি’তে আমাদের মত প্রকাশের স্বাধীনতা দেয়া হয়েছে। আমরা মনে করি এই আইন তার একেবারেই পরিপন্থি। দ্বিতীয়ত- আমরা মনে করি, আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের যে মূল আদর্শ তার মধ্যে মত প্রকাশ, স্বাধীনতা ইত্যাদি ছিল তা ক্ষুণ্ন হয়েছে এবং তা গণতান্ত্রিক কাঠামোর পরিপন্থি। সাংবাদিকতার যে নীতিমালা তাতেও সম্পূর্ণভাবে পরিপন্থি।
এই কারণেই আমরা সাংবাদপত্র পরিষদ থেকে প্রত্যাখ্যান করতে বাধ্য হয়েছি। অংশীজন এবং সংসদে একাধিক বিরোধীদলের সদস্যের মতামতকে উপেক্ষা করে আইনটি পাস করা হল। আপনার কী ধারণা সরকার কোনো বিবেচনায় কার স্বার্থে আইনটি করল? সামনে নির্বাচন এর ঠিক আগ মুহূর্তে গণমাধ্যমকে একটু ক্ষেপিয়ে তোলা এটি সরকারের বিবেচনায় নিশ্চয়ই কাজ করেছে। উপস্থাপকের এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমি প্রথমেই বলতে চাই, এই আইনটির ব্যাপারে তাদের উদ্দেশ্য মহৎ। ডিজিটাল জগতের নিরাপত্তা নিয়ে তারা চিন্তিত।
ডিজিটাল প্লাটফর্মটা মানি ট্রান্সফার, ব্যাংকিং, সিকিউরিটি, হেলথ, পুলিশের ইনফরমেশন ইত্যাদি যুক্ত আছে। কিন্তু গণমাধ্যমের মূলমন্ত্র মুক্তচিন্তা তারাও এই প্লাটফর্ম ব্যবহার করে। ডিজিটাল সিকিউরিটি আইন করতে গিয়ে স্বাধীন সাংবাদিকতার কণ্ঠরোধ করা হচ্ছে। তারা এই আইন করতে গিয়ে জায়গাটি যথেষ্ট গুরুত্ব সহকারে দেখেননি, দেখছেন না। আপনাদের সঙ্গে আলোচনা করেই কি এটি করা হয়েছে?- উপস্থাপকের এমন প্রশ্নের পরিপেক্ষিতে মাহফুজ আনাম বলেন, তারা আমাদের বারবার বলেছেন এই আইন সাংবাদিকতার পরিপন্থি হবে না, সাংবাদিকদের স্বাধীনতা খর্ব হবে না।
তখন আমি বলেছিলাম, তাহলে আইনে কোথাও একটা ডিসক্লেমার দেয়া যায় কিনা, যে এই আইনে যা আছে তা সাংবাদিকতার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে না। একাত্তর  টেলিভিশনের সম্পাদক মোজাম্মেল বাবু বলেছিলেন, সংবাদ সংশ্লিষ্ট যাই আসবে এটা প্রেস কাউন্সিলের মাধ্যমে আসুক। তাহলে একটা ফিল্টারিংয়ের জায়গা থাকবে। তারা দু’দিন শুনেছেন দু’সেশনে। তারপর মন্ত্রী বলছেন, আমাদের সব ব্যাপার উনি মেনে নিয়েছেন কিন্তু আমার স্মৃতিতে তা মিলছে না।
মাহফুজ আনাম বলেন,  ফারমার্স ব্যাংক, বেসিক ব্যাংক এই যে লোপাট করে নিচ্ছে। এই তথ্যগুলো আমরা বের করে নিয়ে এসেছি। তাহলে এগুলোও অফিসিয়াল সিক্রেট অ্যাক্টে পড়ে। সড়ক নিরাপত্তা নতুন আইনে জণগণের সড়কে মৃত্যু হলে চালককে দেয়া হবে সর্বোচ্চ ৫ বছরের সাজা। আর আমি সাংবাদিক সিক্রেট অ্যাক্ট ভায়োলেট করলে সাজা হবে ১৪ বছর। তিনি বলেন, একটি ধারা খুবই দুশ্চিন্তার কারণ সেটা হলো, ৪৩ ধারা। ধরেন পুলিশের সন্দেহ হলো ডেইলি স্টারের সার্ভারের মধ্যে কিছু তথ্য-উপাত্ত আছে, যেটা ওনার জানা দরকার। সন্দেহবশত আমার সার্ভারটিকে জব্দ করলেন। তাহলে ওইদিন তো আর ডেইলি স্টার বের হবে না। সংবাদপত্র বন্ধের নির্দেশ ছাড়াও সংবাদপত্র বন্ধ হয়ে যাবে। এছাড়া পুলিশ যদি সন্দেহ করে সে আমার একজন রিপোর্টার, এডিটর বা আমাকেও গ্রেপ্তার করতে পারবে।
আপনারা বলছেন, স্বাধীন মতপ্রকাশ ও গণতন্ত্রের জন্য একটি দুঃখজনক দিন আবার অন্যদিকে ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তফা জব্বার বলেন, এই আইন স্বাধীন সাংবাদিকতার বাধা হবে না। ভবিষ্যতে ডিজিটাল যুদ্ধ হবে, এই যুদ্ধে পরাজিত হলে ক্ষতি আমাদেরই হবে। রাষ্ট্র নিরাপত্তা সাধনে আমরাও সহযোগিতা করতে চাই। কিন্তু রাষ্ট্রের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হবে এটা কারো কী কাম্য হতে পারে। কেউ কেউ মনে করে সত্য কথাকে বন্ধ করে শুধু এক ধরনের কথা চালু রেখে রাষ্ট্র শক্তিশালী হয়। আর আমরা মনে করি ভিন্ন মত প্রকাশে রাষ্ট্র শক্তিশালী হয়।
ইতিহাস কী বলে এসব করার মাধ্যমে দেশ দুর্বল হয়। তিনি বলেন, গুজবের কারণে গ্রেপ্তার। কে গুজব রটালো, কোন গুজব রটালো এটা প্রমাণের কোনো প্রক্রিয়া নেই। আপনার বিচার কবে শুরু হবে তার কোনো ঠিক নেই। দেশের স্বাধীনতা যে অধিকার দিয়েছে সেটা নিয়মিত লঙ্ঘন হচ্ছে। এতো বছরের সাংবাদিকতার অভিজ্ঞতায় সাংবাদিকতার স্বাধীনতাকে কিভাবে বিচার করবেন? এমন প্রশ্নে মাহফুজ আনাম বলেন, একটা অনুচ্চারিত ঘটনা, ফোন আসে। এটা একটা অস্বাস্থ্যকর চর্চা। আর একটি ঘটনা, যেমন আমাদের বিজ্ঞাপন আসে না। প্রায় ৪০ শতাংশ বিজ্ঞাপন বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।
পাঁচদিন ধরে জাতিসংঘের ৭৩তম অধিবেশন চলছে। হার্ট অব দি নিউ ইয়র্ক ম্যানহাটন এখন সরগরম। পুরো এলাকা ঢেকে দেয়া হয়েছে নিরাপত্তার চাদরে । এমন অবস্থা পিন পড়লেও তার আওয়াজ পাচ্ছেন সিক্রেট সার্ভিসের সদস্যরা। বিশ্ব নেতারা আসতে শুরু করেছেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পও আসছেন। কাল পৌঁছাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ট্রাম্পের আগমন আগামী মঙ্গলবার থেকে শুরু হতে যাওয়া উচ্চ পর্যায়ের আলোচনা বা হাই লেভেল সেগমেন্টে বাড়তি মাত্রা যুক্ত করছে- এমনটাই জানিয়েছেন জাতিসংঘে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রের স্থায়ী প্রতিনিধি নিকি হ্যালি। মার্কিন প্রেসিডেন্টের জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগদানের প্রস্তুতি ও কর্মসূচির বিস্তারিত জানাতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে নিকি হ্যালি এ নিয়ে উচ্ছাসও প্রকাশ করেন। তিনি বিশ্ব নেতৃবৃন্দের এ মিলনমেলাকে ‘স্পিড ডেটিং’ বলে আখ্যা দিয়েছেন।
মার্কিন দূত জানিয়েছেন, এবারে যুক্তরাষ্ট্রের তরফে এমন সব বিষয় সাধারণ পরিষদের আলোচনার টেবিলে আনা হবে, যা এ ধরণীর জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। নিকি হ্যালির সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত মানবজমিনের ওই রিপোর্টার জানতে চেয়েছিলেন- জাতিসংঘ অধিবেশনে আলোচনার জন্য যুক্তরাষ্ট্র সরকার যে প্রায়োরিটি লিস্ট বা অগ্রাধিকার তালিকা করেছে তার মধ্যে এই মুহূর্তে বাংলাদেশ তথা বিশ্ব সমপ্রদায়ের গভীর উদ্বেগের বিষয় রোহিঙ্গা ইস্যুুতে আর স্পষ্ট করে বললে বিদ্যমান এ সংকটের টেকসই সমাধান প্রশ্নে সুনির্দিষ্ট আলোচনার কোনো চিন্তা বা পরিকল্পনা আছে কি-না? জবাবে মার্কিন দূত মিজ হ্যালি কেবল হ্যাঁ বোধক জবাবই দেননি, এ নিয়ে আলোচনা যে কতটা জরুরি সেটি সবিস্তারে তুলে ধরেন। বরাবরের মতো রোহিঙ্গাদের ওপর বর্মীদের বর্বর আক্রমণের তীব্র নিন্দা এবং এ নিয়ে বাংলাদেশের ভূমিকার ভূয়সী প্রশংসা করেন তিনি। বলেন, নির্যাতনের মুখে প্রাণে বাঁচতে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের সুরক্ষায় সীমান্ত এবং হৃদয় খুলে দিয়ে বাংলাদেশ ঐশ্বরিক কাজ করেছে।
নিকি হ্যালি রোহিঙ্গা তথা মানবতার প্রতি বাংলাদেশ সরকার এবং গোটা দেশবাসীর মহানুভবতাকে গর্ডস ওয়ার্ক বা ‘স্রষ্টার কাজ’ বলে মন্তব্য করেন। সংবাদ সম্মেলনে মার্কিন দূত অং সান সুচির নাম উল্লেখ করেই মিয়ানমারের সরকারের কর্মকাণ্ডের কড়া সমালোচনা করেন। বলেন, এই মুহূর্তে (চলমান জাতিসংঘ অধিবেশনে) হাই টপিক বা অগ্রাধিকারে থাকা বিষয় হচ্ছে- বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের কোন পথে বা কীভাবে নিরাপদে বার্মায় ফেরানো যাবে? সেটি খোঁজা। কিন্তু এ নিয়ে যে বার্মা সরকার  কোনো পদক্ষেপই নিচ্ছে না তা চোখে আঙ্গুল দিয়ে তিনি তার নিজের অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন। বলেন- এ নিয়ে বার্মা সরকার তেমন কিছুই করছে না।
রোহিঙ্গা সমপ্রদায়ের ওপর যে বর্বর অত্যাচার করা হয়েছে তার দায় এখনো নেয়নি বর্মী সেনাবাহিনী। আর অং সান সুচি, তিনি সেদিন বললেন, রয়টার্সের দুজন রিপোর্টারের কারাদণ্ড সেটিও নাকি সঠিক! বর্মী নেতৃত্বের দায়িত্বহীন ওই সব বক্তব্য এবং আচরণে খেদোক্তি করে মার্কিন দূত বলেন, এটাই প্রকৃত সমস্যা। গত বছর রোহিঙ্গা সংকট ভয়াবহ রূপ ধারণ করায় অর্থাৎ রোহিঙ্গা ঢলের সূচনা থেকে সংকটটির সমাধানে সোচ্চার জ্যেষ্ঠ কূটনীতিক নিকি হ্যালি বর্মী নেতৃত্বের প্রতি খোঁচা মেরে বলেন, আমার মনে হয় এখানে কমিউনিকেশনেরও ঘাটতি রয়েছে।
কারণ তারা (বার্মা সরকার) কি বলে এটা কেউ বুঝে না। আর আমরা তথা বিশ্ববাসী যা বলি এতে তারা (বর্মীরা) কর্ণপাত করে না বা শুনে না। মার্কিন দূত বার্মা বা মিয়ানমারের বন্ধু যারা কূটনৈতিকভাবে বিশেষত জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ, হিউম্যান রাইটস কাউন্সিল এবং থার্ড কমিটির মতো গুরুত্বপূর্ণ ফোরামেও তাদের পাশে থেকে রক্ষার চেষ্টা চালায় তাদের প্রতি ইঙ্গিত করে বলেন, বিদ্যমান পরিস্থিতিতে এ সংকটের সমাধানে আন্তর্জাতিক সমপ্রদায়ের জন্য জরুরি হচ্ছে এক সুরে অভিন্ন ভাষায় কথা বলা। মার্কিন দূত বলেন, বৃটেনের আয়োজনে রোহিঙ্গা পরিস্থিতি নিয়ে মন্ত্রী পর্যায়ের একটি  বৈঠক হবে জাতিসংঘ অধিবেশনের সাইড লাইনে। আমি তাতে অংশ নেবো এবং সেখানে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান তুলে ধরবো।
প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করবেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী
রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে একটি রেজুলেশন আনা হবে বলে জানিয়েছেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন। প্রধানমন্ত্রীর সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে অংশগ্রহণ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই তথ্য জানান। এ অধিবেশন চলাকালীন প্রধানমন্ত্রী মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও’র সঙ্গে বৈঠক করবেন বলে জানান। রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধানে এবারের অধিবেশনে গতবারের মতো আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সমর্থন অর্জনে বাংলাদেশের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে উল্লেখ করে মাসুদ বিন মোমেন বলেন, রোহিঙ্গা বিষয়ে আমাদের সর্বাত্মক কূটনৈতিক প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে যা দৃশ্যমান। জাতিসংঘে আমরা সর্বোচ্চ রাজনৈতিক পর্যায়ে এ বিষয়ে বিশ্ব সম্প্রদায়ের আরো জোর সমর্থন অর্জনের চেষ্টা করবো।
সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, প্রধানমন্ত্রী নিউ ইয়র্ক পৌঁছাবেন ২৩শে সেপ্টেম্বর দুপুরে। এদিন সন্ধ্যায় যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত প্রবাসী বাংলাদেশি কম্যুনিটি আয়োজিত এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন তিনি। পরের দিন ২৪শে সেপ্টেম্বর বিকালে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে লেনসন ম্যান্ডেলা পিস সামিটে ভাষণ  দেবেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। এর আগে সকালে বিশ্ব মাদক সমস্যা বিষয়ে বৈশ্বিক আহ্বান সংক্রান্ত একটি উচ্চ পর্যায়ের সভায় যোগ দেবেন। ইভেন্টটির আয়োজক যুক্তরাষ্ট্র। অন্যান্য ২৯টি দেশের সঙ্গে বাংলাদেশ এর সহ-আয়োজক। উপস্থিত থাকবেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ও জাতিসংঘ মহাসচিব। একই দিনে শরণার্থী বিষয়ক বৈশ্বিক কম্প্যাক্ট ও শিক্ষা বিষয়ক দুটি উচ্চ পর্যায়ের হাই-লেভেল ইভেন্টে অংশ  নেবেন প্রধানমন্ত্রী।
এ ছাড়া দুপুরে ইউএস চেম্বার অব কমার্স আয়োজিত একটি রাউন্ড টেবিল আলোচনায় তিনি অংশগ্রহণ করবেন। প্রধানমন্ত্রী ২৫শে সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ ও জাতিসংঘের নিরস্ত্রীকরণ বিষয়ক কার্যালয়ের যৌথ আয়োজনে অনুষ্ঠিত সাইবার সিকিউরিটি ও আন্তর্জাতিক সহযোগিতা বিষয়ক একটি উচ্চ পর্যায়ের সভায় বক্তব্য রাখবেন। এতে জার্মানি, সুইজারল্যান্ড, এস্তোনিয়া ও সিঙ্গাপুর কো-স্পন্সর করছে। জাতিসংঘ মহাসচিবের আয়োজনে অ্যাকশন ফর পিস কিপিং বিষয়ক উচ্চ পর্যায়ের সভায় অংশগ্রহণ করবেন। পিস কিপিং বিষয়ক এই ইভেন্টে প্রদেয় বক্তব্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের শান্তিরক্ষা সক্ষমতা বৃদ্ধিতে ক্রমাগত উন্নতির বিষয়গুলো তুলে ধরবেন।
এ ছাড়া তিনি ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের চতুর্থ শিল্প বিপ্লব সম্পর্কিত একটি প্যানেলে যোগ  দেবেন। জাতিসংঘ মহাসচিবের আমন্ত্রণে ২৬শে সেপ্টেম্বর জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক উচ্চ পর্যায়ের সভায় যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী। ২৭শে সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রী সাধারণ পরিষদের জেনারেল ডিবেট অধিবেশনে ভাষণ দেবেন। প্রতিবারের মতো এবারও প্রধানমন্ত্রী বাংলায় ভাষণ দেবেন। রোহিঙ্গা ইস্যুতে গতবারের উত্থাপিত পাঁচ দফা সুপারিশমালার ধারাবাহিকতায় এবারেও প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট বক্তব্য রাখবেন। এর আগে লিথুনিয়ার প্রেসিডেন্ট আয়োজিত ‘নারীর ক্ষমতায়নের মাধ্যমে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন’ বিষয়ক সাইড ইভেন্টে ভাষণ  দেবেন প্রধানমন্ত্রী। শিক্ষা ও নারী অধিকার বিষয়ক উচ্চ পর্যায়ের ইভেন্টগুলোতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নারীর শিক্ষা ও অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নে বাংলাদেশের অর্জনসমূহ তুলে ধরবেন তিনি।
এসব ইভেন্টগুলোতে উপস্থিত থাকবেন কানাডার প্রধানমন্ত্রী, লিথুয়ানিয়ার প্রেসিডেন্ট, জাতিসংঘ মহাসচিবের বৈশ্বিক শিক্ষা বিষয়ক বিশেষ দূত গর্ডন ব্রাউন। ২৮শে সেপ্টেম্বর সকালে প্রধানমন্ত্রী তার এই সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করবেন। এর পাশাপাশি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কয়েকটি দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধান, জাতিসংঘ মহাসচিব, কিছু আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রধানদের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে অংশ নিয়ে পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করবেন।
জাতিসংঘ মহাসচিবের সঙ্গে আলোচনায় রোহিঙ্গা বিষয়টি প্রাধান্য পাবে। প্রধানমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট আয়োজিত একটি রিসেপশন এবং জাতিসংঘ মহাসচিব আয়োজিত মধ্যাহ্নভোজে অংশগ্রহণ করবেন বলে আশা করা যাচ্ছে। এ ছাড়া প্রতিবারের মতো এবারো প্রধানমন্ত্রী কয়েকটি অ্যাওয়ার্ড পেতে যাচ্ছেন বলে মাসুদ বিন মোমেন জানান।
উল্লেখ্য, ২৩-২৯শে সেপ্টেম্বর ২০১৮ জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৩তম অধিবেশনে অংশগ্রহণ করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিউ ইয়র্ক আসছেন। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের এবারের অধিবেশনে তিনি ৯০ সদস্যবিশিষ্ট বাংলাদেশ সরকারি প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেবেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী এবং পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হবেন।